২৭ জুলাই, ২০২০ ০৮:২৮ পিএম

নতুন বিসিএসেই ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ: পিএসসি

নতুন বিসিএসেই ২ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ: পিএসসি

মেডিভয়েস রিপোর্ট: করোনাভাইরাস মোকাবিলায় সরকার ঘোষিত আরও দুই হাজার চিকিৎসক নিয়োগ নতুন বিসিএসের মাধ্যমে নেওয়া হবে বলে জানিয়েছে সরকারি কর্ম কমিশনে (পিএসসি)। সরকারের এমন চাওয়ার পরিপ্রেক্ষিতে এরই মধ্যে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে পিএসসিতে চাহিদাপত্র এসেছে। এর আলোকে আজ সোমবার (২৭ জুলাই) বিশেষ সভায় নিয়োগবিধি ঠিক করেছে পিএসসি। এই বিধি তারা জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ে পাঠাচ্ছে।

দৈনিক প্রথম আলোর অনলাইন প্রতিবেদনে আজ এমন খবর দেওয়া হয়েছে। 

পিএসসি সূত্রের বরাত দিয়ে এতে আরও বলা হয়েছে, ‘আমরা চেয়েছিলাম ৩৮ ও ৩৯তম বিসিএসের নন-ক্যাডার তালিকা থেকে মেধার ভিত্তিতে দুই হাজার চিকিৎসক নিয়োগ পান। কেননা তাঁরা পরীক্ষিত। সবকিছুতে পাস করেছেন। পদ না থাকায় নিয়োগ দেওয়া যায়নি। কিন্তু মন্ত্রণালয় তাঁদের নিয়োগ দিতে চায় না। নতুন বিসিএসের মাধ্যমে নিয়োগ দেওয়ার চাহিদাপত্র এসেছে আমাদের কাছে। আজ নিয়োগবিধি ঠিক করা হয়েছে। এটি এখন জনপ্রশাসনে পাঠিয়ে দেওয়া হবে।’

২০১৮ সালের এপ্রিলে ৩৯তম বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি দেওয়া হয়। আর ২০১৯ সালের এপ্রিলে তার ফল প্রকাশ করা হয়। ৩৯তম ব্যাচে উত্তীর্ণদের ভেতর থেকে ৪ হাজার ৭৯২ জন চিকিৎসককে নিয়োগের সুপারিশ করে পিএসসি। ওই বছরেরই নভেম্বর মাসে ৪ হাজার ৪৪৩ জনকে স্বাস্থ্য ক্যাডারে নিয়োগ দিয়ে আদেশ জারি করে জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়। একই বিসিএসে উত্তীর্ণ ৮ হাজার ৩৬০ জনকে নন-ক্যাডার পদে নিয়োগের জন্য রাখা হয়। এর মধ্যে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হলে সেই ৮ হাজার ৩৬০ জনের মধ্য থেকেই গত মে মাসে ২ হাজার জনকে নিয়োগ দেওয়া হয়। এই নন-ক্যাডারের তালিকায় আরও ৬ হাজার ৩৬০ জন চিকিৎসক অপেক্ষমান রয়েছেন।

অপেক্ষমাণ প্রার্থীরা বলেন, একটি বিসিএস পরীক্ষার বিজ্ঞপ্তি থেকে শুরু করে যাবতীয় প্রক্রিয়া শেষ করতে বছরের পর বছর লেগে যায়। টেকনিক্যাল ক্যাডারের বিশেষ বিসিএস বিবেচনায় নিয়েও সে সময় খুব একটা কম নয়। ৩৯তম বিশেষ বিসিএস অনুষ্ঠিত হয়েছিল। ওই বিসিএসে উত্তীর্ণদের মধ্য থেকেই মে মাসে দুই হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দেয় সরকার। আরও প্রায় সাড়ে ছয় হাজার চিকিৎসক ওই বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়েও চাকরি পাননি। এই অবস্থায় নতুন বিসিএসে চিকিৎসক নিয়োগ যৌক্তিক নয়।

গত মাসে ৩৮তম বিসিএসের ফল প্রকাশ করা হয়েছে। এই বিসিএসে উত্তীর্ণ হয়ে নন-ক্যাডার হিসেবে নিয়োগের অপেক্ষায় থাকা চিকিৎসকরাও নিয়োগ পাওয়ার দাবি জানিয়েছেন। কয়েকজন প্রার্থী বলেন, ৩৯তম বিসিএসের তুলনায় ৩৮তম বিসিএসের প্রার্থীদের লিখিত পরীক্ষাসহ দীর্ঘ যাচাইয়ের মধ্য দিয়ে উত্তীর্ণ হতে হয়েছে। এখন তাঁরা জ্যেষ্ঠ। তাই নতুন দুই হাজার চিকিৎসক নিয়োগে তাঁদের অগ্রাধিকার পাওয়া উচিত। 


 

মেডিভয়েস এর জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্ট গুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  ঘটনা প্রবাহ : পিএসসি
এ সপ্তাহে ৪২তম বিশেষ বিসিএসের বিজ্ঞপ্তি 

আরও ২০০০ চিকিৎসক নিয়োগের প্রক্রিয়া চূড়ান্ত

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত