ড. খোন্দকার মেহেদী আকরাম

ড. খোন্দকার মেহেদী আকরাম

এমবিবিএস, এমএসসি, পিএইচডি,

সিনিয়র রিসার্চ অ্যাসোসিয়েট, শেফিল্ড ইউনিভার্সিটি, যুক্তরাজ্য।


৩০ জুলাই, ২০২০ ১০:০০ এএম

দক্ষিণ এশিয়ায় ধেয়ে আসছে করোনাভাইরাস

দক্ষিণ এশিয়ায় ধেয়ে আসছে করোনাভাইরাস

সেই ২০২০ এর জানুয়ারি থেকে শুরু করোনাভাইরাসের তাণ্ডব কমার কোনো লক্ষণ নেই! চীন থেকে শুরু করে ইউরোপ আমেরিকা হয়ে এখন সে শক্ত অবস্থান নিয়েছে দক্ষিণ এশিয়াতে। ভারতে বসিয়েছে ভয়ঙ্কর থাবা। আমরা বাংলাদেশিরা এখনও করোনার ভয়ঙ্কর রূপ দেখিনি! যেভাবে দেখেছে ইউরোপ ও যুক্তরাষ্ট্র। বিশ্বে স্বাস্থ্য ব্যবস্থায় সবচেয়ে বেশি উন্নত দেশগুলো কিভাবেই না ধরাশায়ী হয়েছে ন্যানোমিটার সাইজের অতি ক্ষুদ্র এই ভাইরাসটির কাছে!

গতকালও যুক্তরাষ্ট্রে করোনায় মারা গেছে এক হাজার দুইশ’ মানুষ। ৩৩ কোটি লোকের এই দেশটিতে গত পাঁচ মাসে এ পর্যন্ত প্রাণ গেছে ১ লক্ষ ৫০ হাজার মানুষের। পৃথিবীর আর কোনো দেশে এখন পর্যন্ত এত লোক এই মহামারীতে মারা যায়নি।

ফেব্রুয়ারি থেকে এ পর্যন্ত যুক্তরাজ্যে করোনায় আক্রান্ত হয় ৩ লক্ষ মানুষ, যার মধ্যে মারা যায় প্রায় ৪৬ হাজার। বিশ্বে যেখানে করোনায় গড় মৃত্যুহার শতকরা ৪ ভাগ, সেখানে যুক্তরাজ্যে মৃত্যুহার শতকরা ১৫ ভাগ! যে দেশে রয়েছে বিশ্বখ্যাত সব গবেষণাকেন্দ্র, এনএইচএস’র মত নামকরা স্বাস্থ্য ব্যবস্থা, সে দেশের কী হাল এই মহামারীতে। গত এক মাস হলো এখানে করোনার প্রকোপ কিছুটা কম।

কিন্ত গত এক সপ্তাহে করোনা রোগীর সংখ্যা আবার বৃদ্ধি পাচ্ছে। দেশটির প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসন সবাইকে সতর্ক করে বলেছেন, আগামী দুই সপ্তাহের ভেতরে করোনা মহামারীর সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হতে পারে। এটা আসলেই আশঙ্কাজনক। জুলাইয়ের ৪ তারিখ থেকে যুক্তরাজ্যে লক-ডাউন শিথিল করা হয়েছে, খুলে দেওয়া হয়েছে সবকিছু। ব্রিটিশরা মুক্তভাবে চলাফেরা শুরু করেছে। ইউরোপের বিভিন্ন দেশে গেছে হলিডে করতে। আর সেখান থেকেই ফেরার পথে সাথে করে নিয়ে আসছে করোনা ভাইরাস! 

স্পেনেও সম্ভবত মহামারীর সেকেন্ড ওয়েভ শুরু হয়ে গেছে। গত দুই সপ্তাহে সেখানে করোনা রোগী বেড়েছে সমানুপাতিক হারে। ধারণা করা হচ্ছে, ব্রিটিশরা স্পেন থেকেই নতুন করে সংক্রমিত হয়েছে।

বাংলাদেশে মার্চ থেকে আজ পর্যন্ত করোনায় সংক্রমিত হয়েছে ২ লক্ষ ২৯ হাজার মানুষ, যার ভেতরে মারা গেছে মোট ৩ হাজার ৩৫ জন। মৃত্যুহার মাত্র শতকরা ১.৩ ভাগ, যা ইউরোপ বা আমেরিকার তুলনায় অনেক কম। এই কম মৃত্যুহারের কারণেই হয়তো ইদানীং আমাদের ভেতরে একটা চরম উদাসীনতা দেখা যাচ্ছে। আমরা মাস্ক ছাড়া মুক্তভাবে চলাফেরা শুরু করেছি। সামাজিক দূরত্বের থোরাই কেয়ার করছি! করোনা ভীতি আমাদের মাঝ থেকে উবে গেছে হঠাৎ করেই!

বাংলাদেশে করোনা টেস্টের নামে চলছে সীমাহীন দুর্নীতি এবং বিশৃঙ্খলা। সাম্প্রতিক জিকেজি, রিজেন্ট হাসপাতাল, শাহেদ করিম বা ডা. সাবরিনা কাহিনীগুলো সম্ভবত করোনা টেস্টের দুর্নীতির ‘টিপ অব দ্য আইসবার্গ’ মাত্র! মহামারীর ভেতরও এই রকম দুর্নীতি নজিরবিহীন! এছাড়াও বাংলাদেশে করোনা পরীক্ষা করা হচ্ছে নামে মাত্র। ১৬ কোটি মানুষের দেশে দৈনিক টেস্ট করা হচ্ছে ১০-১২ হাজার। যেখানে যুক্তরাজ্য বা যুক্তরাষ্ট্র করোনা টেস্ট করছে প্রতি ১০ লক্ষ মানুষে যথাক্রমে ২ লক্ষ ২৩ হাজার ও ১ লক্ষ ৭০ হাজার, সেখানে বাংলাদেশে টেস্ট করা হচ্ছে প্রতি ১০ লক্ষে মাত্র ৭ হাজার! ৭ কোটি লোকের দেশ যুক্তরাজ্যে যেখানে মোট টেস্ট করা হয়েছে ১ কোটি ৫০ লক্ষ, সেখানে ১৬ কোটির দেশ বাংলাদেশে মোট চেস্ট করা হয়েছে  ১১ লক্ষ ৩০ হাজার! মহামারীর প্রকোপ বোঝার জন্য এই টেস্ট খুবই অপ্রতুল।

ধরে নিলাম, যুক্তরাষ্ট্র বা যুক্তরাজ্যের মতো এত টেস্ট করার ক্ষমতা বাংলাদেশের নেই, যা খুবই স্বাভাবিক। তাহলে আমাদের উচিত আমাদের পার্শ্ববর্তী দেশ ভারতের সাথে তুলনা করা। অর্থনৈতিক এবং ভৌগলিক দিক দিয়ে ভারতের সাথেই বাংলাদেশের তুলনা করাটা যথার্থ এবং সমীচীন। 

১৩৮ কোটি লোকের দেশ ভারতে এ পর্যন্ত করোনায় আক্রান্ত হয়েছে ১৫ লক্ষ মানুষ, আর মারা গেছে ৩৪ হাজারের উপরে। সেই হিসাবে মৃত্যুহার শতকরা ২.২ ভাগ। অনেকটা বাংলাদেশর কাছাকাছি। ভারত প্রতি ১০ লক্ষে টেস্ট করছে ১২ হাজার ৫০০। আর আমরা টেস্ট করছি প্রায় এর অর্ধেক! কেন? জনসংখ্যার দিক দিয়ে আমাদের চেয়ে প্রায় ৯ গুণ বড় ভারত যদি ১২ হাজার টেস্ট করতে পারে ১০ লক্ষে, তাহলে আমরা কেন পারবো না, অন্তত তাদের সমান সংখ্যক টেস্ট করতে? মোট টেস্টের বিচারে ভারত আমাদের চেয়ে ১৫ গুণ বেশি টেস্ট করেছে। আমাদেরকে অবশ্যই টেস্ট সংখ্যা বাড়াতে হবে কয়েক গুণ এবং সেটা করতে হবে অতি দ্রুত। 

এটা এখন মোটামুটি নিশ্চিত যে, করোনা মহামারীর নতুন এপিসেন্টার হতে যাচ্ছে আমাদের দক্ষিণ এশিয়া। আর এ অঞ্চলে ভারত সবচেয়ে বেশি আক্রান্ত দেশ। আর আমরা রয়েছি ভারতের একদম পেট ঘেঁষে। এ কারণেই করোনা পরিস্থিতি নিয়ে আমাদের সতর্ক হতে হবে অনেক বেশি। 

মহামারীর শুরুতে যখন যুক্তরাষ্ট্রের অবস্থা খুব শোচনীয়, তখন তার বর্ডার ঘেঁষে থাকা মেক্সিকোর অবস্থা ছিল খুবই ভালো। আর এখন মেক্সিকোর কি অবস্থা! ৪ লক্ষ মানুষ করোনায় আক্রান্ত এবং মারা গেছে ৪৪ হাজার। মেক্সিকোর অবস্থা ভাল থেকে খারাপ হতে সময় লেগেছে মাত্র ২ মাস!

আমরা যদি এখনই সতর্ক না হই, তাহলে আমাদের আবস্থা যে ভারতের মত হবে না, তা কিন্তু হলফ করে বলা যায় না। করোনাভাইরাস একটি বিশ্বাসঘাতক জীবানু। একে না বিশ্বাস করাই হবে বুদ্ধিমানের কাজ। সরকার কি করলো বা না করলো সেদিকে না তাকিয়ে নিজে সতর্ক হউন। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলুন। অবশ্যই মাস্ক পরে বাইরে বের হউন। বাইরে থেকে এসে পরিধেয় বস্ত্র এবং জুতা আলাদা রাখুন এবং নিয়মিত সাবান দিয়ে হাত ধুয়ে ফেলুন। 

[তথ্য: ওয়ার্ল্ডোমিটার। ২৮ জুলাই ২০২০]

করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম গুলো মেনে চলুন। সর্দি কাশি জ্বর হলে হাসপাতালে না গিয়ে স্বাস্থ্য সেবা দানকারী হটলাইন গুলোতে ফোন করুন। আইইডিসিআর হটলাইন- 10655, email: [email protected]
  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত