১১ জানুয়ারী, ২০২৩ ০৪:২৮ পিএম

খেজুরের কাঁচা রস না খাওয়ার পরামর্শ আইইডিসিআর’র

খেজুরের কাঁচা রস না খাওয়ার পরামর্শ আইইডিসিআর’র
২২ বছরে নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩২৬ জন এবং মারা গিয়েছেন ২৩১ জন।

মেডিভয়েস রিপোর্ট: নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হতে পারে এমন আশঙ্কায় খেজুরের কাঁচা রস না খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছে সরকারের রোগতত্ত্ব, রোগনিয়ন্ত্রণ ও গবেষণা প্রতিষ্ঠান (আইইডিসিআর)। প্রতিষ্ঠানটি বলছে গেল ২২ বছরে নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩২৬ জন এবং মারা গিয়েছেন ২৩১ জন।

আজ বুধবার (১১ জানুয়ারি) আইইডিসিআর আয়োজিত 'শীতকালীন সংক্রামক রোগ ও নিপাহ ভাইরাস সংক্রমণ' শীর্ষক এক মেডিকেল কনফারেন্সে বক্তারা এসব কথা বলেন।

নতুন বছরের প্রথম ১০ দিনের মধ্যেই রাজশাহীর এক নারী বাদুর বাহিত এ ভাইরাসে মারা যান। খেজুরের রস খেয়ে তিনি আক্রান্ত হয়েছিলেন।

বক্তারা জানান, গতবছর বা ২০২২ সালে নিপাহ ভাইরাস আক্রান্তের তিনটি কেস পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে দুইজন মারা গেছেন। এদের একজন ছিলেন নওগাঁর, অন্যজন ফরিদপুরের।

আইইডিসিআর এর পরিচালক অধ্যাপক তাহমিনা শিরিন বলেন, বাদুরের মূত্র বা লালার মাধ্যমে এ ভাইরাস ছড়ায়। বাদুর যখন খেজুরের রস খায়, তখন তার দ্বারা সেটি 'ইনফেকটেড' হয়ে যায়। মানুষ সেই রস কাচা খেলে আক্রান্ত হয়ে পড়ে। তারপর আক্রান্ত ব্যক্তির মাধ্যমে তার পরিবারের সদস্য ও পরিচিতরা আক্রান্ত হয়। তাদের মাধ্যমে স্বাস্থ্য কর্মীরাও আক্রান্ত হতে পারেন।

তিনি পরামর্শ দেন, 'কাচা খেজুরের রস ও বাদুরের অর্ধেক খাওয়া ফল খাওয়া যাবে না'।

আইইডিসিআর পরিচালক আরো বলেন, 'নিপাহ ভাইরাসে আক্রান্ত ৭১% মানুষ মারা যায়। তাই কাচা খেজুরের রস খাওয়া থেকে বিরত থাকতে হবে'।

সম্মেলনে বক্তারা আরো জানান, দূষিত খেজুরের রস খাওয়ার পর নিপাহ আক্রান্তের লক্ষণ দেখা দিতে পর ৮-৯ দিন লাগতে পারে। অন্যদিকে, ইতোমধ্যে আক্রান্ত রোগীর সংস্পর্শে এসে আক্রান্ত হওয়ার ক্ষেত্রে লক্ষণ দেখা দেয় ৬-১১ দিন পর।

আইইডিসিআর গবেষকদের মতে, খেজুরের রস জ্বাল দিয়ে খেলে তা নিরাপদ, গুড়-ও নিরাপদ। সংস্থাটি গাছীদের রস সংগ্রহের পর সাবান দিয়ে ভালভাবে হাত ধোয়ার পরামর্শও দিয়েছে।

এসএস

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
দাবি মেনে নেওয়ার আশ্বাস বিভিন্ন মেডিকেলের

বর্ধিত ভাতা পাচ্ছেন ৭ বেসরকারি মেডিকেলের ইন্টার্ন চিকিৎসকরা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত