ডা. কাওসার উদ্দিন

ডা. কাওসার উদ্দিন

সহকারী সার্জন

স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়।


২৪ মে, ২০১৮ ০৩:১০ পিএম

দাক্তার সাব, পেসকিপশানডা দেহেনতো!

দাক্তার সাব, পেসকিপশানডা দেহেনতো!

ফার্মেসির সামনে দাঁড়িয়েছি ওষুধ কিনবো বলে। ফার্মেসির দোকানদার জানে না যে আমি ডাক্তার। হঠাৎ মনে হল কেউ এসে পিছনে দাঁড়িয়েছে। সাথে সাথে উচ্চস্বরে ডাক, ‘দাক্তার সাব, পেসকিপশানডা দেহেনতো!’ 

আমার ঘাড়ের উপর দিয়ে লম্বা হাতটা বাড়িয়ে ময়লাটে একটা কাগজ দিল ওষুধ বিক্রেতার হাতে। আমি খানিকটা বিব্রত! হঠাৎ অপরিচিত গলার 'দাক্তার সাব' শুনে মনে করেছিলাম, আমাকেই ডাকছে বোধ হয়! তাই ভ্যাবাচ্যাকা খেয়ে ঘাড় ঘুরিয়ে পিছনেও ফিরেছিলাম! কিন্তু ততক্ষণে বুঝে গেছি এই 'দাক্তার সাব' আমি না! ওনার দৃষ্টি ফার্মেসিয়ালা নামক বহুল প্রচলিত স্বঘোষিত ডাক্তারের দিকে!

শিক্ষাই জাতির মেরুদন্ড আর মেডিসিন বিপননের মেরুদণ্ড হচ্ছেন এই ডাক্তার সাবরা! তাদের অংগুলি হেলনে কত অরিজিনাল ডাক্তারের যে ভাগ্য পোড়ে তার ইয়ত্তা নেই! তো ডাক্তার সাব গম্ভীর ভাব নিয়ে প্রেসক্রিপশনটা হাতে নিলেন! এরপর চোখ নাক কুঁচকে, গভীর মনোযোগের সাথে সেটা অধ্যয়ন করা শুরু করলেন। ইতোমধ্যে আগত লোকটি আবারো হাক দিলেন, আর শুরু হল দুই মেরুদন্ডের কথোপকথন এবং আমি তৃতীয় পক্ষ হয়ে নির্বাক শ্রোতা হয়ে চেয়ে চেয়ে দেখছি শুধু!

- ম্যালা আগে দিছিল হাসপাতালের দাক্তার, কাশ অইছিল! আবার কাশ অইছে! তা দাক্তার, উপ্রেড্যা কিসের ওষুদ?
- কাশের ওষুদ।
- পিছ কত?
- দশ টেহা।
- এর পরেরডা কিসের?
- এইডাও কাশের ওষুদ। প্রতি পিছের দাম হেইডার চেয়ে কম।
- দুই পদের কাশের ওষুদ দিছে ক্যা?
- আমি ক্যাম্নে কমু? ঔষধ কি দিমু?
- কয় পদের ওষুদ আছে?
- চাইর পদের ওষুদ।
- বাহি দুইডা কিসের ওষুদ?
- দাক্তার সাব প্রেসক্রিপশটা চোখের আরও কাছে নিয়ে, বেশ কিছুক্ষণ নিরীক্ষন করে বললেন, এইড্যাও কাশের ওষুদ, লগে এট্টা গ্যাসের বড়ি!
- আম্নে এক কাম করেন, তিন পদের ওষুদ দিয়া এক পদের দ্যান! যেইডা বেশি দামি ওইডাই দিয়েন, কম দামিডা দিয়েন না! আগে এট্টা খাইয়া দেহি, কাশ ভালা না অইলে আরে এট্টা নিমু!

আমি তখনো নির্বাক দাঁড়িয়ে! মনে মনে ভাবছি লোকটাকে বলি, 'একেকটি একেক ধরণের, একটি প্রিভেন্টার একটা রিলিভার, একটা এন্টি ইনফ্লামেটরি, রোগী দেখেশুনে এগুলো দেয়া হয়!' কিন্তু এ কথা বললে সে কি বুঝবে কে জানে! তার বুঝে ঢুকে গেছে তিনটাই কাশের ওষুধ, দামি একটা খেলেই হবে, এটাই তো সহজ বুঝ! এসব ভুলে ছাই দিতে এখন আর ইচ্ছে হয় না, তাই স্বার্থপরের মত চলে এলাম। লোকটাকে শুধু বলে এলাম 'ডাক্তার দেখিয়ে ওষুধ খান।'

আজকাল চিকিৎসার জন্য লোকে কতকিছু খায়, কতকিছু করে। অনেকের কাছে মেডিসিন হল হুজুরের পানি পড়া, পুরোহিতের লাল সুতো আর হাতুড়ের রঙবেরঙের ডিব্বা! যার যা খুশি খাক, নিজের খেয়ে আর বোনের মোষ তাড়াতে চাই না।

মাওয়া লঞ্চে একবার এক ক্যানভাসারের হাবিজাবির বিরুদ্ধে বলতে গিয়ে সে কি নাজেহাল অবস্থা, মোষগুলো যেভাবে সদলবলে তেড়ে এসেছিল! তাই এখন আর কিছু বলি না, দেখেশুনে চুপ করে থাকি। যতদিন না মানুষগুলো জ্ঞানী হয়, ততদিন এভাবেই মৃয়মাণ হবে প্রতিবাদের ভাষাগুলো, এই যা...

Add
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না