১৬ এপ্রিল, ২০২১ ০৬:১২ পিএম

ফাইনাল প্রফের সঙ্গে পরীক্ষায় বসতে পারবেন না ২০১৫-১৬ সেশনের শিক্ষার্থীরা

ফাইনাল প্রফের সঙ্গে পরীক্ষায় বসতে পারবেন না ২০১৫-১৬ সেশনের শিক্ষার্থীরা
ছবি: সংগৃহীত

মো. মনির উদ্দিন: ঈদের পরে অনুষ্ঠেয় ফাইনাল প্রফেশনাল পরীক্ষাদের সঙ্গে বসার সুযোগ দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন ২০১৫-১৬ সেশনের শিক্ষার্থীরা। আগামী ঈদের পরে দেড় বছর কারিকুলাম শেষ হবে জানিয়ে তারা বলেন, ফাইনাল প্রফেশনাল পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে অনলাইন ক্লাস করার পাশাপাশি ক্লিনিক্যাল ক্লাসে সবগুলো ডিপার্টমেন্টের ওয়ার্ড করেছেন তারা।

তবে ক্লাসে উপস্থিতিসহ সামগ্রিক পাঠ্যসূচিতে ব্যাপক শূন্যতা থাকায় ঈদের পরে তাদেরকে পরীক্ষায় অংশগ্রহণের সুযোগ দেওয়া সম্ভব নয় বলে জানিয়েছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় (ঢাবি) কর্তৃপক্ষ। তাঁরা বলেন, এমনটি হলে এসব পরীক্ষার্থীদের লাভের চেয়ে ক্ষতির পাল্লাই ভারি হবে, যার জের তাদের সারাজনম টানতে হবে।

ঢাবি মেডিসিন অনুষদের ডিন ডা. শাহরিয়ার নবীর দৃষ্টি আকর্ষণ করে ইন্টারন্যাশনাল মেডিকেল কলেজের চূড়ান্ত বর্ষের এক শিক্ষার্থী মেডিভয়েসকে বলেন, ‘গত নভেম্বর ২০১৯ ফাইনাল ইয়ারের ক্লাস শুরু করি। করোনার কারণে আমাদের ক্লাস বন্ধ হয়ে যায়। করোনায় ফাইনাল প্রফের পরীক্ষার্থীদের সাথে আমাদেরও অনলাইন ক্লাস হচ্ছিল। করোনা কিছুটা স্বাভাবিক হলে নভেম্বর ২০২০ সাল থেকে পুনরায় আমরা ক্লিনিক্যাল ক্লাসের জন্য হোস্টেলে আসি। ফাইনাল প্রফের পরীক্ষার্থীদের সাথেই সবগুলো ডিপার্টমেন্টের ওয়ার্ড করি। কোনো কোনো ওয়ার্ড দুইবার করে করানো হয়। কিন্তু ঈদের পর আমাদের দেড় বছর কারিকুলাম শেষ হয়। কারিকুলাম অনুযায়ী, যেখানে এক বছর পূর্ণ হলে পরীক্ষা দিতে পারে, সেখানে আমরা তৃতীয় প্রফেশনাল পরীক্ষা পাস করেছি এবং আমাদের ক্লাস ওয়ার্ড শেষ হয়েছে। এ অবস্থায় কেন আমাদের ঝুলিয়ে রাখা হবে!’

‘ঈদের পর নোটিস হলে মে-২১ পরীক্ষার্থীদের সঙ্গে যেন যেন আমাদের পরীক্ষা হয় সেই ব্যাপারে মাননীয় ডিন স্যারের দৃষ্টি আকর্ষণ করছি’,— যোগ করেন শামীম।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক তায়রুন্নেছা মোমোরিয়াল মেডিকেল কলেজের এক শিক্ষার্থী মেডিভয়েসকে বলেন, ‘আগামী মে মাসে আমাদের দেড় বছর কারিকুলাম শেষ হবে। এরই মধ্যে ঢাবি মেডিসিন অনুষদ ঘোষণা দিয়েছে যে, ঈদের পরে ফাইনাল প্রফ পরীক্ষার রুটিন দেওয়া হবে। ফার্স্ট, সেকেন্ড এবং থার্ড প্রফের সাপ্লিমেন্টারি এবং রেগুলার ব্যাচের পরীক্ষা এক সঙ্গে হয়েছে। একইভাবে আমাদের পরীক্ষা ফাইনাল প্রফের সঙ্গে নেওয়া যায় কিনা! এমনটি হলে আমাদের ব্যাচের ব্যাপক সংখ্যক শিক্ষার্থী খুবই উপকৃত হবে। অন্যথায় কবে পরীক্ষা হবে তার কোনো ঠিক-ঠিকানা নাই। এক সঙ্গে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে কলেজের সম্মতি আছে। তবে কর্তৃপক্ষ চান, এ বিষয়ে ডিন অফিসের কোনো নোটিস আসুক। তা না হলে পরীক্ষা নেওয়ার বিষয়ে অপারগতা প্রকাশ করেছেন তারা।’

জানতে চাইলে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের (ঢাবি) মেডিসিন অনুষদের ডিন ডা. শাহরিয়ার নবী আজ শুক্রবার (১৬ এপ্রিল) মেডিভয়েসকে বলেন, ক্লিয়ারেন্স তো কোনো ইস্যু না। দেড় বছর, দুই বছরও কিছু না। হয় তো কারিকুলামের হিসাবে দুই বছর হলো। কিন্তু ক্লাস পার্সেন্টেজ তো নাই। এসব চাহিদা পূরণ না করে বললে হবে না যে—আমার দুই বছর হয়ে গেছে, আমার এক বছর পর পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। যারা প্রথম বর্ষে আছে, তাদের মে মাসে পরীক্ষা দেওয়ার কথা ছিল। অথচ তারা মাত্র এক মাস ক্লাস করার সুযোগ পেয়েছে। সুতরাং এ কথাগুলো ভাবতে হবে।’ 

তবে সাপ্লিমেন্টারি শিক্ষার্থীদের শূন্যতা কম হওয়ায় তাদেরকে সুযোগ দেওয়ার বিষয়টি বিবেচনা করা হবে জানিয়ে ঢাবি ডিন বলেন, তারা সবই করেছে শুধু পরীক্ষায় ১/২ বিষয়ে পাস করেনি।

করোনা পরিস্থিতিতে দ্বিতীয় দফা স্থগিত হয়ে যাওয়া নভেম্বর ২০২০ এর নতুন সিলেবাস ও জানুয়ারি ২০২১ পুরাতন সিলেবাসের এমবিবিএস ফাইনাল প্রফেশনাল পরীক্ষা ঈদ-উল-ফিতরের পর নেওয়ার সিদ্ধান্ত হয়। 

গত ১১ এপ্রিল স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেন ও ঢাবি মেডিসিন অনুষদের ডিন ডা. শাহরিয়ার নবীর সঙ্গে অনলাইন মিটিংয়ে এমন সিদ্ধান্ত হয়। 

ঢাবি অধিভুক্ত প্রায় অর্ধশত মেডিকেল কলেজ অধ্যক্ষের উপস্থিতিতে ওই মিটিং শেষে  ডা. শাহরিয়ার নবী একই দিন দুপুর দুইটার দিকে মেডিভয়েসকে জানান, ঈদের পর ১০ দিনের মধ্যে একটি শিডিউল দেওয়া হতে পারে।

এদিকে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নির্ভরযোগ্য একটি সূত্রে জানা যায়, আগামী ২০ কিংবা ২৫ মে হতে পারে এমবিবিএস ফাইনাল প্রফ পরীক্ষা।

করোনার সংক্রমণ বেড়ে যাওয়ায় গত তিন মার্চ এমবিবিএস ফাইনাল প্রফেশনাল পরীক্ষা ফের স্থগিত করে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়।

ঢাবির চিকিৎসা অনুষদের ডিন ডা. শাহরিয়ার নবী স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত এক বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, ‘ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সকল মেডিকেল কলেজের ৪ এপ্রিল-২০২১ থেকে অনুষ্ঠিতব্য ফাইনাল পেশাগত এমবিবিএস নভেম্বর-২০২০ এবং জানুয়ারি ২০২১ পরীক্ষা কোভিড-১৯ সংক্রমণ বৃদ্ধি পাওয়ার কারণে পরীক্ষা স্থগিত করা হলো। পরবর্তীতে পরীক্ষার সময়সূচি জানানো হবে।’

তবে প্রথম ও দ্বিতীয় পেশাগত এমবিবিএস মে ও নভেম্বর-২০২০ অনুষ্ঠিত মৌখিক ও ব্যবহারিক পরীক্ষা স্বাস্থ্যবিবধি মেনে যথারীতি চলবে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়েছে।

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি