১৮ এপ্রিল, ২০২১ ০৩:৩০ পিএম

উদ্বোধন হলো ডিএনসিসির করোনা হাসপাতাল

উদ্বোধন হলো ডিএনসিসির করোনা হাসপাতাল
স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক ও ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম। ছবি: সংগৃহীত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বৈশ্বিক মহামারী করোনাভাইরাস ও দেশে নতুন করে ব্যাপক সংক্রমণ পরিস্থিতি বিবেচনায় চালু হলো দেশের সবচেয়ে বড় করোনা ডেডিকটেড হাসপাতাল। ঢাকা উত্তর সিটি করপোরশনের (ডিএনসিসি) এক হাজার শয্যার হাসপাতালটিতে ১১২টি পূর্ণাঙ্গ ১১২টি নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্র (আইসিইউ) ও ১০০টি এইচডিইউ রয়েছে।

আজ রোববার (১৮ এপ্রিল) দুপুরে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক হাসপাতালটি উদ্বোধন করেন। এ সময় ডিএনসিসি মেয়র মো. আতিকুল ইসলাম উপস্থিত ছিলেন।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আজ এক বিশেষ খুশির দিন। গোটা বিশ্বের ন্যায় কোভিডের দ্বিতীয় ঢেউ আমাদের দেশেও হানা দিয়েছে। কোভিডে আক্রান্ত ও মৃত্যু সংখ্যা দিন দিন ভীতিকর হচ্ছে। করোনার দ্বিতীয় ঢেউয়ে ঢাকার সব হাসপাতালের আইসিইউ বেড পুর্ণ হয়ে গেছে। প্রতিদিনই আইসিইউ চাহিদা বৃদ্ধি পাচ্ছে। এরকম একটি কঠিন সময়ে মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর নির্দেশনায় জরুরিভিত্তিতে ডিএনসিসির এই মার্কেটটিকে একটি পুর্ণাঙ্গ কোভিড ডেডিকেটেড হাসপাতাল হিসেবে উদ্বোধন করা হলো।’

হাসপাতালটির সুযোগ সুবিধার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘হাসপাতালটিতে কোভিড রোগীদের জন্য মোট বেড এক হাজার বেড রয়েছে। এর মধ্যে পুর্ণাঙ্গ আইসিইউ বেড আছে ২১২ টি, এইচডিইউ বেড আছে ২৫০ টি এবং কোভিড আইসোলেটেড রুম আছে ৪৩৮ টি। এখানে এমার্জেন্সি বেড আছে ৫০টি, যার ৩০টি পুরুষ ও ২০টি মহিলা রোগীর জন্য। এর পাশাপাশি এখানে আরটি পিসিআর ল্যাব, প্যাথলজি ল্যাব, রেডিও থেরাপি সেন্টার, এক্সরে সুবিধাসহ অন্যান্য নানাবিধ সুবিধাদি রয়েছে।’

‘মাত্র ২০ দিনের মধ্যে অক্লান্ত পরিশ্রমের মাধ্যমে অতি দ্রুততার সাথে এই হাসপাতালটি প্রস্তুত করা হয়েছে। বর্তমানে হাসপাতালটির ২৬০টি বেড সচল হচ্ছে। যেখানে আইসিইউ বেড রয়েছে ৬০টি, ইমার্জেন্সি ৫০ টি, জেনারেল ওয়ার্ড ১৫০টি। আগামী সাত দিনের মধ্যে আরও আড়াইশ বেড সচল হবে এবং এ মাসের ২৯ তারিখের মধ্যে হাসপাতালটি পরিপূর্ণভাবে সচল হবে’, যোগ করেন জাহিদ মালেক।

তিনি আরও বলেন, ‘বর্তমানে দেশে প্রায় ১০০টি হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন ব্যাবস্থা চালু করা হয়েছে। আরও ৩৪ টি হাসপাতালে সেন্ট্রাল অক্সিজেন ব্যাবস্থা চালুর কাজ চলমান রয়েছে। এর ফলে বর্তমানে দেশে প্রায় ১২০০০ বেডে সেন্ট্রাল অক্সিজেন ব্যাবস্থা স্থাপন করা সম্ভব হয়েছে।’

অনুষ্ঠানে অন্যান্যদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন মেয়র আতিকুল ইসলাম, স্বাস্থ্য সচিব লোকমান হোসেন মিয়া, স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক এবিএম খুরশিদ আলম, মেজর জেনারেল শাকিল আহমেদ, মেজর জেনারেল মোহাম্মদ মাহবুবুর রহমান, স্বাস্থ্য অধিদফতরের মহাপরিচালক আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম, ,বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর এডজুটেন্ট জেনারেল মেজর জেনারেল সাকিল আহমেদ, এফসিপিএস ডিরেক্টরেট জেনারেল মেডিকেল সার্ভিসেস মেজর জেনারেল মো. মাহাবুবুর রহমান, ডিএনসিসি ডেডিকেটেড করোনা হাসপাতালে পরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এটিএম নাসির উদ্দিন প্রমুখ। 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি