১৭ জুলাই, ২০২০ ০১:৫১ পিএম

শেষ কর্ম দিবসে যা বললেন মমেক পরিচালক

শেষ কর্ম দিবসে যা বললেন মমেক পরিচালক

মেডিভয়েস রিপোর্ট: ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ (মমেক) হাসপাতালের পরিচালক হিসেবে বৃহস্পতিবার (১৬ জুলাই) শেষ কর্ম দিবসের দায়িত্ব পালন করেছেন ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দীন আহমেদ। এ সময় হাসপাতালের উন্নয়নে তার ভূমিকাসহ নানা অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেন তিনি।

সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে নিজের ওয়ালে তাঁর এ সংক্রান্ত একটি পোস্ট তুলে ধরা হলো।

পোস্টে ‘বিদায় নিচ্ছি’ শিরোনামে মমেক পরিচালক বলেন, ‘আসসালামু আলাইকুম, সম্মানিত ময়মনসিংহ বিভাগবাসী। আজ ১৬ জুলাই আমার শেষ কর্মদিবসে আমি আপনাদের সকল সহোযোগিতা ও ভালবাসার জন্য কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। মহান আল্লাহ রাব্বুল আলামিনের কাছে শুকরিয়া আদায় করছি। আমার ভুল-ভ্রান্তির জন্য সকলের কাছেই ক্ষমা চাই। আমি সাধারণ নাগরিক থেকে ময়মনসিংহের সকল উচ্চপর্যায়ের-মধ্যপর্যায়ের কর্মকর্তা, শ্রদ্ধাভাজন অধ্যাপক, ডাক্তার, ইন্টার্ন চিকিৎসক, নার্সিং অফিসার, হাসপাতাল ও মেডিকেল কলেজ, সকল কর্মচারী, সাংবাদিকবৃন্দ, সমাজকর্মী, রাজনৈতিক ও পেশাজীবী নেতৃবৃন্দ সকলের কাছে কৃতজ্ঞতা প্রকাশ করছি। ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভালো কিছু হয়ে থাকলে তা আপনাদের সাহায্যে হয়েছে।’

শেষ কর্মদিবসে সকলের কাছে দোয়া চেয়ে ব্রিগেডিয়ার জেনারেল নাসির উদ্দীন আহমেদ আরও বলেন, ‘আগামী ১৮ তারিখ শনিবার নতুন পরিচালককে দায়িত্বভার বুঝিয়ে দিয়ে আল্লাহ চাইলে ১৯ জুলাই এ শহর থেকে আপাতত বিদায় নেবো। ৩০ জুলাই অবসরে চলে যাবো। ভালো থাকুন আপনারা।’ 

তিনি বলেন, ‘আমার ভাল লাগছে যে আল্লাহর তায়ালার অসীম দয়ায় আপনাদের সকলেরই সহযোগিতায় এই হাসপাতালটা অনেক সুন্দর হয়েছে। এখানে প্রয়োজনীয় সকল জিনিস আছে। এখন আপনারা কিভাবে ব্যবহার করবেন এটা নির্ভর করবে আপনাদের ওপর। হাসপাতালে আগামী ডিসেম্বর পর্যন্ত সকল ধরনের ওষুধ আছে। এমন কিছু নাই যা ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজে নেই। আমি মনে করি, মধ্যবিত্ত পর্যায় থেকে নেতৃত্ব দিতে হবে। ছাত্র অবস্থায় নীতি-নৈতিকতা মজবুত থাকে, মানুষের যখন বয়স হয়ে যায় তখন কিছুটা স্বার্থপর হয়ে যায়। সংসারের টানাপোড়েন..., আমরাও কিছু ক্ষেত্রে আপোস করে বসি। এটাই পৃথিবীর নিয়ম। যুবকরাই সব কিছু করে।’

তিনি বলেন, ‘আমি সকলেরই সহযোগিতা পেয়েছি। এমন কোনো ব্যক্তি নাই..., আমার সমলোচকরাও আমাকে সহযোগিতা করেছে।’

এ সময় সবাইকে ঐক্যবদ্ধ থাকার আহ্বান জানিয়ে তিনি বলেন, ‘এখানে দুইশো নিরাপত্তাকর্মী আছে, একশো আনসার আছে। আপনারা যদি ঐক্যবদ্ধ থাকেন, বাহিরের কোনো অপশক্তি এখানে বিশৃঙ্খলার চেষ্টা চালায়, তাহলে ব্যর্থ হবে।’ 

তিনি বলেন, এই হাসপাতালকে বাঁচিয়ে রাখলে পুরো ময়মনসিংহবাসীর জন্য এটি সম্পদ হবে।

এ সময় হাসপাতালে চলমান ওয়ানস্টপ সার্ভিস ধরে রাখার পরামর্শ দিয়ে তিনি বলেন, ‘কোন রাত্রে কার প্রয়োজন হয়ে যায় তা আমরা কেউ জানি না। কারণ সময় মতো চিকিৎসা না হলে কিন্তু মানুষ মারা যেতে পারে। ক্যাথলেবটার বিষয়ে নজর রাখবেন।’

করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম গুলো মেনে চলুন। সর্দি কাশি জ্বর হলে হাসপাতালে না গিয়ে স্বাস্থ্য সেবা দানকারী হটলাইন গুলোতে ফোন করুন। আইইডিসিআর হটলাইন- 10655, email: [email protected]
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত