অধ্যাপক ডা. মাহবুব মোতানাব্বি

অধ্যাপক ডা. মাহবুব মোতানাব্বি

অধ্যাপক, পেডিয়াট্রিক্স বিভাগ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল মেডিকেল বিশ্বদ্যিালয়।


২৫ ডিসেম্বর, ২০২১ ০৫:২১ পিএম

স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার আমূল পরিবর্তনে ১২ পরামর্শ

স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার আমূল পরিবর্তনে ১২ পরামর্শ
মফস্বলে কোয়াক ও শহরে অধ্যাপক, মাঝখানে নাজেহাল এমবিবিএস চিকিৎমক

একজন ছাত্র উপজেলায় ফাঁকি দেওয়া বা কাজ না করে বেতন নেওয়ার নিয়ত করে মেডিকেলে ভর্তি হয় না। পাস করার পর নিরেট এক বাস্তবতার মুখোমুখি হয়। তৃণমূলে কোয়াক। উপরে অধ্যাপক। মাঝখানে এমবিবিএস চিকিৎসকের অমানুষিক পরিশ্রমের পরও কোনো অবস্থান নাই। তাকে জনগণের সংস্পর্শে যেতেই সম্পূর্ণ অরক্ষিত এক শ্বাপদ সংকুল জনপদে। কিছুটা রেহাই চাইলে করতে হবে পোস্টগ্র্যাজুয়েশন, সে আরেক অমানবিক পরিশ্রম। তখন উপজেলা বা গ্রামের চাকরিতে ন্যূনতম সময় দিয়ে শুরু হয় সেই কোর্স, তখন পড়াশোনাই তার লক্ষ্য হয়ে যায়।

কনসালটেন্ট হয়ে গেলে আবার আরেক সমস্যা। ছেলেমেয়ে বড় হয়ে যাচ্ছে। ভালো প্রতিষ্ঠান নেই। পড়াশোনা অনুযায়ী মূল্যায়ন নেই। বারো বছর একই পদে। আস্তে আস্তে আন্তরিকতা নষ্ট হতে থাকে। ঢাকায় পরিবারের পিছুটান। তারসাথে গৌণ ফ্যাক্টর ঊর্ধ্বতন কর্তৃপক্ষের শিথিল নজরদারি। এসবের জন্য ক্যারিয়ার প্ল্যানিং ও সবার জন্য সমান সুযোগ অতীব গুরুত্বপূর্ণ। আমি উপজেলায় কর্মরত থাকা অবস্থায় একবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক ও ডিরেক্টর আমাদের উপজেলায় যান। আমরা সুষ্ঠু ক্যারিয়ার প্ল্যানিং ও উপজেলা পর্যায়ে আবাসন ও নিরাপত্তার কিছু প্রস্তাব তৈরি করে প্রস্তুতি নিলাম।

মহাপরিচালক মহোদয় ঢুকেই একদিক থেকে ধমকাধমকি শুরু করলেন। আবার ধমকাধমকি দিয়েই শেষ করলেন। আমাদের প্রস্তাব, আমাদের মনেই রইল। অথচ আমি যে, ছয় বছর এই উপজেলায় ছিলাম। একজন চিকিৎসকের নামে কোনো অভিযোগ আসেনি। একটাও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটেনি। কোনো কোনো উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তা (ইউএইচএফপিও) শুধু মানুষ হিসেবে নয়, প্রশাসক হিসেবেও ছিলেন অনন্য। তাঁর মাঝে স্থানীয় সংসদ সদস্য জনসভা করে চিকিৎসকদের অকথ্য ভাষায় গালাগালি করলেন। কিছুদিন পর আবার আমাদের ডেকে বললেন, ‘আপনারা কিছু মনে করবেন না। জনগণকে উদ্দীপ্ত করার জন্য মাঠে-ঘাটে আমাদের অনেক কথা বলতে হয়।’

অনেক সময় গেছে। তবে প্রভাবশালীরা একই নীতিতে রয়ে গেছে এখনো, (কেউ আবার মাঝখান দিয়া অন্য কিছু মনে কইরেন না।) স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপনার উন্নয়নে কী করা যায়?

ক. পদোন্নতির জন্য পোস্টগ্র্যাজুয়েশনের বাধ্যবাধকতা তুলে দিতে হবে।

খ. সর্বোচ্চ তিন বছরের মধ্যে চিকিৎসকদের বদলি করে পর্যায়ক্রমে উপজেলা, জেলা ও মেডিকেল কলেজে পদায়ন করতে হবে। চাকরি জীবনের বারো বছরের মধ্যেই অন্তত তিন বছর যেন মেডিকেল কলেজে কাটে।

গ. প্রত্যেক স্বাস্থ্যস্থাপনাকে ‘কি পয়েন্ট ইন্সটলেশন’ ঘোষণা করে, সে অনুযায়ী নিরাপত্তার ব্যবস্থা করতে হবে।

ঘ. নিয়মিত নজরদারি ও কঠোর শাস্তিবিধানের মাধ্যমে শৃঙ্খলা ফিরিয়ে আনতে হবে। হঠাৎ কোনো কোনো জনপ্রতিনিধি এসে যেন কোনো নাটক সৃষ্টি করতে না পারে।

ঙ. স্থানীয় জনপ্রতিনিধি ও প্রশাসনিক কর্মকর্তাদের সাথে নিয়মিত মাসিক সভা করে সমস্যা চিহ্নিত করে সমাধানের উদ্যোগ নিতে হবে। এতে তাঁরাও বকাবকি করার চেয়ে, বরং সমস্যা সমাধানের চাপে থাকবেন।

চ. অন্য সার্ভিসের মতোই একটি নির্দিষ্ট সময়ান্তরে প্রত্যেকেরই দেশে-বিদেশে উন্নত প্রশিক্ষণের ব্যবস্থা থাকতে হবে (পোস্ট গ্র্যাজুয়েশন না করলেও)।

ছ. চিকিৎসকদের দৈনন্দিন কার্যক্রমকে রাজনৈতিক প্রভাবের বাইরে রাখতে হবে। তাহলে এর দোহাই দিয়ে ফাঁকির সুযোগ কমে যাবে।

জ. কর্মস্থলে নিয়মিত উপস্থিতি, বিশেষ করে দুর্গম এলাকায় অবস্থানের জন্য বাড়িভাড়া না কেটে প্রণোদনার ব্যবস্থা করতে হবে।

ঝ. কোনো যন্ত্রপাতি কেনার আগে প্রশিক্ষিত জনবল নিয়োগ দিতে হবে।

ঞ. ধারণক্ষমতার বেশি রোগী ভর্তি বন্ধ করতে হবে, রোগীর যথাযথ চিকিৎসার স্বার্থেই।

ট. চিকিৎসকদের অধীনস্থ কর্মচারীদের ক্ষেত্রে তাদের নিরঙ্কুশ নিয়ন্ত্রণ প্রতিষ্ঠা করতে হবে।

ঠ. কিছুদিন আগে এক হাসপাতালে পলস্তারা খসে গুরুতর আহত হন ডা. সুতপা রানী সাহা। এইসব বিপজ্জনক ভবন ও অবকাঠামোগুলো ভেঙে যথাযথভাবে নির্মাণ করতে হবে। এটাই এ মুহূর্তের সবচেয়ে বড় মেগা প্রজেক্ট হওয়া উচিত।

মেডিভয়েসের জনপ্রিয় ভিডিও কন্টেন্টগুলো দেখতে সাবস্ক্রাইব করুন MedivoiceBD ইউটিউব চ্যানেল। আপনার মতামত/লেখা পাঠান [email protected] এ।
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত