২৯ অগাস্ট, ২০২১ ১২:১৪ পিএম

মায়ের দুধের বিষ্ময়কর ২০টি উপকারিতা

মায়ের দুধের বিষ্ময়কর ২০টি উপকারিতা
ছবি: মেডিভয়েস

মেডিভয়েস রিপোর্ট: পৃথিবীতে একটি শিশু ভুমিষ্ট হবার পর প্রথম যে বিষয়টি সামনে আসে তা হলো তার খাবার। সাধারণত এখন আমরা প্রায় সবাই জানি নবজাতকের জন্য মায়ের দুধ অনেক উপকারী। কিন্তু এটি আসলে কোন কোন দিক দিয়ে কতটা উপকারী বা কেন উপকারী এ বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য আমরা অনেকেই জানি না। মেডিভয়েসের হেলথ টিপসে আজকে থাকছে মায়ের দুধের উপকারিতা নিয়ে বিষ্ময়কর কিছু তথ্য। 

এ বিষয়ে মেডিভয়েসের সঙ্গে বিস্তারিত আলোচনা করেছেন, শিশু ও নবজাতক রোগ বিশেষজ্ঞ এবং স্যার সলিমুল্লাহ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের সাবেক বিভাগীয় প্রধান ডা. বেগম শরিফুন নাহার।

শুরুতে মায়ের দুধ ও নবজাতক নিয়ে করা কিছু গবেষণার তথ্য জেনে আসা যাক। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও ইউনিসেফের তথ্য বলছে, প্রতিবছর বিশ্বে প্রায় চার মিলিয়ন নবজাতকের মৃত্যু ঘটে জন্মের চার সপ্তাহের মধ্যে। এর থেকে ৩১ শতাংশ শিশুর মৃত্যু রোধ করা যেত, যদি নবজাতকের জন্মের ১ ঘণ্টার মধ্যে মায়ের বুকের দুধ খাওয়ানো হতো।

এবার বিস্তারিত জানা যাক। মায়ের দুধের উপকারিতাকে যদি আমরা শ্রেণী বিভাগ করি তাহলে যেটি পাবো তা হলো:

১. শিশুর জন্য উপকারিতা, 

২. মায়ের জন্য উপকারিতা,

৩. পরিবারের জন্য উপকারিতা, 

৪. দেশের লাভ, 

শিশুর জন্য উপকারিতা

১. মায়ের দুধে শিশুর বৃদ্ধি ও মানসিক বিকাশের জন্য পরিপূর্ণ পুষ্টিমান নিশ্চিত থাকে।

২. মায়ের দুধ ক্ষতিকর ব্যাকটেরিয়া মুক্ত, খাঁটি এবং পরিচ্ছন্ন। ফলে শিশুর রোগাক্রান্ত হবার ভয় নেই।

৩. বুকের দুধে থাকে অ্যান্টিবডি, এনজাইম এবং ভিটামিন, যা শিশুর রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়িয়ে দেয়।

৪. শিশুকে মায়ের দুধ খাওয়ালে বিভিন্ন সংক্রামক রোগ যেমন: ডায়রিয়া, নিউমোনিয়া, কানপাকা মেনিনজাইটিস ইত্যাদি থেকে রক্ষা পায়।

৫. বুকের দুধে লিনোলেনিক এসিড, ওমেগা-৩, ফ্যাটি এসিড এবং কোলেস্টরলসহ বিভিন্ন উপাদান থাকে; যা শিশুর মস্তিষ্ক গঠনে সাহায্য করে। এতে শিশু মেধাবী ও বুদ্ধিমান হয়।

৬. মায়ের দুধ শিশুকে ভবিষ্যতে উচ্চ রক্তচাপ, ডায়াবেটিস এবং স্থুলতা থেকে রক্ষা করে।

৭. বিশেষ কিছু রোগ যেমন: হাঁপানি, এলার্জি, একজিমা, দাঁতের অসুখ ইত্যাদি রোধে মায়ের দুধের ভূমিকা ব্যাপক।

৮. মায়ের দুধে থাকে পর্যাপ্ত পরিমাণে ভিটামিন এ এবং ভিটামিন সি, যা শিশুকে অন্ধত্ব ও স্কার্ভি থেকে রক্ষা করে।

৯. মায়ের শাল দুধ শিশুর প্রথম প্রাকৃতিক টিকা হিসেবে কাজ করে।

১০. যে সব শিশু ঠিক মতো মায়ের দুধ পান করে তারা স্বাস্থ্যবান ও দ্রুত বেড়ে উঠে।

মায়ের উপকারিতা 

১. সদ্যভূমিষ্ট শিশু নাড়ী কাটার আগেই যদি মায়ের দুধ পান করে, তাহলে গর্ভস্থফুল বা প্লাসেন্টা দ্রুত বের হয়ে আসে। ফলে প্রসব পরবর্তী রক্তক্ষরণের ঝুঁকি কমে যায়।

২. শিশুকে ঠিক মতো বুকের দুধ খাওয়ান, এমন মায়ের স্তন ও জরায়ু ক্যানসার হওয়ার আশঙ্কা কমে যায়।

৩. বুকের দুধ খাওয়ানোর সময় প্রোলাকটিন নামে এক ধরনের হরমোন মায়ের ডিম্বাশয়ের কার্যপ্রণালিতে বাধা দেয়। ফলে দুধ পান একটি প্রাকৃতিক জন্মনিয়ন্ত্রণ পদ্ধতি হিসেবে কাজ করে।

১৪. বুকের দুধ খাওয়ানোর ফলে স্তনের টিস্যুগুলোর ব্যায়াম হয়, বিধায় স্তন সুডৌল থাকে।

১৫. বুকের দুধ তৈরি হতে শরীরের অভ্যন্তরে প্রতিদিন অতিরিক্ত ক্যালরি খরচ হয়, ফলে মায়ের শরীরে থাকা অতিরিক্ত মেদ কমে যায়, এতে শরীর দ্রুত আগের অবস্থায় ফিরে আসে।

১৬. দুধ দেওয়ার মধ্য দিয়ে মা ও শিশুর আত্মিক বন্ধন দৃঢ় হয়। এতে দুজনের মধ্যে গড়ে উঠে গভীর ভালোবাসার সম্পর্ক।

পরিবারের জন্য উপকারিতা 

১. মায়ের দুধ খাওয়ালে বাজার থেকে দুধ কিনতে হয় না। ফলে পরিবারের অর্থের সাশ্রয় হয়।

২. শিশু বুকের দুধ খেলে বাড়তি খাবার তৈরির জন্য অতিরিক্ত সময় ব্যয় ও ঝামেলা পোহাতে হয় না।

৩. যেহেতু মায়ের দুধ খেলে অসুখ-বিসুখ কম হয়, তাই শিশুকে ডাক্তারের কাছে নিয়ে যাওয়ার প্রয়োজন পড়ে না। ফলে পরিবারের চিকিৎসা ব্যয় হ্রাস পায়।

দেশের লাভ 

বিদেশ থেকে উচ্চমূল্যে শিশু খাদ্য আমদানি করতে হয় না, ফলে বৈদেশিক মুদ্রা সাশ্রয় হয়। 

 

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি