০২ সেপ্টেম্বর, ২০২১ ০১:০৭ পিএম

মেডিকেল কলেজে সশরীরে ক্লাস শুরু ১৩ সেপ্টেম্বর

মেডিকেল কলেজে সশরীরে ক্লাস শুরু ১৩ সেপ্টেম্বর
ফাইল ছবি

মেডিভয়েস রিপোর্ট: করোনাভাইরাস সংক্রমণের কারণে দীর্ঘ দিন বন্ধ থাকা মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলো খুলছে আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর। মেডিকেল কলেজগুলো খোলা নিয়ে আজ বৃহস্পতিবার (২ সেপ্টেম্বর) দুপুরে স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে এক বৈঠকে এমন সিদ্ধান্ত হয়। 

পরে এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক বলেন, ‘দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ শুরু হওয়ায় মেডিকেলসহ সব ধরনের শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধ রাখতে হয়েছে। কিন্তু অনলাইন ক্লাস চালু ছিল। মেডিকেল শিক্ষাটা এমন একটি ব্যবস্থা, যা প্রায়োগিক নির্ভর। চিকিৎসকদের অবশ্যই রোগীর কাছে যেতে হবে। তা না হলে তিনি ভালো চিকিৎসক হতে পারবেন না। এ সমস্ত চিন্তা-ভাবনা করে আমরা সকলে মিলে সশরীরে ক্লাস নেওয়ার সিদ্ধান্ত নিয়েছি। না হলে মেডিকেল শিক্ষায় বড় একটা শূন্যতা সৃষ্টি হবে, এতে আমরা আগামীতে ভালো চিকিৎসক পাবো না। এসব চিন্তা করে প্রাথমিকভাবে প্রথম, দ্বিতীয় এবং পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থীদের সশরীরে ক্লাস নিতে যাচ্ছি। আগামী ১৩ সেপ্টেম্বর থেকে ক্লাস শুরু হবে।’

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, এমবিবিএস দ্বিতীয় ও পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থীদেরকে নিয়মিত রোগীর কাছে যেতে হবে। রোগীর কাছে না গেলে সঠিক শিক্ষাটা গ্রহণ করতে পারবে না এবং লেখাপড়াটা অপূর্ণ রয়ে যাবে। শিক্ষার্থীরা রোগীর কাছে গিয়ে অনেক কিছু শিখবে এবং নতুন নতুন জ্ঞান অর্জন করবে। এক্ষেত্রে শিক্ষার্থীরা নন-কোভিড রোগীদেরকে দেখতে যাবে, ক্ষেত্রভেদে কোভিড রোগীদের কাছেও নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করা হবে।

তিনি আরও বলেন, ‘আমরা শিক্ষক-শিক্ষার্থীদেরকে টিকা দিয়েছি। টিকার মাধ্যমে সবাইকে সুরক্ষিত করার চেষ্টা করেছি। ক্লাসে যাওয়ার সময় মাস্ক পরিধান করতে হবে। সামাজিক দূরত্ব মেনে চলতে হবে। শিক্ষক-শিক্ষার্থীদেরকে সুরক্ষিত করার জন্য সব ধরনের ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে। পর্যায়ক্রমে সকল শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খুলে দেওয়া হবে। এরপর আমরা দেখবো, কোনো ধরনের সমস্যা দেখা দেয় কিনা। সমস্যা দেখা দিলে আমরা তাৎক্ষণিক ব্যবস্থা গ্রহণ করবো।’

অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. আবুল বাশার মোহাম্মদ খুরশীদ আলম। এছাড়াও উপস্থিত ছিলেন স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এনায়েত হোসেন, প্রাইভেট মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতাল অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি ডা. আলী নুর মুবিন।

এর আগে গত ২২ আগস্ট সামাজি যোগাযোগ মাধ্যমে ভাইরাল হওয়া এক নোটিসে দাবি করা হয়, ২৮ আগস্ট থেকে খুল মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজগুলো। ওই দিন সকালে বিষয়টি স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেনের নজরে দিলে তিনি বলেন, এ সংক্রান্ত কোনো নোটিস স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর থেকে ইস্যু করা হয়নি। মেডিকেল শিক্ষার্থী ও সংশ্লিষ্টদের বিভ্রান্ত করতে কেউ এই ভুয়া নোটিসটি ছড়িয়ে দিয়েছে। এখানে অধিদপ্তরের নাম ভুল লেখা হয়েছে। স্বাক্ষরিত কর্মকর্তার নামও ভুল। আর মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজ খোলা নিয়ে গতকাল কোনো মিটিংও হয়নি। এর ভাষা ও শব্দ চয়ন হাস্যকর।

জানতে চাইলে একই দিন দুপুরে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক (চিকিৎসা শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. এ কে এম আহসান হাবিব জানান, আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহে দেশের মেডিকেল ও ডেন্টাল কলেজ কলেজগুলো খুলে দেওয়া হবে।

স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের পরিচালক বলেন, ‘আগামী মাসের প্রথম সপ্তাহের যে কোনো দিনই হতে পারে। এটা দাপ্তরিক কোনো ঘোষণা না। সবার টিকা দেওয়া সম্পন্ন হয়েছে। সে কারণে আমাদের প্রস্তাবনা ছিল, আগস্টের শেষ দিকে খোলার। তবে করোনার প্রকোপসহ নানা কারণে অনেকে চলতি মাসে কলেজগুলো খোলার বিপক্ষে মত দিয়েছেন। তারা সেপ্টেম্বরের প্রথম সপ্তাহে খোলার পক্ষে। ঊর্ধ্বতন মহল এটা উপলব্ধি করতে পেরেছেন।’

মেডিকেল খুলতে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের প্রস্তাব

তারও আগে এমবিবিএস দ্বিতীয় বর্ষ ও পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থীদের প্রফ পরীক্ষা সামনে রেখে আগামী ২১ আগস্ট থেকে দেশের মেডিকেল কলেজগুলো খুলে দেওয়ার প্রস্তাব দেয় স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তর। করোনায় মেডিকেল শিক্ষাকে সেশনজটমুক্ত রাখতে ধারাবাহিক কাজের অংশ হিসেবে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির কাছে এ প্রস্তাব দিয়েছে তারা। 

গত ১৩ আগস্ট রাত পৌনে দশটার দিকে মেডিভয়েসকে এমন তথ্য নিশ্চিত করেছেন স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের মহাপরিচালক (ডিজি) অধ্যাপক ডা. এ এইচ এম এনায়েত হোসেন বলেন, ‘২১ আগস্ট মেডিকেল কলেজগুলো খুলে দেওয়ার ব্যাপারে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির মতামত চাওয়া হয়েছে। এ নিয়ে কমিটির কোনো সিদ্ধান্ত এখনো পাইনি। আমরা খুলে দিতে চাই।’

কারিগরি কমিটির সুপারিশ 

এর পরিপ্রেক্ষিতে মেডিকেল কলেজগুলো খুলে দিতে স্বাস্থ্য শিক্ষা অধিদপ্তরের প্রস্তাবে ইতিবাচক মত দিয়েছে কোভিড-১৯ সংক্রান্ত জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটি। কমিটির সভাপতি অধ্যাপক ডা. মোহাম্মদ সহিদুল্লাহ সভাপতিত্বে গত ১২ আগস্ট রাত ৯টায় অনুষ্ঠিত সভায় এমন মত দেওয়া হয়।

পরে তাদের এ সংক্রান্ত সুপারিশে বলা হয়েছে, স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের স্বাস্থ্য শিক্ষা বিভাগ ২১/০৮/২০২১খ্রি. বা নিকটবর্তী যে কোনো তারিখ থেকে এমবিবিএস/বিডিএস কোর্সের ২য় বর্ষ ও পঞ্চম বর্ষ/শেষ বর্ষ এর ক্লাস চালুকরণের বিষয়ে জাতীয় কারিগরি পরামর্শক কমিটির মতামত চেয়ে পত্র প্রেরণ করেছে। 

কমিটির সকল সদস্যরা এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করেন। ইতোমধ্যে এ সকল ছাত্র/ছাত্রীদের দুই ডোজ টিকা প্রদান করা হয়েছে। স্বাস্থ্যবিধি মেনেচলা সাপেক্ষে প্রাথমিকভাবে এই দুই বর্ষের ক্লাস শুরু করার পক্ষে কমিটি মত প্রদান করেন। এগুলো হলো: 

ক. ক্লাস শুরুর আগে সকল ছাত্র/ছাত্রীদের সংক্রমণ প্রতিরোধ ও নিয়ন্ত্রণের উপর প্রশিক্ষণ করাতে হবে।
খ. শতভাগ সঠিকভাবে মাস্ক পরা ও সামাজিক দূরত্ব নিশ্চিত করাসহ স্বাস্থ্যবিধি অনুসরণ করতে হবে।
গ. হাসপাতালের ওয়ার্ডে ক্লাসে ছাত্র/ছাত্রীদের সঠিকভাবে সুরক্ষা সামগ্রী ব্যবহার নিশ্চিত করতে হবে।
ঘ. ছাত্র/ছাত্রীদের সংক্রমণের উপর নজরদারি রাখতে হবে।
ঙ. সংক্রমিত ছাত্র/ছাত্রীদের চিকিৎসা/আইসোলেশন এবং তাদের সংস্পর্শে আসা ছাত্র/ছাত্রীদের ১৪ দিন কোয়ারিন্টেনের ব্যবস্থা করতে হবে।

প্রসঙ্গত, বাংলাদেশে গত বছরের ৮ মার্চ প্রথম করোনা রোগী শনাক্ত হয়। এর পর গত ১৭ মার্চ থেকে শিক্ষা প্রতিষ্ঠান বন্ধ এবং ২৬ মার্চ থেকে লকডাউন ঘোষণা করা হয়। এরপর লকডাউন তুলে দেওয়া হলেও শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের চলমান ছুটি ধাপে ধাপে বাড়ানো হয়। এর মধ্যে গত ১৩ জুন থেকে স্কুল-কলেজ খোলা এবং শিক্ষাকার্যক্রম পরিচালনায় প্রয়োজনীয় প্রস্তুতিমূলক ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেয় শিক্ষা মন্ত্রণালয়। তবে করোনা পরিস্থির অবনতি হওয়ায় ছুটির মেয়াদ আরও বাড়ানো হয়। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের এ ছুটি সর্বশেষ ১১ জুলাই পর্যন্ত বাড়ায় সরকার।

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি