২৩ নভেম্বর, ২০২২ ০৭:৩৭ পিএম

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন সংক্রান্ত মিটিং স্থগিত

এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন সংক্রান্ত মিটিং স্থগিত
অধ্যাপক ডা. এ কে এম আমিরুল মোরশেদ বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে একটি বিশেষ মিটিং থাকায় অধিদপ্তরের নির্ধারিত মিটিংটি স্থগিত করা হয়েছে। শিগগিরই এটি আয়োজন করা হবে।

মেডিভয়েস রিপোর্ট: মেডিকেল কলেজের ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আয়োজন সংক্রান্ত আজকের নির্ধারিত মিটিংটি অনিবার্য কারণবশত স্থগিত করেছে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। দ্রুততম সময়ে এ সংক্রান্ত মিটিংয়ের আয়োজন করে ভর্তি পরীক্ষার প্রস্তুতি চূড়ান্ত করা হবে।

অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এ কে এম আমিরুল মোরশেদ আজ বুধবার (২৩ নভেম্বর) বিকেলে মেডিভয়েসকে বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন। 

তিনি বলেন, স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আজকে একটি বিশেষ মিটিং থাকায় অধিদপ্তরের নির্ধারিত মিটিংটি স্থগিত করা হয়েছে। শিগগিরই এটি আয়োজন করা হবে। 

চলতি মাসে আপনারা মিটিংয়ে বসছেন কিনা, এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘চলতি মাসে অবশ্যই এই মিটিং করতে হবে। দ্রুত পরীক্ষার তারিখ ঘোষণাসহ নীতিমালা নিয়ে মিটিং হবে। তার পর এটা পাস করাতে হবে। তার পর আবার মিটিং ডাকা হবে। আজকের মিটিংয়ের মূল অ্যাজেন্ডাই ছিল নীতি ঠিক করা। কিন্তু তা তো আর করা সম্ভব হলো না।’ 

এর আগে গত ২১ নভেম্বর সকালে মেডিভয়েসকে তিনি বলেন, দেশের সরকারি-বেসরকারি মেডিকেল কলেজের ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের বিষয়ে আগামী ২৩ নভেম্বর সিদ্ধান্ত হবে।

স্বাস্থ্য শিক্ষার মহাপরিচালক বলেন, ‘এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা আয়োজনের সার্বিক প্রস্তুতি ও পরিকল্পনা এবং দিন-ক্ষণ নির্ধারণের বিষয়ে আগামী ২৩ নভেম্বর সকল অংশীজনদের নিয়ে সভা আহ্বান করা হয়েছে। সেখানে ২০২২-২৩ শিক্ষাবর্ষের ভর্তি পরীক্ষার তারিখ নির্ধারণ করা হবে।’

ভর্তি পরীক্ষা এগিয়ে নিয়ে আসার পরিকল্পনা আছে কিনা—এমন প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, ‘করোনাসহ নানা প্রতিকূলতা সত্ত্বেও গত দুই বছর আমরা সবার আগে এমবিবিএস পরীক্ষা আয়োজন করে আসছি। এবার পরীক্ষা এগিয়ে নিয়ে আসার বিষয়ে আমার ব্যক্তিগত ভাবনা আছে। তবে এ বিষয়ে কারও একার সিদ্ধান্ত বাস্তবায়নযোগ্য না।’

গত ১ এপ্রিল সকালে সারাদেশে একযোগে ২০২১-২২ সেশনের এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হয়। এতে দেশের ১৯টি কেন্দ্রের ৫৭টি ভেন্যুতে পরীক্ষায় অংশ নেয় এক লাখ ৩৯ হাজার ৭৪২ শিক্ষার্থী ও আবেদন করেন এক লাখ ৪৩ হাজার ৯১৫ জন শিক্ষার্থী, যা মেডিকেল ভর্তি পরীক্ষার ইতিহাসে সর্বাধিক। পরীক্ষায় প্রতি আসনের বিপরীতে অংশগ্রহণ করেন ৩৩ দশমিক ০৮ শতাংশ শিক্ষার্থী।

চার দিন পর ৫ এপ্রিল ভর্তি পরীক্ষার ফল প্রকাশিত হয়। এতে পাস করে ৭৯ হাজার ৩৩৭ জন। পাসের হার ছিল ৫৫ দশমিক ১৩ শতাংশ। 

এর মধ্যে ছেলের সংখ্যা ৩৪ হাজার ৮৩৩ জন (৪৩.৯১%) এবং মেয়ের সংখ্যা ৪৪ হাজার ৫০৪ জন (৫৬.০৯%)।

সরকারি মেডিকেল কলেজে সুযোগপ্রাপ্ত ছেলের সংখ্যা ছিল এক হাজার ৮৮৫ জন (৪৪.৫৬%), মেয়ে দুই হাজার ৩৪৫ জন (৫৫.৪৪%)।

মেধাতালিকায় প্রথম স্থান অধিকার করেন সুমাইয়া মোসলেম মিম। ভর্তি পরীক্ষায় তাঁর প্রাপ্ত নম্বর ৯২.৫। তিনি খুলনা মেডিকেল কলেজ কেন্দ্রে ভর্তি পরীক্ষায় অংশ নেন।

ভর্তি পরীক্ষায় শীর্ষ দ্বিতীয় মেধাবীর স্থান দখল করেন রাজশাহী কলেজের আব্দুল্লাহ। তার স্কোর ছিল ৯১.৫।

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  ঘটনা প্রবাহ : এমবিবিএস ভর্তি পরীক্ষা
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত