০৩ অগাস্ট, ২০২০ ০২:১৫ পিএম
করোনা চিকিৎসায় লাগামহীন বিল

ভারতে বেসরকারি হাসপাতালকে ৭ দফা নির্দেশনা

ভারতে বেসরকারি হাসপাতালকে ৭ দফা নির্দেশনা

মেডিভয়েস ডেস্ক: ভারতের কলকাতাসহ পশ্চিমবঙ্গে করোনার চিকিৎসায় সরকারি নির্দেশ উপেক্ষা করে বিভিন্ন বেসরকারি হাসপাতালে লাগামহীন বিল নেওয়া হচ্ছে । সরকারি হাসপাতালে করোনা চিকিৎসার খরচ তেমন না হলেও বেসরকারি হাসপাতালে চিকিৎসার খরচের নামে পকেট কাটা শুরু হয়েছে। এই বিল মেটাতে নিঃস্ব অনেক রোগীর পরিবার।

এ অবস্থায় চিকিৎসা খরচের বিলে লাগাম টানতে সাত দফা নির্দেশ জারি করেছে পশ্চিমবঙ্গ স্বাস্থ্য নিয়ন্ত্রক কমিশন।

গতকাল রোববার কমিশনের চেয়ারম্যান ও কলকাতা হাইকোর্টের অবসরপ্রাপ্ত বিচারপতি অসীম কুমার বন্দ্যোপাধ্যায় এ নির্দেশনা জারি করেন।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, কোভিড সুরক্ষা বাবদ পিপিইসহ যাবতীয় সামগ্রীর খরচ এক হাজার টাকার মধ্যে রাখতে হবে প্রতিদিন। সুরক্ষার নামে হাসপাতালের বহির্বিভাগে ৫০ রুপির বেশি নিতে পারবে না। রোগীর সঙ্গে একজন আত্মীয় থাকলে আরও ৫০ রুপি নেওয়া যেতে পারে। চেষ্টা করতে হবে সস্তার অ্যান্টিবায়োটিক দিতে। চিকিৎসকের পরামর্শ ছাড়া নির্দিষ্ট দামি ব্রান্ডের অ্যান্টিবায়োটিক নয়। বাড়ি থেকে নমুনা সংগ্রহের ক্ষেত্রে কিলোমিটারপ্রতি ১৫ রুপির বেশি যাতায়াত খরচ নেওয়া যাবে না। করোনা নমুনা পরীক্ষার খরচ ২ হাজার ২৫০ রুপির বেশি হতে পারবে না।

এছাড়াও জোর করে রোগীকে ভর্তি করে রেখে দেওয়া যাবে না। ছুটি দেওয়া সত্ত্বেও রোগী যেতে না চাইলে তাঁকে সেফ হোম বা স্যাটেলাইট সেন্টারে স্থানান্তর করতে হবে।

অভিযোগ রয়েছে, করোনা সন্দেহভাজন একজন মানুষের সোয়াব টেস্ট করতে কলকাতার একটি বেসরকারি হাসপাতাল বিল করেছে দেড় লাখ রুপি। ছয় দিন হাসপাতালের বেডে রেখে ওই রোগীর টেস্ট করা হলেও দুবারই আসে নেগেটিভ। তবু একটি মধ্যশ্রেণির বেসরকারি হাসপাতাল বিল করেছে দেড় লাখ রুপির ওপর। আবার বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি একজন করোনা রোগীর কাছ থেকে ১০ লাখ থেকে ২৭ লাখ রুপি পর্যন্ত বিল করেছে। আর এই বিল মেটাতে গিয়ে অনেকেই নিঃস্ব।

কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের সাবেক একজন নারী বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক সীতাংশু শেখর পাঁজা (৬৫) তাঁর নিজ এলাকা দমদমের একটি বেসরকারি হাসপাতালে ভর্তি হন করোনা নিয়ে। তাঁর বিল আসে ২৪ লাখ রুপি। সেখান থেকে কমিয়ে শেষ পর্যন্ত করা হয় ১৬ লাখ রুপি। ওই চিকিৎসকের পরিবার শেষ পর্যন্ত বিল মিটিয়ে তাঁকে নিয়ে আসেন কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। দমদমের এই চিকিৎসক শেষ পর্যন্ত গত শনিবার মারা যান কলকাতা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালেই।

  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষা

অতিরিক্ত বেতন নিচ্ছে একাধিক বেসরকারি মেডিকেল

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
করোনা ছড়ায় উপসর্গহীন ব্যক্তিও
একদিনেই অবস্থান বদল বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার

করোনা ছড়ায় উপসর্গহীন ব্যক্তিও