ডা. ফারহানা মোবিন

ডা. ফারহানা মোবিন

গাইনি বিভাগ, 
স্বয়ার হাসপাতাল,ঢাকা।


০৬ সেপ্টেম্বর, ২০২০ ০১:০৪ পিএম

ক্যাপসিকাম: যেসব কারণে নিয়মিত খাবেন

ক্যাপসিকাম: যেসব কারণে নিয়মিত খাবেন

ক্যাপসিকাম দৃষ্টিনন্দন একটি সবজি। উচ্চ মাত্রার ভিটামিন ‘সি’ তে ভরপুর। মাছ, মাংস বা যেকোনো সবজির সঙ্গে মিশিয়ে খাওয়া যায় ক্যাপসিকাম। অল্প তেল, মশলা দিয়ে রান্না করে খেলে কোষ্ঠকাঠিন্য, বদহজম, বুকের জ্বালাপোড়া (গ্যাস্ট্রিকের জন্য হয়) দূর হয়। ঠাণ্ডাজনিত ইনফেকশানগুলোর বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে ক্যাপসিকাম।

এছাড়াও দাঁতের ক্ষয় হয়ে যাওয়া, দাঁতের গোড়ায় ব্যথা, আর্থ্রাটিসের ব্যথা কমাতে অবদান রাখে ক্যাপসিকাম। এই সবজিটি দেহের ক্ষতিকারক কোলস্টেরলের মাত্রা কমিয়ে, বাড়িয়ে দেয় কাজ করার শক্তি।

রান্না ক্যাপসিকামের চেয়ে টাটকা ও কাঁচাতে পুষ্টি বেশি। তাই কাঁচা খাওয়াই ভালো।

জ্বর হওয়ার পরে বা যেকোনো অপারেশনের পরে মানুষের মুখের রুচি কমে যায়। ক্যাপসিকামের সালাদ রুচি বৃদ্ধি করে, দেহের শিরা উপশিরা ও স্নায়ুগুলোর পুষ্টি যোগায়। সারা শরীরে সঠিকভাবে রক্ত চলাচলে সাহায্য করে বলে হৃৎপিন্ড ভালো থাকে। বমি বমি ভাব দূর করতে অবদান রাখে। হাই ব্লাডপ্রেসার বা উচ্চ রক্তচাপের সমস্যা না থাকলে কাঁচা লবণ (তরকারিতে খাবার লবণ) দিয়ে খেতে পারেন ক্যাপসিকাম।

হাই-ব্লাডপ্রেসার থাকলে কাঁচা লবণ খাওয়া অনুচিত। বাড়তি লবণ খেলে আর উচ্চ রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে না থাকলে দেহে শরীরে পানি জমতে পারে। পরিণামে তৈরী হবে নানান জটিলতা। এই সবজিতে চিনি ও ফ্যাট নাই। তাই ডায়াবেটিক ও হৃদরোগীরা ভয় ছাড়াই খেতে পারবেন।

মাংসপেশীর ব্যথা, হাড়ের জয়েন্টের ব্যথা দূর করে ক্যাপসিকাম। বার্ধক্যকে দূরে ঠেলতে এর অবদান অপরিসীম।

রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতাকে বাড়িয়ে দেয় প্রচুর পরিমাণে। গর্ভবতী মায়েরা খেলে গর্ভস্থ শিশুর জন্য যথেষ্ট উপকার হয়। ওজন কমাতে সাহায্য করে। এতে নেই কোনো কোলেস্টেরল বা চর্বি। তাই ওজন কমাতে চান যারা তারা নিঃসন্দেহে খেতে পারেন ক্যাপসিকাম।

মাংসের সঙ্গে খেলে চর্বি কমায় মাংসের। ফলে ওজন কমাতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। 

আমাদের মেরুদণ্ডের স্নায়ুগুলোকে পুষ্টি দেয় ক্যাপসিকাম। তাই যাদের মেরুদন্ডের ব্যথা বা কোমড়ে ব্যথা রয়েছে তাদের জন্য ভীষণ উপকারি হলো ক্যাপসিকাম। 

ক্যাপসিকামের খোসা পাকস্থলী, ক্ষুদ্রান্ত (পেটের একধরনের অঙ্গ), কোলনের ক্যান্সার প্রতিরোধ করে। কোলনের ক্যান্সারের রোগীদের অধিকাংশ ক্ষেত্রেই ভীষণ কোষ্ঠকাঠিন্যর  সমস্যা হয়।

ইসবগুলের ভূষি, শাক, সবজি, ক্যাপসিকাম ও প্রচুর পরিমাণে পানি দূর করবে এই সমস্যা। পুষ্টির গুণ বিচারে সালাদের বাটিতে, তরকারিতে এই সবজি হোক আপনার উপকারী সঙ্গী।

সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের নির্দেশনা উপেক্ষা

অতিরিক্ত বেতন নিচ্ছে একাধিক বেসরকারি মেডিকেল

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত