২৫ ফেব্রুয়ারী, ২০১৮ ০৫:৫৪ পিএম

প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক পেলেন যেসব চিকিৎসক

প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক পেলেন যেসব চিকিৎসক

২০১৫ এবং ২০১৬ সালে একাডেমিক শিক্ষায় কৃতিত্বপূর্ণ ও অসাধারণ ফলাফলের জন্য প্রধানমন্ত্রী স্বর্ণপদক পেয়েছেন ১৫ জন চিকিৎসক। বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশন (ইউজিসি)’র উদ্যোগে স্বর্ণপদকের জন্য চূড়ান্ত মনোনীতদের এ পদক প্রদান করা হয়। এমবিবিএস-এ ভালো ফলাফলের জন্য ৭ জন এবং ৮ জন স্নাতোকোত্তরে কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল অর্জন করেছেন। আজ রবিবার (২৫ ফেব্রুয়ারি) প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের ‘শাপলা হলে’ সকাল ১০ টায় তাদের স্বর্ণপদক প্রদান করা হয়।

অধ্যাপক আবদুল মান্নানের সভাপতিত্তে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্হিত ছিলেন মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। বিশেষ অতিথি হিসেবে ছিলেন জনাব মো. সোহরাব হোসাইন (সচিব, শিক্ষা মন্ত্রণালয়), জনাব নূরুল ইসলাম নাহিদ (শিক্ষা মন্ত্রী)।

২০১৬ সালে এমবিবিএস-এ কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফল করায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে পদকের জন্য মনোনীত হয়েছেন ডা. দেবজ্যোতি মজুমদার পরাগ। তিনি কমিউনিটি বেজড মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় তিনি ১৩০২ নাম্বার পেয়ে মেডিসিন অনুষদে প্রথম স্হান অধিকার করেন।  

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মনোনীত হয়েছেন ডা. মুহতারিমা নূর-ই-হাসীন প্রধান। তিনি রাজশাহী মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় তিনি ১২০২ নাম্বার পেয়ে প্রথম স্হান অধিকার করেন।  

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডা. সুমাইয়া তাসনিম। তিনি চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় তিনি ১২২০ নাম্বার পেয়ে মেডিসিন অনুষদে প্রথম স্হান অধিকার করেন।  

এমবিবিএস-এ ভালো ফলাফল করায় ২০১৫ সালের জন্য ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মনোনীত হয়েছেন ডা. উর্মিতা দত্ত। তিনি ঢাকা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় তিনি ১২৯৯ নাম্বার পেয়ে মেডিসিন অনুষদে  প্রথম স্হান অধিকার করেন।  

রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডা. জোহরা আক্তার। 

চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডা. রাকিবুল আমিন বিজয়। তিনি কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় তিনি ১১৮৬ নাম্বার পেয়ে মেডিসিন অনুষদে প্রথম স্হান অধিকার করেন।  

এবং সিলেট বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্বদ্যিালয় থেকে ডা. রাজা আহমেদ নেওয়াজ চৌধুরী। তিনি জালালাবাদ রাগিব রাবেয়া মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস পাশ করেন। চূড়ান্ত পেশাগত পরীক্ষায় তিনি ৩.৮৮ পেয়ে প্রথম স্হান অধিকার করেন।  

 

স্নাতোকোত্তরে কৃতিত্বপূর্ণ ফলের জন্য ২০১৬ তে প্রধানমন্ত্রীর পুরস্কারের জন্য মনোনীত হয়েছেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ফ্যাকাল্টি অব মেডিসিন থেকে মনোনীত হয়েছেন ডা. জোবায়দা নাজনীন (এমডি, এনডোক্রাইনোলজি)। তিনি ময়মনসিংহ মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস সম্পন্ন করেন। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেডিসিন অনুষদে এনডোক্রাইনোলজি বিভাগে ৫৮৩/৮০০ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

২০১৫ তে পদক পাচ্ছেন একই অনুষদের ডা. সন্দেশ পন্থী (এমডি, এনডোক্রাইনোলজি)। তিনি নেপালের নাগরিক। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে মেডিসিন অনুষদে এনডোক্রাইনোলজি বিভাগে ৬৮০/৯০০ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন তিনি।

২০১৬ তে ফ্যাকাল্টি অব সার্জারি থেকে পুরস্কার পাচ্ছেন ডা. সুমন বিক্রম অধিকারী (এমএস, পেডিয়াট্রিক সার্জারি)। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সার্জারি অনুষদে পেডিয়াট্রিক সার্জারি বিভাগে ৬৪০/৯০০ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

২০১৫ তে ডা. অনিন্দিতা দত্ত (এমএস রেডিওলজি এন্ড ইমেজিং)। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে সার্জারি অনুষদে ডক্টর অব মেডিসিন ইন রেডিওলজি ইন ইমাজিং বিভাগে ১০৬০/১৪০০ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

ফ্যাকাল্টি অব ডেন্টিস্ট্রিতে ২০১৬ তে পুরস্কার পাচ্ছেন ডা. শিল্পী রানী বিশ্বাস (এমএস, প্রসথোডনটিক্স)। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ৬৪০/৯০০ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

২০১৫ তে ডা. আবু হেনা মোহাম্মদ জাকির হোসেন সিকদার (এমএস, কনজারভেটিভ ডেন্ট্রিস্ট্র)। তিনি ঢাকা ডেন্টাল কলেজ থেকে বিডিএস সম্পন্ন করেন। তিনি বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ডেন্টিস্ট্রি অনুষদে কনজারভেটিব ডেন্টিষ্ট্রি এন্ড এন্ডোডন্টিকস বিভাগে ৬৩৭/৯০০ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

২০১৬ তে ফ্যাকাল্টি অব বেসিক এন্ড প্যারা ক্লিনিকাল সায়েন্স-এর ডা. এনামুল কবীর (এমফিল, এনাটমি)। তিনি রংপুর মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস সম্পন্ন করেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বেসিক সায়েন্স এন্ড প্যারাক্লিনিক্যাল সায়েন্স অনুষদে মাস্টার্স অব ফিলসফি ইন এনাটমী বিভাগে ২৬১/৩০০ নাম্বার পেয়ে উত্তীর্ণ হন।

২০১৫ তে একই অনুষদের ডা. নূরজাহান বেগম (এমফিল, মাইক্রোবায়োলজি) এ পুরস্কার পাচ্ছেন। তিনি সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ থেকে এমবিবিএস সম্পন্ন করেন। 

 

দাবি পেশাজীবী সংগঠনের, রিট পিটিশন দায়ের

‘বেসরকারি মেডিকেলের ৮২ ভাগের বোনাস ও ৬১ ভাগের বেতন হয়নি’

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি