১৮ নভেম্বর, ২০২০ ০২:১৬ পিএম

সিরিয়ালে দাঁড়াতে বলায় চিকিৎসককে মারপিট

সিরিয়ালে দাঁড়াতে বলায় চিকিৎসককে মারপিট

মেডিভয়েস রিপোর্ট: গোপালগঞ্জের গোপীনাথপুর ১০ শয্যা বিশিষ্ট সরকারি হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. শেখ সাজ্জাদ হোসেনকে পিটিয়ে আহত করেছে চিকিৎসা নিতে আসা এক রোগী। ২২ বছর বয়সী ওই হামলাকারী রোগীর নাম নাজিম খন্দকার। তিনি গোপালগঞ্জ সদর উপজেলার গোপিনাথপুর বাসাবাড়ি এলাকার ফটিক খন্দকারের ছেলে।

মঙ্গলবার দুপুরে এ ঘটনা ঘটে বলে মেডিভয়েসকে নিশ্চিত করেছেন গোপালগঞ্জের সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ।

তিনি বলেন, ‘মঙ্গলবার দুপুরে গোপীনাথপুর ১০ শয্যা বিশিষ্ট হাসপাতালের মেডিকেল অফিসার ডা. শেখ সাজ্জাদ হোসেন নিয়ম অনুযায়ী আউটডোরে রোগীদের চিকিৎসা দিচ্ছিলেন। এসময় সিরিয়াল ভঙ্গ করে নাজিম খন্দকার নামে এক রোগী চিকিৎসকের সামনে এগিয়ে আসেন। তাকে আগে দেখার জন্য চিকিৎসককে ধমক দেয় সে। কর্তব্যরত ডা. শেখ সাজ্জাদ হোসেন তখন তাকে সিরিয়ালে দাঁড়ানোর জন্য অনুরোধ করেন। পরে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে সে চিকিৎসককে হুমকি দিয়ে চলে যায়।’ 

সিভিল সার্জন ডা. নিয়াজ মোহাম্মদ বলেন, ‘ঘটনার কিছুক্ষণ পর নাজিম খন্দকারের নেতৃত্বে সাত থেকে আটজন মিলে লাঠিসোঠা দিয়ে চিকিৎসকের উপর অতর্কিত হামলা করে। কর্তব্যরত চিকিৎসক ডা. শেখ সাজ্জাদ হোসেনকে এলোপাতাড়ি পিটিয়ে আহত করে পালিয়ে যায় তারা। এতে মাথায় এবং বুকে মারাত্মকভাবে আঘাত পান শেখ সাজ্জাদ হোসেন। এসময় আহত হন চিকিৎসকের সহকারী কাজী ওবায়দুর রহমানও।’

পরে তাদেরকে গুরুতর আহত অবস্থায় গোপালগঞ্জ ২৫০ শয্যা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয় বলে জানান সিভিলি সার্জন। 

এ ঘনায় নাজিম খন্দকারের বিরুদ্ধে গোপালগঞ্জ সদর থানায় মামলা দায়ের করা হয়েছে। 

এবিষয়ে গোপালগঞ্জ সদর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মনিরুল ইসলামের কাছে জানতে চাইলে তিনি মেডিভয়েসকে বলেন, ‘ঘটনার পর থেকে নাজিম খন্দকার পলাতক রয়েছে। তাকে গ্রেফতারের জন্য ইতোমধ্যে কয়েকবার অভিযান চালানো হয়েছে। গ্রেফতারের সর্বোচ্চ তৎপরতা চলছে। আশাকরি খুব দ্রুত তাকে গ্রেফতার করতে সক্ষম হবো।’ 

  ঘটনা প্রবাহ : চিকিৎসকের উপর হামলা
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি