০৪ জুলাই, ২০২০ ১০:০৫ পিএম

নারায়ণগঞ্জে একটুখানি স্বস্তি: কমেছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

নারায়ণগঞ্জে একটুখানি স্বস্তি: কমেছে করোনার সংক্রমণ ও মৃত্যু

মেডিভয়েস রিপোর্ট: সারাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ক্রমাগতভাবে বেড়ে চললেও ‘হটস্পট’ হয়ে উঠা নারায়ণগঞ্জে স্বস্তির খবর মিলেছে। সংক্রমণ ও মৃত্যুর হার দুটোই কমেছে এ শিল্প ও বাণিজ্য নগরীতে। সমন্বিতভাবে পদক্ষেপের ফলে জেলায় সংক্রমণের হার তিন অঙ্ক থেকে দুই অঙ্কের ঘরে নেমে এসেছে। 

জেলা স্বাস্থ্য বিভাগ সূত্রে জানা গেছে, গত ২৪ ঘণ্টায় নারায়ণগঞ্জে কোভিড-১৯–এ আক্রান্ত হয়েছেন ২৬ জন। এ সময়ে কেউ মারা যাননি। গত ২০ জুন থেকে ৩০ জুন পর্যন্ত হিসাবে দেখা যায়, ওই ১০ দিনে আক্রান্ত হয়ে মৃত্যু হয়েছে ১২ জনের এবং সংক্রমিত হয়েছেন ৬৩৯ জন। আর ২০ মে থেকে ৩০ মে পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ১৭ জনের এবং সংক্রমিত হয়েছেন ৯৬৪ জন।

এর আগে ২০ এপ্রিল থেকে ৩০ এপ্রিল পর্যন্ত মৃত্যু হয় ১৬ জনের ও সংক্রমিত হন ৫২৭ জন।

নারায়ণগঞ্জে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কমতে শুরু করেছে জানিয়ে জেলা করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কমিটির সদস্যসচিব ও জেলা সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইমতিয়াজ জানান, আগে যে অল্পসংখ্যক নমুনা পরীক্ষায় সংক্রমণের ঊর্ধ্বমুখী প্রবণতা ছিল, সেটি এখন কমে আসছে। এখন অধিকসংখ্যক নমুনা পরীক্ষা হচ্ছে, অথচ সংক্রমিত রোগী কম পাওয়া যাচ্ছে। আইসোলেশনে রোগীর সুস্থতার হারও বেড়েছে।

আজ শনিবার (৪ জুলাই) জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের তথ্যে জানা গেছে, এ পর্যন্ত কোভিড-১৯–এ আক্রান্ত হয়ে দুই চিকিৎসক, জ্যেষ্ঠ নার্সসহ ১১৫ জনের মৃত্যু হয়েছে। সংক্রমিত হয়েছেন জেলার সিভিল সার্জন, উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলামসহ ২০ চিকিৎসক, চারজন নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেটসহ মোট ৫ হাজার ২৯১ জন। আইসোলেশনে সুস্থ হয়েছেন ৩ হাজার ৭৩৭ জন এবং নমুনা সংগ্রহ করা হয়েছে ২৬ হাজার ২৫২ জনের।

৮ মার্চ দেশে প্রথম কোভিড-১৯–এ আক্রান্ত তিন রোগীর দুজন এই জেলায় শনাক্ত হন। ৩০ মার্চ করোনাভাইরাসে সংক্রমিত হয়ে নারায়ণগঞ্জের বন্দরে এক নারীর মৃত্যু হয়। ওটা ছিল জেলায় প্রথম কোভিড-১৯–এ আক্রান্ত রোগীর মৃত্যু। সাত এপ্রিল করোনার সংক্রমণের জন্য নারায়ণগঞ্জকে অতি ঝুঁকিপূর্ণ জেলা হিসেবে চিহ্নিত করে জাতীয় রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)।

এরই ধারাবাহিকতায় গত ৮ এপ্রিল নারায়ণগঞ্জ জেলাকে অবরুদ্ধ ঘোষণা করে সরকার।

করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম গুলো মেনে চলুন। সর্দি কাশি জ্বর হলে হাসপাতালে না গিয়ে স্বাস্থ্য সেবা দানকারী হটলাইন গুলোতে ফোন করুন। আইইডিসিআর হটলাইন- 10655, email: [email protected]
  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি