ডা. মুহাম্মাদ আনিসুর রহমান

ডা. মুহাম্মাদ আনিসুর রহমান

চিকিৎসক, প্রাবন্ধিক


৩১ জুলাই, ২০২০ ০৬:০১ পিএম

সাপ কামড়ালে করণীয়

সাপ কামড়ালে করণীয়

বর্তমানে বৈশ্বিক করোনা মহামারীর পাশাপাশি দেশ বন্যার দুর্যোগেও আক্রান্ত। ইতোমধ্যেই প্লাবিত হয়েছে দেশের বেশ কিছু জেলা৷ এরই মধ্যে পবিত্র ঈদুল আযহা সমাগত৷ তাই অনেকেই গ্রামের বাড়িতে অবস্থান করছেন৷ 

যেহেতু বন্যার ফলে দেশের বিভিন্ন স্থান প্লাবিত এবং প্রায় সর্বত্রই পানি বেড়েছে৷ তাই এসময় সাপ বসতবাড়িতে বা আশেপাশে অবস্থান নিবে৷ অসতর্কতার ফলে ঘটতে পারে দূর্ঘটনা৷ আজ আলোচনা করবো সাপে কামড়ালে আমাদের করনীয় কী তা নিয়ে।

শান্ত থাকা:

সাপ কামড়ালে প্রথমেই আপনাকে মানসিকভাবে শান্ত থাকতে হবে৷ ঘাবড়ে যাওয়া চলবেনা৷ কারণ বাংলাদেশে লোকালয়ে যেসব সাপ দেখতে পাওয়া যায় তার অধিকাংশই নির্বিষ অর্থাৎ বিষ নেই৷ এসব সাপের কামড়ে মৃত্যু হয়না৷ অল্পকিছু প্রজাতির বিষধর সাপ আমাদের দেশে পাওয়া যায়৷ তাই সাপে কামড়েছে মানে আপনি মারা যাবেন এ চিন্তা মাথা থেকে ঝেড়ে ফেলুন, শান্ত থাকুন৷

ক্ষতস্থান বাঁধা:

যেস্থানে সাপ কামড়েছে তার একটু উপরে কাপড় জাতিয় বস্তু (গামছা, মাফলার, ওড়না ইত্যাদি) দিয়ে হালকা করে বেঁধে ফেলুন৷ এক্ষেত্রে দড়ি বা এ জাতিয় কোন বস্তু দিয়ে বাঁধা যাবেনা৷ বাঁধন শক্ত হওয়া যাবেনা৷ শক্ত হলে সে অঙ্গে রক্ত চলাচল বন্ধ হয়ে তা পঁচে যেতে পারে৷

শরীর থেকে ঘড়ি, ব্রেসলেট, হাতে-কোমরে থাকা তাবিজ, অলংকার খুলে ফেলুন৷

ক্ষতস্থান নাড়াচাড়া না করা:

যেস্থানে বা অঙ্গে সাপ কামড়েছে তা নাড়াচাড়া করা যাবেনা৷ এতে বিষধর সাপ কামড়ালে বিষ দ্রুত দেহে ছড়িয়ে পড়বে৷ যদি পায়ে কামড় দেয় সেক্ষেত্রে চলাচলের জন্য অন্যের সাহায্য নিন৷

হাসপাতালে যাওয়া:

উপরোক্ত কাজগুলো করা হলে এবার দ্রুত হাসপাতালে যান৷ কখনই বিষ নামানোর জন্য ওঝার কাছে যাবেন না৷ মনে রাখবেন বিষধর সাপ কামড়ালে ওঝা কিছুই করতে পারবেনা৷ বরং আপনার জীবননাশের ঝুঁকি রয়েছে৷ ওঝারা বিষ নামানের নামে যা করে তা সবই লোক দেখানো৷ কারণ তারা জানে যে বাংলাদেশের অধিকাংশ সাপই বিষহীন৷ তাই দ্রুত হাসপাতালে যান৷ ডাক্তার দেখে বুঝতে পারবেন যে সাপ বিষধর কিনা৷ বিষধর বা নির্বিষ সাপ ভেদে তিনি চিকিৎসা প্রদান করবেন৷

যেসব কাজ করবেন না: 

কামড়ের স্থান থেকে চুষে বিষ বের করে আনার চেষ্টা করবেন না৷ কামড়ের স্থান আরো কেটে বা সেখান থেকে রক্তক্ষরণ করে বিষ বের করে আনার চেষ্টা করবেন না৷

বরফ, তাপ বা কোনো ধরনের রাসায়নিক কামড়ের স্থানে প্রয়োগ করবেন না৷ আক্রান্ত ব্যক্তিকে একা ফেলে যাবেন না৷

বিষধর সাপ ধরা থেকেও বিরত থাকা উচিত। এমনকি মৃত সাপও সাবধানতার সাথে ধরা উচিৎ৷ কারণ সদ্যমৃত সাপের স্নায়ু মারা যাওয়ার কিছুক্ষণ পরও সতেজ থাকতে পারে এবং তখন তা দংশন পারে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে