ঢাকা      বুধবার ২১, অগাস্ট ২০১৯ - ৫, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী

বিশ্ব ক্যান্সার দিবস আজ

আজ ৪ ফেব্রুয়ারি, বিশ্ব ক্যান্সার দিবস। প্রতি বছরের ন্যায় এ বছরও বিশ্বব্যাপী ক্যান্সার দিবস পালিত হচ্ছে দিবসটি। ক্যান্সার রোগ সম্পর্কে জনসচেতনতা সৃষ্টি এবং এই রোগ প্রতিরোধে সরকারি ও বেসরকারি উদ্যোগকে উৎসাহিত করাই দিবসটি পালনের উদ্দেশ্য। ২০১৬ থেকে ২০১৮ সাল পর্যন্ত বিশ্ব ক্যান্সার দিবসের প্রতিপাদ্য নির্ধারণ করা হয়েছে- 'আমরা পারি-আমি পারি',  “We can, I can”. 

যেসব কারণে ক্যান্সার হয় তার ঝুঁকিগুলোর মধ্যে ধূমপান, পান-জর্দা-তামাকপাতা খাওয়া, সবজি, ফলমূল ও আঁশযুক্ত খাবার কম খাওয়া, শারীরিক ব্যায়াম না করা, শারীরিক স্থূলতা বা বেশি ওজন, আলট্রাভায়োলেট রশ্মি, এক্স-রে রেডিয়েশন, কিছু রাসায়নিক পদার্থ, কিছু ভাইরাস বা অন্যান্য জীবাণু অন্যতম।

বিশ্ব ক্যান্সার দিবসকে সামনে রেখে গতকাল সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করে সেন্টার ফর ক্যান্সার প্রিভেনশন অ্যান্ড রিসার্চ (সিসিপিআর)। 'ক্যান্সার পরিস্থিতি বিশ্লেষণ ও উত্তরণে করণীয়' শীর্ষক এই সংবাদ সম্মেলন সকালে ঢাকা রিপোর্টার্স ইউনিটিতে অনুষ্ঠিত হয়।

জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউটের ক্যান্সার ও ইপিডেমিওলজি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক ও প্রধান ডা. মো. হাবিবুল্লাহ তালুকদার সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্য পাঠ করেন। 

তিনি বলেন, যেকোন দেশে ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণে পরিকল্পনা গ্রহণের জন্য দরকার ক্যান্সারের আক্রান্তের হার, মৃত্যুহার, কারা কোন ক্যান্সারে আক্রান্ত সে সম্পর্কে সঠিক পরিসংখ্যান। তবে আমাদের দুর্ভাগ্য, সরকারের সেক্টর কর্মসূচিতে আমরা এতদিন জনসংখ্যাভিত্তিক নিবন্ধন অন্তর্ভুক্ত করতে পারিনি। ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণ কর্মসূচি প্রণয়ন ও বাস্তবায়ন তদারকির জন্য গঠিত উচ্চ পর্যায়ের 'জাতীয় ক্যান্সার নিয়ন্ত্রণ কাউন্সিল' প্রায় অকার্যকর বলে অভিযোগ করেন তিনি।

দিবসটি উপলক্ষে জাতীয় ক্যান্সার গবেষণা ইনস্টিটিউট ও হাসপাতাল, বাংলাদেশ ক্যান্সার ফাউন্ডেশনসহ সরকারি- বেসরকারি বিভিন্ন প্রতিষ্ঠান রাজধানীর বিভিন্ন স্থানে নানা কর্মসূচি পালন করবে। 

এর মধ্যে রয়েছে শোভাযাত্রা, ক্যান্সারবিষয়ক পোস্টার ও ফেস্টুন প্রদর্শনী, আলোচনা সভা।

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর