ঢাকা      শুক্রবার ১৭, অগাস্ট ২০১৮ - ২, ভাদ্র, ১৪২৫ - হিজরী

কঙ্গোতে চার লাখ শিশু মৃত্যুঝুঁকিতে

মেডিভয়েস ডেস্ক: কঙ্গোতে প্রায় চারলাখ শিশু খাদ্যের অভাবে মৃত্যুঝুঁকিতে রয়েছে। এ জন্য দেশটির চলমান দারিদ্র সংকট ও সংঘাত নিরসনে ইউনিসেফ প্রায় ৮৮ মিলিয়ন ডলার সাহায্য চেয়েছে। যদি পর্যাপ্ত আর্থিক সাহায্য-সহযোগিতা না পাওয়া যায় তাহলে দেশটিতে অনাহারে থাকা প্রায় চারলাখ শিশু মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়বে। এ বিষয়ে গতকাল শুক্রবার জাতিসঙ্ঘের শিশুবিষয়ক সংস্থা ইউনিসেফ এক প্রতিবেদনে গভীর উদ্বেগ প্রকাশ করেছে। - খবর আলজাজিরা

দেশটির কাসাই প্রদেশে সরকার বাহিনী ও মিলেশিয়াদের মধ্যে দীর্ঘদিনের সংঘাতে  চরম আকারে দারিদ্র, খাদ্যাভাব দেখা দিয়েছে। ফলে  ক্ষুধার তাড়নায় শিশুরা কঙ্গোর কাসাইয়ের  প্রায় চারলাখ শিশু মৃত্যুঝুঁকিতে পড়েছে। ইউনিসেফ গতকাল শুক্রবার তাদের এক প্রতিবেদনে এ তথ্য তুলে ধরেছে। প্রতিবেদনে উল্লেখ করা হয়, মানবতা টিকিয়ে রাখতে হলে কাসাই প্রদেশে শিশুদের বিরুদ্ধে সবধরণের আগ্রাসন বন্ধ করতে হবে।

এছাড়া, প্রদেশটিতে জরুরি ভিত্তিতে সহযোগিতা ও সেবা নিশ্চিত করতে হবে। জাতিসঙ্ঘের তথ্যানুযায়ী, কঙ্গোর কাসাই প্রদেশে ২০১৬ সালের আগস্ট থেকে সরকার ও স্থানীয়দের ক্ষমতার জেরে প্রায় ১৩ লাখ মানুষ বাস্তুচ্যুত হয়ে পড়েছে।   

তাদের প্রতিবেদনে আরো উল্লেখ করা হয়েছে, সংঘাত ও ক্ষুধার তাড়নায় কোন ধরণের খাদ্য-পানীয় ছাড়াই শহর ছেড়ে কাসাইয়ের হাজার হাজার পরিবার গ্রামে চলে যাচ্ছে। বর্তমানে দেশটিতে হাজার হাজার পরিবার মারাত্মকভাবে অপুষ্টিতে ভুগছে। তবে সুখবর হচ্ছে, কাসাইয়ে যুদ্ধ সংঘাত কমে আসছে, ফলে অনেক পরিবারই তাদের সন্তানসহ আবার তাদের এলাকায় ফিরে আসছে। ইউনিসেফের মুখপাত্র ক্রিস্টোফি বুলিয়ার্স এ তথ্য জানিয়েছে।

এছাড়া দেশটিতে ৭ লাখ ৭০ হাজার শিশু অপুষ্টিতে ভুগছে আর ৪ লাখ শিশু মারাত্মকভাবে অপুষ্টির শিকার যারা মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়তে পারে। 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

তাইওয়ানের ওয়েইফু হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৯

তাইওয়ানের ওয়েইফু হাসপাতালে অগ্নিকাণ্ডে নিহত ৯

তাইওয়ানের রাজধানী তাইপের ওয়েইফু হাসপাতালে আগুন লেগে অন্তত ৯ জনের মৃত্যু হয়েছে,…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর