ডা. মোঃ মাকসুদ উল্যাহ্‌

ডা. মোঃ মাকসুদ উল্যাহ্‌

চিকিৎসক, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল


২৫ জুন, ২০২০ ০৪:১৮ পিএম

খিঁচুনি রোগীর হাত-পা বাঁধা ছবি গণমাধ্যমে প্রচার করা অসভ্যতা

খিঁচুনি রোগীর হাত-পা বাঁধা ছবি গণমাধ্যমে প্রচার করা অসভ্যতা
ছবি: প্রতীকী

যেসব রোগীর খিঁচুনি হয়, তাদের অনেকেরই নাকে নল এবং হাতে ক্যানুলাসহ শরীরে বিভিন্ন অংশে বিভিন্ন চিকিৎসা সরঞ্জামাদি লাগানো থাকে। তাই তারা যেন জরুরি সেসব নল বা ক্যাথেটার টান দিয়ে খুলে না ফেলে, সেজন্য অনেক সময় রোগীর হাতকে আমরা বেঁধে রাখি। আবার এমন অস্থির রোগী অনেক সময় নিকটস্থ লোকদেরকে কিল ঘুষিও দেয়। সে কারণে কখনো কখনো অল্প সময়ের জন্য হাত-পা বেঁধে রাখা হয়। রোগী স্থির হলে তখন বাঁধ খুলে দেওয়া হয়। রোগী এবং নিকটস্থ লোকদের ভালোর জন্যই এমন করা হয়।

কিন্তু সেটার ছবি তুলে, ‘বিলের জন্য মৃত রোগীর হাত বেঁধে রাখা হয়েছে’ উল্লেখ করে খবর প্রচার অসভ্যতা ছাড়া আর কিছুই নয়।

নিবিড় পর্যবেক্ষণ কেন্দ্রে (আইসিইউ) রোগী মারা গেলে, রোগীর অসভ্য স্বজনেরা বিল না দিয়ে সারার জন্য বলতে থাকে, আমাদের রোগী অনেকটা ভালো ছিল। কিন্তু চিকিৎসকরা জোর করে আইসিইউতে নিয়েছে।

ডাক্তার বা হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ কখনো জোর করে কাউকে আইসিইউতে নেয় না। রোগী যদি অনেকটা ভালোই থেকে থাকে, তাহলে তারা রোগীকে বাড়ি নিয়ে গেল না কেন?

অনেকে বলে আমার রোগী হেঁটে হেঁটে হাসপাতালে গেছে, কিন্তু ডাক্তারেরা মেরে ফেলেছে! এমন অসভ্য কথা বলার আগে আল্লাহকে ভয় করুন। অসুস্থ না হলে তাকে হাসপাতালে নিলেন কেন আপনি? 

ইমান ঠিক করুন! যে রোগী একটু পরেই মারা যাবে, সে রোগীকে সাধারণ মানুষের দৃষ্টিতে সুস্থ মনে হতে পারে। আবার যে রোগীর অবস্থা অনেকটাই স্বাভাবিক, সে রোগীকে সাধারনের দৃষ্টিতে আশঙ্কাজনক মনে হতে পারে।

'হাসপাতালের বিল আদায়ের জন্য লাশের হাত বেঁধে রাখা হয়েছে' এমন অসভ্যতাপূর্ণ খবর প্রচার করার জন্য সংশ্লিষ্ট অসভ্য লোকটার বিরুদ্ধে মামলা হওয়া উচিত। ফ্যাসিবাদ উসকে দেওয়ার জন্য এদের ফাঁসি হওয়া উচিত।

করোনা ভাইরাস থেকে সুরক্ষিত থাকতে গুরুত্বপূর্ণ নিয়ম গুলো মেনে চলুন। সর্দি কাশি জ্বর হলে হাসপাতালে না গিয়ে স্বাস্থ্য সেবা দানকারী হটলাইন গুলোতে ফোন করুন। আইইডিসিআর হটলাইন- 10655, email: [email protected]
করোনা ও বার্ধক্যজনিত অসুস্থতা

এক দিনে চিরবিদায় পাঁচ বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি