ঢাকা      মঙ্গলবার ২২, মে ২০১৮ - ৮, জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৫ - হিজরী



আয়েশা আলম প্রান্তী

শিক্ষার্থী, হলি ফ্যামিলি রেড ক্রিসেন্ট মেডিকেল কলেজ


মেডিকেল ছাত্র থেকে রকস্টার

আশিকুর রহমান মুন, সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের ছাত্র। ক্যাম্পাস জীবনে গিটার বাজিয়েছেন, বিতর্ক করেছেন। আরো গুণ আছে তাঁর। সেগুলো নিয়ে লিখেছেন আয়েশা আলম প্রান্তি।

ঢাকার সোহরাওয়ার্দী মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালের অডিটোরিয়াম। চারদিকে আঁধো আলো, আঁধো অন্ধকার। ধীরে ধীরে মঞ্চে উঠলেন একটি ছেলে। তাঁর দিকে তেমন কারোই নজর নেই। তবে গিটার বাজানো শুরু করতেই সবার মনোযোগ কেড়ে নিলেন তিনি। জাদুকরী সুরে মাতোয়ারা হয়ে গেলেন সবাই। গিটারের প্রতি আশিকুর রহমান মুনের এই ভালোবাসার শুরু বহু আগেই। ছোটবেলায় গিটার শিখেছেন বুলবুল ললিতকলা একাডেমিতে। ঢাকার মতিঝিল আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে ও পরে নটর ডেম কলেজে পড়ার সময়ও গিটারচর্চা থামেনি তাঁর।

দীর্ঘদিন জনপ্রিয় ব্যান্ডদল ওয়ারফেইজের গিটারিষ্ট অনির থেকে শিখেছেন ও বাজিয়েছেন বিভিন্ন অনুষ্ঠানে। মেডিকেল কলেজের বন্ধুরাও তার গিটারের ফ্যান। তাঁর বন্ধু ফাহিম বললেন, ‘আমাদের যে কোনো অনুষ্ঠান মুনের গিটার ছাড়া জমে না।’ তিনি তাঁর ক্যাম্পাসের সাংস্কৃতিক সংগঠন ‘স্ফূরন’ এর অন্যতম সদস্য। হুমায়ুন আহমেদ স্যারের জন্য একটি তথ্যচিত্র, আলট্রাভায়োলেট লাইটের সাথে ইলুশন নাচ, স্ফূরন নাইট প্রোগ্রামে নাচে গিটারে মঞ্চ কাঁপানো, বার্ষিক ইএনটি সেমিনার থেকে শুরু করে আন্তঃ ক্রিড়া প্রতিযোগিতা প্রায় সব কিছুতেই স্ফূরনের হয়ে পারফর্ম করেছেন। ভালো বিতার্কিক হিসেবেও মুনের সুনাম আছে। স্কুল জীবন থেকেই বিতর্ক করে চলেছেন। অনেকগুলো পুরষ্কার জিতেছেন।

বাংলাদেশ ডিবেট ফেডারেশন কর্তৃক আয়োজিত স্কুল অফ ডিবেটের সেরা দশে স্থান অর্জন করায় তিনি সম্মাননা স্বীকৃতি পেয়েছেন লন্ডন ট্রিনিটি কলেজ থেকে।। ২০১৫ সালে মুন, ইয়ামিনের নেতৃত্বে ‘সোহরাওয়ার্দী মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল ডিবেট অর্গানাইজেশন’ এআইবি গ্লোবাল হেলথ ডিবেট কম্পিটিশনে সারা দেশের ৩২ টি দলকে হারিয়ে চ্যাম্পিয়ন হয়েছে।

মানুষের জন্য কাজ করবেন বলে তিনি স্বেচ্ছাসেবী সংগঠনের সঙ্গেও জড়িয়েছেন। মুন আইএফএমএসএ (ইন্টারন্যাশনাল ফেডারেশন অব মেডিক্যাল স্টুডেন্টস এসোসিয়েশন) এর সক্রিয় কর্মী। এই প্রতিষ্ঠানটি মেডিকেলের ছাত্রছাত্রীদের নিয়ে নানা ধরনের প্রশিক্ষণ কর্মশালা করে, তাঁদের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্যসেবা কর্মসূচি পালন করে। ২০১৫ সালে তিনি আইএফএসএসএ-র ন্যাশনাল কংগ্রেসে বাংলাদেশের প্রতিনিধিত্ব করেছেন। আর এ বছর তিনি আমাদের হয়ে গিয়েছিলেন ভারতের ব্যাঙ্গোলরে সায়িন্টিফিক কংগ্রেসে। তিনি এখন এই প্রতিষ্ঠানের হেলথ অফিসার হিসেবে আছেন।

তাঁরা দেশের নানা জায়গাতে সাধারণ মানুষের স্বাস্থ্য সচেতনতা কার্যক্রম পরিচালনা করেন। গত বছর বিশ্ব ডায়াবেটিস দিবসে ‘ভালো খান, ভালো থাকুন’ কর্মসূচি পালন করেছেন। ঢাকার প্রায় ২০টি স্কুলে গিয়ে তারা ছাত্র-ছাত্রীদের কিভাবে স্বাস্থ্যের যত্ন নিতে হবে, খাবার আগে হাত ধোঁয়ার নিয়মকানুন, ভিটামিনযুক্ত খাবারদাবার, নিয়মিত ব্যায়াম ইত্যাদি বিষয়গুলো শিখিয়েছেন। অবসরে তিনি ছবি তোলেন। মুনের লেখাপড়া প্রায় শেষ। কিছুদিন আগে এমবিবিএস ফাইনাল পরীক্ষা দিয়ে নামের আগে চিকিৎসক উপাধি যোগ করেছেন এই মেধাবী। এই সব কিছুর পেছনে অনুপ্রেরণা বড় বোন ও পরিবার। এগিয়ে যান মুন সব বাঁধা পেড়িয়ে।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


ফিচার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিএসএমএমইউয়ে নাক ডাকা রোগীদের জন্য ঘুমের ল্যাবরেটরি

বিএসএমএমইউয়ে নাক ডাকা রোগীদের জন্য ঘুমের ল্যাবরেটরি

মেডিভয়েস রিপোর্ট: নাক ডাকলে বিছানার পাশের মানুষটির ঘুমাতে অসুবিধা হয়। এছাড়া নাক ডাকা…

রন্টজেনের এক্স-রে আবিষ্কারের ঘটনা ও নোবেল বিজয়

রন্টজেনের এক্স-রে আবিষ্কারের ঘটনা ও নোবেল বিজয়

১৮৯৫ সালের শীতকাল। নভেম্বর এর প্রথম সপ্তাহ শেষ হয়ে দ্বিতীয় সপ্তাহ শুরু…

বৃহত্তম কিডনি সেবা চালু করেছে গণস্বাস্থ্য ডায়ালাইসিস সেন্টার

বৃহত্তম কিডনি সেবা চালু করেছে গণস্বাস্থ্য ডায়ালাইসিস সেন্টার

মেডিভয়েস ডেস্ক: দেশের বৃহত্তম কিডনী সেবা কেন্দ্র "গণস্বাস্থ্য ডায়ালাইসিস সেন্টার"  ১ম বর্ষপূর্তি…

আমাদের প্রথম কলেজ দিবস

আমাদের প্রথম কলেজ দিবস

আজ থেকে ছাব্বিশ বছর আগের কথা। আমি তখন চট্টগ্রাম মেডিক্যাল কলেজ ছাত্র…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর