ঢাকা বুধবার, ১৬ অক্টোবর ২০১৯, ১ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৫ ঘন্টা আগে
১৭ মে, ২০১৮ ১৪:০৫

উচ্চ রক্তচাপ দিবস নিয়ে সপ্তাহব্যাপী সারা দেশে কর্মসূচি

উচ্চ রক্তচাপ দিবস নিয়ে সপ্তাহব্যাপী সারা দেশে কর্মসূচি

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস উপলক্ষে সপ্তাহব্যাপী কর্মসূচি ঘোষণা করেছে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। ১৭ মে শুরু হওয়া এ কর্মসূচি ২৩ মে পর্যন্ত চলবে।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক অধ্যাপক আবুল কালাম আজাদ বলেন, ১৭ মে বিশ্ব উচ্চ রক্তচাপ দিবস। সেজন্যই সপ্তাহব্যাপী এই উদযাপন। আমি সকল সিএইচসিপিকে অনুরোধ করবো অত্যন্ত গুরুত্ব দিয়ে কাজটি করতে। DHIS-2 NCD Tracker-এ ডাটা এন্ট্রি করার নির্দেশ আমি দিয়েছি। এর কারণ আছে। আমরা সপ্তাহব্যাপী এই কর্মসূচীটির মাধ্যমে সারাদেশের রক্তচাপের উপর একটি বিশাল জরিপ করতে পারবো। জানতে পারবো উচ্চ রক্তচাপের হার কত? কোন বয়সের মানুষ বেশী ভুগছে?

তিনি দেশের প্রতিটি কমিউনিটি ক্লিনিকের সামনে নিজস্ব ব্যবস্থাপনায় আগত জনসাধারনের রক্তচাপ পরিমাপ করে তথ্যসমূহ DHIS-2 Form এর NCD Tracker এর উচ্চ রক্তচাপ অংশে পূরণ করার নির্দেশ দেন।

তিনি বলেন, যদি প্রতিটি কমিউনিটি ক্লিনিক এক সপ্তাহে গড়ে ১০০ জনের রক্তচাপ মাপতে পারে, তবে ১৩ হাজারের বেশী কমিউনিটি ক্লিনিক ১৩ লক্ষের বেশী মানুষের রক্তচাপ মাপবে। এটি বিশাল একটি রক্তচাপ তথ্য ভান্ডার তৈরি করবে। আমরা বিশ্বে একটি বিস্ময়ও তৈরি করবো।

তবে এই জরিপকে বিজ্ঞান ভিত্তিকভাবে পরিচালনা করতে হবে। এলাকার ৩০ উর্ধ্ব বয়সী সকলকে আসতে বলুন। উচ্চ রক্তচাপ থাকুক না থাকুক নির্বিশেষে সবাইকে। খবর দেবার নানা পথ আছে। স্কুলের শিক্ষক দিয়ে শিক্ষার্থীদের বলতে বলুন যেন শিক্ষার্থীরা পরিবারের সবাইকে বিনামূল্যে রক্তচাপ পরীক্ষার করার সুযোগ নিতে বলে। তবে ৩০ বছর বা তার চেয়ে বেশী যাদের বয়স তাদের আসতে হবে। মসজিদের ইমাম, মন্দিরের পুরোহিত এবং অন্য ধর্মালম্বীদের উপসনালয়ের পুরোহিত এ সংবাদ ছড়িয়ে দিতে পারেন।

কমিউনিটি গ্রুপ, কমিউনিটি সাপোর্ট গ্রুপগুলো সবাইকে উদ্বুদ্ধ করতে পারে। হাটে-বাজারে ঢোল সহরত হতে পারে। নারী-পুরুষ নির্বিশেষে সব বয়সের মানুষকেই অনুপ্রাণিত করতে হবে রক্তচাপ মাপার জন্য আসতে। যারা উচ্চ রক্তচাপে ভুগছেন বলে জানেন, তাদেরও আসতে হবে। রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণে আছে কিনা তা জানতে।

রক্তচাপ মাপতে হবে মনোযোগ দিয়ে। যাতে ভুল না হয়। রেজিস্টারে তুলতে হবে ছক অনুসারে। DHIS2 Tracker-এ এন্ট্রি দিতে প্রত্যেকের তথ্য। তাহলেই এক সপ্তাহ পর আমাদের হাতে এসে যাবে সেই বিশাল বিস্ময়কর মহামূল্যবান বাংলাদেশের মানুষের রক্তচাপের তথ্য ভান্ডার। এটি দিয়ে প্রতিটি মানুষকে ফলোআপ করতে পারবো। তাদের অকাল মৃত্যু রোধ করতে পারবো। তাদের পঙ্গুত্ব ঠেকাতে পারবো। জরিপের বিশ্লেষন হবে তাৎক্ষণিক। যার উপর ভিত্তি করে রচনা করবো বাংলাদেশের উচ্চ রক্তচাপ প্রতিরোধ, চিকিৎসা ও নিয়ন্ত্রণের পরিকল্পনা। প্রায় বিনা পয়সায় এত বড় একটি কাজ আমরা করবো ভাবতেই কেমন জানি শিহরণ জাগে দেহ ও মনে।

আমি আশা করবো, আমাদের জেলা ও উপজেলা স্বাস্থ্য ব্যবস্থাপকগণ এই অভিনব উদ্যোগকে সফল করতে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা গ্রহণ করবেন। সিপিএইচপিরা আমাদের স্বপ্নকে বিফল হতে দেবেন না এটাও মনে প্রাণে বিশ্বাস করি।

সিএইচসিপিদের সুখবর:   সিএইচসিপিদের চাকরি স্থায়ীকরণের আইনী কাঠামোর খসড়া নিয়ে সচিব কমিটির সভা হয়েছে।

এ বিষয়ে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক বলেন, আমাদের সকলের প্রত্যাশা মাফিক প্রস্তুত খসড়াটি নীতিগতভাবে অনুমোদিত হয়েছে। এরপর এটি ভেটিং ও মন্ত্রিসভার অনুমোদন নিয়ে সংসদে যাবে। আশা করি নির্বাচনের আগেই বিষয়টি সুরাহা হবে।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত