ঢাকা      শুক্রবার ১৪, ডিসেম্বর ২০১৮ - ৩০, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫ - হিজরী

বিধ্বস্ত বিমানে ছিলেন ১৪ জন মেডিকেল শিক্ষার্থী এবং দুইজন ডাক্তার : সর্বশেষ অবস্থা

নেপালে বিধ্বস্ত হওয়া ইউএস বাংলার বিমানে যাত্রী ছিলেন সিলেটের জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের ১৪ শিক্ষার্থী সহ দুইজন ডাক্তার। তারা সকলেই নেপালী বংশোদ্ভূত।

তারা হলেন- রংপুর মেডিকেল কলেজের সার্জারির সহকারী রেজিস্টার ডা. রেজোয়ানুল হক শাওন, গণস্বাস্থ্য মেডিকেল কলেজের সাবেক শিক্ষার্থী ডা. সাইয়েদ কামরুন নাহার স্বর্না, সঞ্জয় পৌডেল, নেগা মহারজন সঞ্জয়া মহারজন, অঞ্জলি শ্রেষ্ঠ, পূর্নিমা লোহানি, শ্রেতা থাপা, মিলি মহারজন, শর্মা শ্রেষ্ঠ, আলজিরা বারাল, চুরু বারাল, শামিরা বেনজারখার, আশ্রা শখিয়া, প্রিঞ্চি ধনি ও গোপালগঞ্জ মেডিকেল কলেজের পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী পিয়াস রায়। এর মধ্যে পিয়াস রায়ের মৃত্যুর খবর নিশ্চিত হওয়া গেছে।

পিয়াস রায়

তাঁদের মধ্যে অন্তত দুজন- শামিরা বেনজারখার এবং প্রিঞ্চি ধনিকে উদ্ধার করে নেপালের কাঠমান্ডু মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের আইসিইউতে রাখা হয়েছে। বাকিদের ব্যাপারে এখনো নিশ্চিত তথ্য পাওয়া যায়নি।

ডা. রেজোয়ানুল হক শাওন

মেডিকেল কলেজের একটি সূত্রে জানা গেছে, এদের মধ্যে একজন নিহত ও ছয়জন আহত হওয়ার খবর পেয়েছেন তারা। বাকিদের এখনো কোনো খোঁজ পাওয়া যায়নি।

জালালাবাদ রাগীব রাবেয়া রাবেয়া মেডিকেল কলেজের অধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মো. আবেদ হোসেন বলেন, চুড়ান্ত বর্ষের পরীক্ষা শেষে ফলাফল প্রকাশের জন্য দুই মাসের মতো সময় লাগে। এই সময়ে সকলেই নিজেদের বাড়িতে চলে যায়। নেপালের শিক্ষার্থীরাও তাদের দেশে যাচ্ছিলো।

ডা. সাইয়েদ কামরুন নাহার স্বর্না

বাংলাদেশের ঢাকা থেকে ৭১ জন আরোহী নিয়ে বিমানটি রানওয়েতে অবতরণ করার পরপরই এই দুর্ঘটনা ঘটে। তখন বিমানটিতে আগুন ধরে যায়।

নেপালের পুলিশ জানিয়েছে, ৩১ জন ঘটনাস্থলেই নিহত হয়েছেন। আরো ১৯ জন পরে হাসাপাতালে মারা গেছেন। এখনও আটজন নিখোঁজ রয়েছে। বাকিদেরকে হাসপাতালে চিকিৎসা করা হয়েছে। তাদের মধ্যে অনেকের অবস্থাই গুরুতর।

নেপাল থেকে বিবিসির সংবাদদাতা বলেছেন, বিমানবন্দরটিতে প্রথমবারের মতো আন্তর্জাতিক কোনো বিমান অবতরণের পর থেকে এপর্যন্ত ৭০টিরও বেশি দুর্ঘটনা ঘটেছে। বলা হচ্ছে, এসব দুর্ঘটনায় ৬৫০ জনেরও বেশি মানুষ নিহত হয়েছে। বিমানের পাশাপাশি সেখানে হেলিকপ্টারও বিধ্বস্ত হয়েছে।

বিবিসি আরো বলছেন, নিয়মিত বিমান চলাচল শুরু হওয়ার কিছু দিন পরই একটি দুর্ঘটনা ঘটে ১৯৭২ সালের মে মাসে। থাই এয়ারওয়েজের একটি বিমান অবতরণ করার সময় রানওয়ে থেকে ছিটকে পড়ে। তাতে ১০০ জনের মতো যাত্রী ও ১০ জন ক্রু ছিলো। তাদের একজন নিহত হয়েছে।

১৯৯২ সালে থাই এয়ারওয়েজের একটি এয়ারবাস অবতরণ করার জন্যে বিমানবন্দরের দিকে অগ্রসর হওয়ার সময় একটি পাহাড়ে বিধ্বস্ত হয়। এতে ১১৩ জন যাত্রীর সকলেই নিহত হয়।

একই বছরের সেপ্টেম্বর মাসে হয় আরো একটি বড় ধরনের দুর্ঘটনা। পিআইএর বিমানটি বিধ্বস্ত হলে বিমানের ভেতরে থাকা ১৬৭ জনের সবাই প্রাণ হারায়।

১৯৯৫ সালে রয়্যাল নেপাল এয়ারলাইন্সের একটি বিমান বেষ্টনী ভেঙে মাঠের ভেতরে ঢুকে যায়। তাতে দু'জন নিহত হয়।

লুফথানসার একটি বিমান এয়ারপোর্ট থেকে উড়ান শুরু করার পাঁচ মিনিটের মধ্যেই বিধ্বস্ত হয়। তাতে পাঁচজন ক্র সদস্য নিহত হয়। এটি ঘটেছিলো ১৯৯৯ সালের জুলাই মাসে।

ওই একই বছরের সেপ্টেম্বর মাসে নেকন এয়ারের একটি বিমান ত্রিভুবন বিমানবন্দরের দিকে অগ্রসর হওয়ার সময় একটি টাওয়ারের সাথে সংঘর্ষে কাঠমান্ডু থেকে ১৫ কিলোমিটার পশ্চিমে একটি অরণ্যে বিধ্বস্ত হয়। এতে ১০ জন যাত্রী ও ৫ জন ক্রুর সবাই নিহত হন।

২০১১ সালে বুদ্ধ এয়ারের একটি বিমান বিমানবন্দরের দিকে অগ্রসর হওয়ার সময় দুর্ঘটনায় ১৯ জন আরোহীর মধ্যে একজন শুরুতে প্রাণে বাঁচতে সক্ষম হলেও পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার সময় মারা যান। বলা হয় খারাপ আবহাওয়া ও নিচুতে থাকা মেঘের কারণে ওই দুর্ঘটনা ঘটেছিলো।

২০১২ সালে সিতা এয়ারের একটি বিমান উড্ডয়নের পরপরই সম্ভবত একটি শকুনের সাথে ধাক্কা খাওয়ার পর বিধ্বস্ত হয়। এতে ১৯ জন আরোহীর সবাই মারা যান।

২০১৫ সালে তুর্কী এয়ারলাইন্সের একটি বিমান ঘন কুয়াশার মধ্যে নামতে গিয়ে সমস্যার মধ্যে পড়ে। ৩০ মিনিট ধরে এটি বিমানবন্দরের উপর উড়তে থাকে। দ্বিতীয়বারের চেষ্টায় নামতে পারলেও সেটি রানওয়ের থেকে ছিটকে মাঠের ঘাসের উপর চলে যায়। ২২৭ জন যাত্রীকে সেখান থেকে নিরাপদে উদ্ধার করা হয়।

২০১৭ সালের মে মাসে সামিট এয়ারলাইন্সের একটি বিমান

আর সর্বশেষ দুর্ঘটনার শিকার হলো ইউএস বাংলা এয়ারলাইন্সের বিমানটি।

সোমবার নেপালের ত্রিভুবন আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে অবতরণের সময় স্থানীয় সময় দুপুর ২টা ২০ মিনিটে ইউএস-বাংলার বিমান বিধ্বস্ত হয়। বিমান বিধ্বস্তের এ ঘটনায় ৫০জন প্রাণহানির খবর নিশ্চিত করেছে দেশটির গণমাধ্যম।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আন্তর্জাতিক বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

বিশ্বের সেরা পাঁচ হাসপাতাল

বিশ্বের সেরা পাঁচ হাসপাতাল

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: বিশ্বের সবচেয়ে বিখ্যাত ও নামকরা মেডিক্যাল প্রতিষ্ঠানের মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের জনস…

বিশ্বের প্রথম জিন এডিটকৃত জমজ শিশুর জন্ম, গবেষক মহলে নিন্দার ঝড়

বিশ্বের প্রথম জিন এডিটকৃত জমজ শিশুর জন্ম, গবেষক মহলে নিন্দার ঝড়

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: চাইনিজ গবেষক হি জিয়াংক্যুয়ে বিশ্বে সর্বপ্রথম জেনিটিকালি মডিফাইড মানব শিশু তৈরি…

৩২ কলোমিটার দূরে বসে রোগীর অপারেশন!

৩২ কলোমিটার দূরে বসে রোগীর অপারেশন!

মেডিভয়েস ডেস্ক:রোগী থেকে ৩২ কিলোমিটার দূরে রয়েছেন ডাক্তার। কিন্তু রোগীর হৃদযন্ত্রে অপারেশন…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর