ছৈয়দ আহমদ তানশীর উদ্দীন

ছৈয়দ আহমদ তানশীর উদ্দীন

নার্স ও পুষ্টিবিদ,
বিএসসি ইন নার্সিং (চবি), এমপিএইচ ইন নিউট্রিশন (ইবি)।


১৯ নভেম্বর, ২০২১ ০৪:৩৬ পিএম

চতুর্থ শিল্পবিপ্লব ও নার্সিং পেশা

চতুর্থ শিল্পবিপ্লব ও নার্সিং পেশা
শিক্ষার পাশাপাশি নার্সদের প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনে আত্মনিয়োগ করতে হবে। প্রতীকী ছবি

মানব সভ্যতার দীর্ঘ যাত্রায় প্রযুক্তিগত উৎকর্ষের দিকে এগিয়ে এসেছে। এই যাত্রায় মানুষ সবসময়ই কারিগরিভাবে উন্নত উপায়ে শিল্প উৎপাদন ও ব্যবস্থাপনাগত রূপান্তর ঘটিয়ে চলেছে। সাম্প্রতিক বছরগুলোতে এই রূপান্তরের প্রস্তুতিতে ব্যাপকতা এসেছে এবং তা অত্যন্ত দ্রুত গতিতে একটা প্রযুক্তিগত বিপ্লবের দিকে যাচ্ছে।

চতুর্থ শিল্পবিপ্লব কী?

এক-একটি শিল্পবিপ্লব পাল্টে দিয়েছে সারা বিশ্বের শিল্পউৎপাদন, বাজার ও ব্যবসার সমুদয় গতিপথ। পাল্টে দিয়েছে মানবসভ্যতার ইতিহাস ও মানুষের জীবনাচরণ। প্রথম শিল্পবিপ্লবটি হয়েছিল ১৭৮৪ সালে বাষ্পীয় ইঞ্জিন আবিষ্কারের মাধ্যমে। এরপর ১৮৭০ সালে বিদ্যুৎ ও ১৯৬৯ সালে ইন্টারনেটের আবিষ্কার শিল্পবিপ্লবের গতিকে বাড়িয়ে দেয় কয়েক গুণ। বর্তমানে শুরু হওয়া আরেকটি শিল্পবিপ্লব ছাড়িয়ে যেতে পারে আগের তিনটি বিপ্লবকে। মোটাদাগে বলা চলে, এখন পর্যন্ত মানব জাতি চারটি শিল্পবিপ্লবের মধ্য দিয়ে হেঁটেছে।

প্রথম শিল্পবিপ্লব উৎপাদনের যান্ত্রিকীকরণে পানিপ্রবাহ এবং বাষ্পশক্তি ব্যবহার করে। দ্বিতীয় শিল্পবিপ্লবে বৃহত্তর উৎপাদনে বৈদ্যুতিক শক্তি ব্যবহৃত হয়। তৃতীয়টি শিল্পবিপ্লবে উৎপাদানকে স্বয়ংক্রিয় করতে ইলেকট্রনিকস এবং তথ্যপ্রযুক্তি কাজে লাগায়। তৃতীয় শিল্পবিপ্লবের ভিত্তিমূলের সঙ্গে নতুন নতুন প্রযুক্তি যুক্ত হয়ে এখন চতুর্থ শিল্পবিপ্লব ঘটে চলছে। এটা অতিবর্ধিত পরিসরের শিল্পবিপ্লব এবং দ্রুত বিকাশমান ডিজিটাল বিপ্লব, যা গত শতাব্দীর মাঝামাঝি থেকেই ঘটে চলেছে। বহু ধারার প্রযুক্তিগত উৎকর্ষের এই মিশ্রণ বা যোগফল (Fusion Technology) বৈশিষ্ট্যগতভাবে শারীরিক, ডিজিটাল ও জৈবিক ক্ষেত্রগুলোর মধ্যে সমন্বয় করবে, এদের মধ্যকার দূরত্ব কমিয়ে আনবে কিংবা কিছু ক্ষেত্রে বিদ্যমান সম্পর্ক আরও জটিল ও অনিয়ন্ত্রিত করে তুলবে।

আমরা একটি প্রযুক্তিগত বিপ্লবের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে আছি। এর মাধ্যমে আমাদের জীবনযাত্রা, কাজ করার এবং একে অপরের সঙ্গে যোগাযোগের ক্ষেত্রে সম্পর্কিত হওয়ার পথ ও পদ্ধতিগুলো মৌলিকভাবে বদলে যাবে। বহু উদীয়মান প্রযুক্তির সঙ্গে পঞ্চম প্রজন্মের টেলিকম প্রযুক্তি যুক্ত হয়ে চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের ফিউশন প্রযুক্তির দুয়ার খুলে যাচ্ছে। এ রকম কিছু প্রযুক্তির কথা বলতে গেলে চলে আসবে বহু নাম। যেমন: এজাইল বিজনেস প্রসেস, রোবটিকস ইন্ডাস্ট্রিয়াল অটোমেশন, ত্রি-ডি প্রোডাকশন, পঞ্চম প্রজন্মের টেলিকম, স্মার্টফোনের রিয়েল অ্যাপ্লিকেশন, ইন্টারনেট অব থিংস (IoT), ম্যাসিভ কানেকটিভিটি, ম্যাসিভ ট্র্যাকিং, দূর নিয়ন্ত্রণ, স্যাটেলাইট ইন্টারনেট, ফাইভ-জি ড্রোন, ভার্চ্যুয়াল রিয়েলিটি, অগমেন্টেড রিয়েলিটি, বিগ ডেটা ও মেশিন লার্নিং, ক্লাউড ও কোয়ান্টাম কম্পিউটিং, যন্ত্রপাতি পরিচালনায় কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা প্রয়োগের ব্যাপকতা, চালকবিহীন গাড়ি, ফিনটেক ফাইন্যান্স, ব্লকচেইন ও ভার্চ্যুয়াল কারেন্সি, পেমেন্ট সিস্টেম থেকে জৈবপ্রযুক্তি, রিমোট সার্জারি ইত্যাদি ইত্যাদি।

এসব কিছু মিলে নতুন এক শিল্পবিপ্লবের জয়যাত্রা শুরু হয়েছে সারা বিশ্বে। একেই বলা হচ্ছে চতুর্থ শিল্পবিপ্লব বা industry4.0। 

দেহে স্থাপিত প্রযুক্তি

আজকাল শরীরে পরিধেয় বিভিন্ন ধরনের যন্ত্রপাতি আবিষ্কৃত হয়েছে, যা শরীরের স্বাস্থ্যসংক্রান্ত উপাত্ত সংগ্রহ করে; যেমন তাপমাত্রা, রক্তচাপ, পালস ও রক্তে শর্করা ইত্যাদি। এ উপাত্তগুলো কম্পিউটার ডাটাবেজে সংরক্ষণ করা হয়, যাতে ভবিষ্যতে ওই ব্যক্তির চিকিৎসায় ব্যবহার করা যায়। যন্ত্র পরিধান করাটা ঝামেলাপূর্ণ। একই কাজে তাই শরীরে চিপস অনুপ্রবেশ করিয়ে রেখে দেয়ার প্রযুক্তি বেরিয়েছে। মানুষের শরীরে পেসমেকারসহ বিভিন্ন যন্ত্রপাতি স্থাপন করা হয়। ভবিষ্যতে শরীরে স্থাপিত চিপস স্বাস্থ্যবিষয়ক বিভিন্ন তথ্য-উপাত্ত সরবরাহ করতে পারবে। শুধু তাই নয়, চিপসের মাধ্যমে কোনো শিশু হারিয়ে গেলে তাকে খুঁজে পাওয়া সহজ হবে। অবশ্য চিপসের কারণে মানুষের ব্যক্তিজীবন বা গোপনীয়তা ক্ষুণ্ণ বা নস্যাৎ হবে।

তাছাড়া সাইবার-ফিজিক্যাল সিস্টেম, ক্লাউড টেকনোলজি, কগনিটিভ কম্পিউটিং, রোবোটিক প্রক্রিয়া, কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা এবং ইন্টারনেট অব থিংসের মতো বিঘ্নিত প্রযুক্তির সংমিশ্রণ দ্বারা চিহ্নিত চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের যুগ আমরা এখন অনুভব করছি, যা উভয় ক্ষেত্রেই প্রতিটি স্বাস্থ্যসেবা শিল্পকে প্রভাবিত করে। উন্নয়নশীল এবং উন্নত দেশগুলো, জনশক্তি-নিবিড় হওয়া থেকে প্রযুক্তিকেন্দ্রিক হওয়া পর্যন্ত। আজ প্রযুক্তির পরিবর্তনের দ্বারা চালিত স্বাস্থ্যসেবা বিতরণ মডেলের উদাহরণটি আমাদের গ্রাহকদের কাছ থেকে দেখা যায় যারা প্রায়শই চিকিত্সার জন্য স্বাস্থ্যসেবা পেশাদারদের অনলাইন পরামর্শ ব্যবহার করে (মিল্টন, ২০১৮)।

কিছু দেশে, উদাহরণস্বরূপ, জাপান নার্সিং কেয়ার প্রদানের জন্য বিভিন্ন ধরনের হিউম্যানয়েড নার্সিং রোবট তৈরি করছে (Tanioka et al, 2017), যা সারা বিশ্বের নার্সদের জন্য একটি চ্যালেঞ্জ তৈরি করে এবং আমরা কীভাবে কাজ করি, জীবনযাপন করি এবং খেলাধুলা করি তা পরিবর্তন করে। এছাড়াও এই যুগটিকে অদক্ষ শ্রমিক বা নতুন স্নাতকদের জন্য হুমকি হিসাবে বিবেচনা করা হয়, যারা বেকার হয়ে যাওয়ার উচ্চ ঝুঁকিতে রয়েছে। 

অতএব, নার্সিং অনুশীলন এবং রোগীর ফলাফলের উপর প্রভাব স্থাপন করার জন্য আমাদের নিজেদের প্রস্তুত করতে সক্ষম হতে হবে। চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে নার্সদের প্রস্তুতির জন্য কিছু বিষয় তুলে ধরার জন্য এই লেখা। চতুর্থ শিল্প বিপ্লবের জন্য নার্সের প্রস্তুতি বিঘ্নিত উদ্ভাবন ব্যাঘাত একটি নতুন ধারণা নয়, যা প্রযুক্তির অগ্রগতি এবং বিবর্তনের সাথে পুঁজিবাদের প্রকৃতি হিসেবেও বিবেচিত হয়। বিঘ্নিত উদ্ভাবন মানে একটি ধারণা বা উদ্ভাবন অনুবাদ করার একটি প্রক্রিয়া, যা একটি ভিন্ন মূল্যের সেট প্রয়োগ করে একটি নতুন বাজার তৈরি করে, যা শেষ পর্যন্ত এবং অপ্রত্যাশিতভাবে একটি বিদ্যমান বাজারকে ছাড়িয়ে যায় (Pitts, 2012)।

এটি প্রতিফলিত করে যে আমরা প্রযুক্তিগত সম্প্রসারণ অনুসরণ না করে বাস্তবতাকে প্রত্যাখ্যান করতে সক্ষম হবো না, কারণ গতকালের সমাধান আজকের স্বাস্থ্য চ্যালেঞ্জের জন্য প্রযোজ্য নাও হতে পারে। তাই নার্সদের আরও সচেতন হতে হবে যে, নার্সিং শিক্ষা এবং অনুশীলনে বিঘ্নিত উদ্ভাবনের জন্য প্রযুক্তি হলো একটি প্রধান চালক, তাই তাদের প্রথমে বুঝতে হবে ডিজিটাল জীবন আগে দেখতে কেমন ছিল। নার্সিং শিক্ষায়, কাগজভিত্তিক থেকে অনলাইনভিত্তিক শিক্ষায় পরিবর্তন দেখা যায়, যার মধ্যে রয়েছে ই-লার্নিং, লং ডিস্টেন্স লার্নিং, মোবাইল প্ল্যাটফর্ম, ভার্চুয়াল লার্নিং, সোশ্যাল মিডিয়া, ভিডিও কনফারেন্সিং এবং অন্যান্য পদ্ধতির উদ্ভাবন। নার্সিং অনুশীলনে, প্রযুক্তির উন্নয়নে টেলিনার্সিং, ক্যামেরা, ডিজিটাল এবং ব্লুটুথ স্টেথোস্কোপ, চিপ মনিটর এবং অন্যান্য পদ্ধতির মাধ্যমে গ্রাহকদের সাথে দূরবর্তীভাবে সংযোগ স্থাপনের মাধ্যমে ট্রিপল কেয়ার অন্তর্ভুক্ত থাকতে পারে।

যাই হোক, বিঘ্নিত উদ্ভাবনের ভিত্তি প্রযুক্তি নিজেই নয়, তবে এটি একটি সহজ এবং সুবিধাজনক উপায়ে প্রযুক্তির প্রয়োগ (একটি নতুন পণ্য) বা এমন পণ্য ব্যবহার করার জন্য একটি নতুন পরিবেশ তৈরি করা যা কখনও বিদ্যমান নেই। বিঘ্নিত উদ্ভাবনের ধারণাটি আশাব্যঞ্জক যদিও ফলাফলগুলো ইতিবাচক হবে না, তবে এটি সহযোগিতার উন্নতি করতে পারে এবং নার্সের পেশাদার প্রভাব স্থাপন করতে পারে। সামগ্রিক বিবেচনায় নার্সদের শিক্ষার পাশাপাশি প্রযুক্তির উৎকর্ষ সাধনে আত্মনিয়োগ করতে হবে। 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত