ডা. কামরুজ্জামান চৌধুরী

ডা. কামরুজ্জামান চৌধুরী

লেকচারার, উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ


০৭ জুন, ২০১৮ ১০:১৮ এএম
অর্থের যোগাড় হয়েছে

দ্রুতই সেরে উঠবেন রাফা

দ্রুতই সেরে উঠবেন রাফা

মনে আছে আদ দ্বীন ওইমেন্স মেডিকেল কলেজের শেষ বর্ষের শিক্ষার্ত্রী জেরিন তাসনিম রাফার কথা? যে ক্যানসার আক্রান্ত।  তার এলোজেনিক বোনম্যারো ট্রান্সপ্লান্টেশনের জন্য দরকার ছিল আশি লাখ টাকা।  এই প্রক্রিয়াটি দেশে সম্ভব ছিল না বিধায় রাফা আপনাদের কাছে হাত বাড়িয়েছিলেন।  

 জেনে খুশি হবেন সবার ঐকান্তিক প্রচেষ্টায় চিকিৎসায় সবচে বড় বাধা, বোন ম্যারো ট্রান্সপ্লান্ট করার মতো অর্থ জোগাড় হয়েছে।

দেশের নানা প্রান্তে ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকা বাংলাদেশের চিকিৎসক সমাজের সদস্যবৃন্দ, চিকিৎসক সমাজের দর্পণ "প্ল্যাটফর্ম" এর সহযোগিতায় ইতোমধ্যে অর্থের ব্যবস্থা হয়েছে।  এখন শুধু অপেক্ষার পালা কখন ফিরবে রাফা ?  আমার হাসিমুখে ছুটে বেড়াবে। 

চিকিৎসক সমাজের আন্তরিক সহযোগিতা, সমর্থন ও সক্রিয় অংশগ্রহণে বরাবরের মতো এবারো প্রায় পর্বতসম বাধা পেরিয়ে আরেকটি লড়াইয়ের প্রতীক্ষা।

গত ২৮ মে সোমবার দেশব্যাপী প্ল্যাটফর্মের উদ্যোগে  সারাদেশের মেডিকেল কলেজ হাসপাতালগুলোতে“এ ডে ফর রাফা” পালন করা হয়েছে।  তার আগে পরে আজ পর্যন্ত সকলের সহযোগিতা ও সমর্থন অব্যাহত আছে।

এখানে প্রথিতযশা চিকিৎসক, অধ্যাপকবৃন্দ যেভাবে অংশ নিয়েছেন, তাঁরা যে কতবড় হৃদয় নিয়ে বসে আছেন আমরা এ থেকে টের পেলাম।  কেউ কেউ নাম প্রকাশ করতে দেননি।  কেউ বা অনুরোধে রাজি হয়েছেন নাম প্রকাশ করতে, যেন অন্যরা উদ্বুদ্ধ হন।  আমরা অগ্রজ পথপ্রদর্শক এই মহান মানুষ দের সার্বিক কল্যাণ কামনা করি। 


মিডলেভেল চিকিৎসকবৃন্দ নানান টানাপোড়েনে থেকেও নিজ নিজ কর্মস্থলে হাত বাড়িয়েছেন উদারভাবে।  শ্রমে, পরামর্শে, অর্থ সাহায্যে এগিয়ে এসেছেন অকাতরে।  তাদের প্রতি চিরকৃতজ্ঞ।
 
সদ্য পাশ এমবিবিএস বা মেডিকেল শিক্ষার্থী।  কিইবা করার ছিল তাঁদের? কিন্তু যে যেখানে পেরেছেন চষে বেড়িয়েছেন।  রাফার হয়ে হাত পেতেছেন শিক্ষক, পরিবার, পরিচিত , অপরিচিত সর্বোপরি সমাজের কাছে।

আমরা দেখেছি ঈদের জন্যে জমানো টাকা কিংবা টাকা জমিয়ে লাইব্রেরিতে পরীক্ষার জন্য দিনরাত পড়তে থাকা মানুষেরা সেই জমানো টাকার বড় অংশ রাফার জন্যে সাহায্য করেছেন।

দেশের বাইরে থেকে অধ্যাপক থেকে শুরু করে গত মাসে প্রবাসী চিকিৎসকও রাফার জন্যে অর্থ সাহায্য পাঠিয়েছেন যা আজও পর্যন্ত অব্যাহত আছে।

সকলের কাছে কৃতজ্ঞ।  একজন মেডিকেল শিক্ষার্থীর দুঃসময়ে যে যেভাবে পেরেছেন সহযোগিতা করেছেন।  যা প্ল্যাটফর্ম পোস্টে পোস্টে প্রতিফলিত হয়েছে।

কার কখন কী সমস্যা হয়, কী সাহায্য দরকার হয়, আদৌ তা সম্ভব কিনা- ইত্যাদি বিবেচনায় নিলে দেখা যায় যে আমাদের সক্ষমতা বাস্তবতার নিরিখে অপ্রতুল।  আলাদাভাবে অসম্ভব।  কিন্তু এক থাকলে চেষ্টা তো করা যায়।

চিকিৎসক সমাজের প্রতিটি সদস্যের সার্বিক চিকিৎসা সহায়তা বা স্বাস্থ্য নিরাপত্তায় আমাদের আর হাত পাততে হবে না এমন একটা সিস্টেম এর স্বপ্ন দেখি।

ততদিন পর্যন্ত, যদি প্রয়োজন হয়, নিশ্চয়ই উদারচিত্তে সবাই এগিয়ে আসবেন।  যেমনটা এবার এসেছেন এবং উদাহরণ সৃষ্টি করেছেন।

রাফা সেরে উঠুক।  ভালো থাকুক চিকিৎসক পরিবারের প্রত্যেক সদস্য এবং তাদের রোগীরা।

রাফা'র জন্য আমাদের ডাকে সাড়া দিয়ে দেশব্যাপী আপনারা যে সমর্থন দিয়েছেন তার জন্য রাফাসহ Platform পরিবার আপনাদের কাছে চিরকৃতজ্ঞ রইলাম।

 

সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি