১২ মে, ২০২০ ০১:০৫ পিএম
মেডিভয়েসকে বিশেষ সাক্ষাৎকার

চিকিৎসকদের শ্রম ও ত্যাগ জাতি কখনও অস্বীকার করবে না: রুবেল

চিকিৎসকদের শ্রম ও ত্যাগ জাতি কখনও অস্বীকার করবে না: রুবেল
বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের সঙ্গে আনন্দঘন মুহূর্তে দেশের তারকা পেসার রুবেল হোসেন। ফাইল ছবি

চীনের উহান প্রদেশ থেকে সম্প্রতি ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস বিশ্বে মহামারী আকার ধারণ করেছে। করোনায় স্থবির হয়ে পড়েছে পুরো বিশ্ব। প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষের মৃত্যু খবর আসছে। বিশ্বজুড়ে এ নিয়ে আতঙ্ক বিরাজ করছে। ছোঁয়াছে এই ভাইরাসের এখনও কোনো প্রতিষেধক বের হয়নি। আক্রান্ত রোগীদের সেবা দিতে গিয়েই মৃত্যুকোলে ঢলে পড়ছেন অনেক চিকিৎসক ও স্বাস্থ্যকর্মী। করোনার এই সংকট নিয়ে নিজের ভাবনার কথা মেডিভয়েসকে জানিয়েছেন জাতীয় দলের তারকা ক্রিকেটার রুবেল হোসেন। সাক্ষাৎকার নিয়েছেন আব্দুল্লাহ আল-মামুন

মেডিভয়েস: কেমন আছেন?

রুবেল হোসেন: আলহামদুলিল্লাহ ভালো আছি, আমার পরিবারের সবাই আল্লাহর রহমতে ভালো আছে।

মেডিভয়েস: করোনার সংক্রমণ এড়াতে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ঘরে থাকার পাশাপাশি সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখার পরামর্শ দিয়েছে, এ ব্যাপারে আপনি কিছু বলুন।

রুবেল হোসেন: আসলে এখনও যেহেতু করোনার ভ্যাকসিন বের হয়নি, কাজেই বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বা আমাদের স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে যেসব পরামর্শ দেয়া হয়েছে সেগুলো  ফলো করা উচিত। প্রয়োজন ছাড়া ঘর থেকে বের হওয়া ঠিক নয়। তবে আমাদের দেশে যেসব গরিব অসহায় মানুষ রয়েছেন যারা দিন আনে দিন খান, তাদের পক্ষে চাইলেও ঘরে থাকা সম্ভব নয়। কিন্তু পরিস্থিতি যা তাতে সবাইকে ঘরে থাকা উচিত।

আমরা যারা সচেতন নাগরিক আছি আমাদের নির্দেশনাগুলো ফলো করার পাশাপাশি আশপাশের লোকদের উৎসাহিত করা উচিত।  যারা অসহায় আছে তাদের খাদ্য দিয়ে হেল্প করতে পারলেও তারাও ঘরে থাকবে। করোনার সংক্রমণ থেকে মুক্তি পাবে। প্রতিবেশী করোনামুক্ত মানে আমিও মুক্ত। কারণ তার মাধ্যমে আমি আপনি অথবা আমার আপনার মাধ্যমে তারাও আক্রান্ত হতে পারে।

মেডিভয়েস: করোনার এখনও প্রতিষেধক বের হয়নি, চিকিৎসক, নার্স ও স্বাস্থ্যকর্মীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রোগীদের সেবা দিয়ে যাচ্ছেন, তাদের নিয়ে কিছু বলুন?

রুবেল হোসেন: আসলে করোনা এখন পুরো বিশ্বেই ভয়াবহ মহামারী আকার ধারণ করেছে। এই সংকট মুহূর্তে ডাক্তার-নার্সরা যেভাবে জীবনকে ঝুঁকির মধ্যে ফেলে দিয়ে রোগীর সেবা দিয়ে যাচ্ছেন তা অবিশ্বাস্য। তাদের এই কঠোর পরিশ্রম এবং ত্যাগ বাঙালি জাতি কখনও অস্বীকার করবে না। তারাই এখন ফ্রন্টলাইনের যোদ্ধা। তাদের জন্য দোয়া ও ভালোবাসা থাকবে, আল্লাহ যেন তাদের সুস্থ্য রাখেন।

মেডিভয়েস: অনেকেই তারকাদের ফলো করে থাকেন, এই মুহূর্তে আপনি কি করছেন  আর ভক্ত সমর্থক  উদ্দেশে কি পরামর্শ দেবেন?

রুবেল হোসেন: আসলে আমরা যারা খেলোয়াড়, খেলাধুলায় ব্যস্ত থাকলে পরিবারকে সেভাবে সময় দেয়ার সুযোগ হয়ে ওঠে না। এখন হিউস সময় পাচ্ছি, পরিবারকে সময় দিচ্ছি। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয় থেকে যেসব নির্দেশনা দেয়া হয়েছে সেগুলো ফলো করছি। প্রয়োজন ছাড়া কোথায় বের হই না। সারাক্ষণ ঘরেই থাকছি। বারবার হাত ধুচ্ছি, নিজে সেভ থাকছি পরিবারকে সেভ রাখার চেষ্টা করছি।

মেডিভয়েস: এই সংকটে অসহায়দের প্রতি সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দেয়ার জন্য কী পরামর্শ দেবেন?

রুবেল হোসেন: আপনারা হয়তো শুনেছেন, খুলনায় আমার বাড়ির যেসব ভাড়াটিয়া রয়েছে তাদের বলে দিয়েছি, করোনার এ সমস্যা শেষ না হওয়া পর্যন্ত তাদের ভাড়া দেয়া লাগবে না। তাদের মধ্যে যারা অসহায় হয়ে পড়েছে তাদের খাদ্য সহায়তা দিয়েছি। এটা আসলে আমি মানবিক দিক বিবেচনা করেই করেছি। অন্য কোনো উদ্দেশ্য এখানে নেই।  আমার মনে হয় সুযোগ থাকলে প্রত্যেক বাড়িওয়ালা তাদের ভাড়াটিয়াদের ভাড়া মওকুফ করে দিতে পারে।

করোনা সংকটের শুরুর দিকে অনেকেই স্বেচ্ছায় ব্যাপকভাবে ত্রাণ সহযোগিতা দিয়েছেন। এখন হয়তো সেভাবে দিচ্ছেন না। আমি সামর্থবানদের উদ্দেশ্যে বলব তারা যেন অসহায় মানুষের পাশে দাঁড়ান। আমি নিজেও ব্যক্তিগতভাবেও চেষ্টা করছি। আশা করছি আরো সহযোগিতা করতে পারব।

মেডিভয়েস: সময় দেয়ার জন্য ধন্যবাদ

রুবেল হোসেন: আপনাকেও ধান্যবাদ, ভালো থাকবেন।

[আগামীকাল পড়ুন: জাতীয় দলের তারকা ব্যাটসম্যান সৌম্য সরকারের সাক্ষাৎকার]

 

  ঘটনা প্রবাহ : করোনাভাইরাস
দাফন করা যাবে পারিবারিক কবরস্থানে

মৃত দেহে তিন ঘণ্টা সক্রিয় থাকে করোনাভাইরাস

দাফন করা যাবে পারিবারিক কবরস্থানে

মৃত দেহে তিন ঘণ্টা সক্রিয় থাকে করোনাভাইরাস

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
আন্তর্জাতিক এওয়ার্ড পেলেন রাজশাহী মেডিকেলের নার্স
জীবাণু সংক্রমণ প্রতিরোধে অসামান্য অর্জন

আন্তর্জাতিক এওয়ার্ড পেলেন রাজশাহী মেডিকেলের নার্স