১০ জুন, ২০২১ ০৬:১১ পিএম

বিদেশগামীদের করোনা পরীক্ষার সনদ পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে যাচাই

বিদেশগামীদের করোনা পরীক্ষার সনদ পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে যাচাই
ছবি: সংগৃহীত

মেডিভয়েস রিপোর্ট: করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষার ক্ষেত্রে বিদেশগামী যাত্রীদের জন্য নতুন আটটি নির্দেশনা দিয়েছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এতে বলা হয়েছে, বিদেশগামী যাত্রীদের করোনা পরীক্ষার জন্য নমুনা কোনো অবস্থায় বাসা-বাড়ি থেকে সংগ্রহ করা যাবে না। বুধবার (৯ জুন) অধিদপ্তরের পরিচালক (হাসপাতাল ও ক্লিনিকসমূহ) স্বাক্ষরিত এ চিঠিতে এ নির্দেশনা দেওয়া হয়। 

একই সঙ্গে মূল পাসপোর্ট যাচাই করে পাসপোর্ট নম্বর উল্লেখপূর্বক নমুনা সংগ্রহ ফর্ম পূরণ করতে হবে। এ ক্ষেত্রে পাসপোর্টের ফটোকপি গ্রহণযোগ্য নয়। বৃহস্পতিবার (১০ জুন) স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সূত্রে এসব তথ্য জানা গেছে।

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে, সম্প্রতি কয়েকটি প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে বিদেশগামী যাত্রীদের ভুয়া কোভিড-১৯ রিপোর্ট প্রদান, পজিটিভ রোগীকে নেগেটিভ সনদ প্রদান, নমুনা সংগ্রহ ব্যতীত নেগেটিভ সনদ প্রদান, প্রতারণার মাধ্যমে অতিরিক্ত অর্থ আদায়, নমুনা সংগ্রহ বুথের নামে দালাল নিয়োগসহ বিভিন্ন অনিয়মের অভিযোগ পাওয়া যায়। যা ডিএইচআইএস-২ ডাটাবেজ যাচাইয়ে ও প্রাথমিক তদন্তে প্রমাণিত হয়। এ ধরনের কর্মকাণ্ড অনাকাঙ্ক্ষিত, জনস্বাস্থ্যের জন্য হুমকিস্বরূপ এবং দেশের ভাবমূর্তি ভয়ংকরভাবে ক্ষুণ্ণ করছে। এ অবস্থায় পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত এ চারটি প্রতিষ্ঠানে করোনা নমুনা সংগ্রহসহ বিদেশগামী যাত্রীদের আরটি-পিসিআর পরীক্ষা কার্যক্রম সাময়িক বন্ধ রাখার জন্য মহাপরিচালকের অনুমোদনক্রমে নির্দেশ প্রদান করা হলো।

একইসঙ্গে করোনা আরটি-পিসিআর পরীক্ষার অনুমোদন পাওয়া দেশের সব বেসরকারি হাসপাতাল ও ল্যাবগুলোকে ৮টি নির্দেশনা মানতে কড়াকড়ি আরোপ করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এসব নির্দেশনা অমান্য করলে অভিযুক্ত প্রতিষ্ঠানের বিরুদ্ধে যে কোনো ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে নির্দেশনায় উল্লেখ করা হয়।

নির্দেশনাগুলো হচ্ছে: 

১. পরবর্তী নির্দেশ না দেওয়া পর্যন্ত বিদেশগামী যাত্রীদের কোভিড-১৯ নমুনা সংগ্রহের জন্য ল্যাবগুলোর নিজস্ব ভবনের বাইরে স্থাপিত সব ধরনের নমুনা সংগ্রহ কেন্দ্রের কার্যক্রম বন্ধ থাকবে।

২. বিদেশগামী যাত্রীদের নমুনা কোনো অবস্থায় বাসা-বাড়ি থেকে সংগ্রহ করা যাবে না।

৩. বিদেশগামী যাত্রীদের নমুনা সংগ্রহের সময় মূল পাসপোর্ট যাচাই করে, পাসপোর্ট নম্বর উল্লেখপূর্বক নমুনা সংগ্রহ ফর্ম পূরণ করতে হবে। কোনোক্রমেই পাসপোর্টের ফটোকপি গ্রহণযোগ্য হবে না।

৪. বিমানবন্দরে বিদেশগামী যাত্রীদের কোভিড-১৯ পরীক্ষা সনদ, পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে যাচাই করা হবে। শুধু টেলিফোন/মোবাইল নম্বর প্রমাণ হিসেবে গ্রহণযোগ্য হবে না।

৫. সাত দিনের মধ্যে কোনও পজিটিভ রিপোর্ট থাকলে ওই যাত্রীকে দেশত্যাগের অনুমতি দেওয়া যাবে না।

৬. কোনো বিদেশগামী যাত্রী কোভিড-১৯ পজিটিভ হলে, তাকে কমপক্ষে সাত দিন পর শুধু সরকারি ব্যবস্থাপনায় পরিচালিত ল্যাবে পুনরায় পরীক্ষা করাতে হবে। পরবর্তী সময় যদি নেগেটিভ সনদপ্রাপ্ত হন, সে ক্ষেত্রে দেশত্যাগ করতে পারবেন।

৭. কোনো আরটি-পিসিআর ল্যাবের ব্যাপারে অভিযোগ উত্থাপিত হলে, ল্যাবটির কার্যক্রম সাময়িকভাবে স্থগিত করে তদন্ত সাপেক্ষে পরবর্তী অনুমোদনের বিষয়টি বিবেচনা করা হবে।

৮. কোনো বিদেশগামী যাত্রীর কোভিড-১৯ পরীক্ষা করার ক্ষেত্রে সরকারি-বেসরকারি উভয় স্থানে প্রথমে পাসপোর্ট নম্বর দিয়ে যাচাই করে দেখতে হবে যে, তিনি গত ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে অন্য কোথাও আরটি-পিসিআর ল্যাবে করোনা পরীক্ষা করেছেন কি না। করে থাকলে এবং পজিটিভ হলে তাকে সাত দিন পর্যন্ত পুনরায় আরটি-পিসিআর পরীক্ষা করার সুযোগ দেওয়া যাবে না।

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত