১৯ নভেম্বর, ২০২০ ০৮:১৭ পিএম

ডা. মামুন গ্রেফতারের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি

ডা. মামুন গ্রেফতারের ঘটনায় তিন সদস্যের তদন্ত কমিটি

মেডিভয়েস রিপোর্ট: পুলিশের সিনিয়র এএসপি আনিসুল করিম শিপন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের রেজিস্টার ডা. আব্দুল্লাহ আল মামুনকে গ্রেফতারের বিষয়ে সরেজমিনে তদন্তের জন্য তিন সদস্যের একটি কমিটি ঘঠন করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। 

বৃহস্পতিবার অধিদপ্তরের পরিচালক (প্রশাসন) ডা. শেখ মোহাম্মদ হাসান ইমাম স্বাক্ষরিত এ সংক্রান্ত একটি বিজ্ঞপ্তি প্রকাশ করা হয়েছে। 

এতে বলা হয়েছে, শিপন হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় হাসপাতালের ডরমেটরি থেকে কর্তৃপক্ষের পূর্বানুমতি ব্যাতিরেকে জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের রেজিস্টার ডা. আব্দুল্লাহ আল মামুনকে গ্রেফতার করা হয়। এর ফলে হাসপাতালের সর্বস্তরের কর্মকর্তা-কর্মচারীদের মধ্যে চরম ক্ষোভ দেখা দিয়েছে। 

বিষয়টি সরেজমিনে তদন্ত করার জন্য স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের হাসপাতাল ও ক্লিনিক বিভাগের পরিচালক ডা. ফরিদ হোসেন মিঞাকে সভাপতি, উপপরিচালক ডা. আবুল খায়ের মো রফিকুল হায়দারকে সদস্য সচিব এবং জাতীয় মানসিক স্বাস্থ্য ইনস্টিটিউট ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ডা. হেলাল উদ্দিন আহমেদকে সদস্য করে একটি কমিটি গঠন করা হয়েছে।

সরেজমিনে তদন্ত শেষে তিন দিনের মধ্যে প্রতিবেদন জমা দেয়ার জন্য বলা হয়েছে বিজ্ঞপ্তিতে।

প্রসঙ্গত, গত ৯ নভেম্বর বেলা ১১টায় আদাবরের মাইন্ড এইড হাসপাতালে চিকিৎসা নিতে গিয়ে হাসপাতালটির কর্মচারীদের মারধরে মারা যান সিনিয়র এএসপি আনিসুল করিম শিপন। তিনি ৩১তম বিসিএসে পুলিশ প্রশাসনে নিয়োগপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ছিলেন। পরদিন ১০ নভেম্বর সকালে নিহত এএসপি আনিসুল করিমের বাবা ফয়েজ উদ্দিন বাদী হয়ে মামলা দায়ের করেন।

ওই দিন ঢাকা মহানগর পুলিশের তেজগাঁও বিভাগের উপ-কমিশনার হারুন অর রশীদ বলেন, মাইন্ড এইড হাসপাতালে এএসপি আনিসুল করিম নিহতের ঘটনাটি একটি হত্যাকাণ্ড। এই ঘটনায় নিহতের বাবা বাদী হয়ে মামলা করেছেন। এই হাসপাতালের স্বাস্থ্য অধিদফতরের কোনও অনুমোদন নেই, মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণের কোনও অনুমোদন নেই, চিকিৎসক নেই।

  ঘটনা প্রবাহ : মাইন্ড এইড হাসপাতাল
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি