ঢাকা      রবিবার ১৫, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৩১, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী

হাসপাতালে শিশু রোগীর ভিড় বাড়ছে

শীত বাড়ার সঙ্গে সঙ্গে ভিড় বাড়ছে ঢাকা শিশু হাসপাতালে। খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, গত এক সপ্তাহে হাসপাতালে আসা শিশু রোগীদের বেশিরভাগই ঠান্ডাজনিত রোগে আক্রান্ত। এর মধ্যে নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া অন্যতম। তবে সর্দি, কাশি, জ্বরও আছে। ঢাকা শিশু হাসপাতাল ও আইসিডিডিআর’বি’র গত ১০ দিনের তথ্য এমন কথাই বলে।

ঢাকা শিশু হাসপাতাল ঘুরে দেখা যায়, ওয়ার্ডের কোন শিশুর সামনে রুম হিটার; আবার কোন শিশুর নাকে-মুখে অক্সিজেন মাক্স লাগানো; কোন শিশুর হাতে স্যালাইন লাগনো। এ বছর ১ জানুয়ারি থেকে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত মোট ৭১ শিশু নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত হয়ে এ হাসপাতালে ভর্তি হয়েছে। আর এ সময়ের মধ্যে ডায়রিয়ায় আক্রান্ত হয়ে একই হাসপাতালে চিকিৎসার নিয়েছে ৭৬ শিশু। আইসিডিডিআর’বি-তে ৭ জানুয়ারি চিকিৎসা নিতে ভর্তি হয় ৩৫৭ জন। ৮ জানুয়ারি এ সংখ্যা বেড়ে দাঁড়ায় ৩৬৫ জনে, ৯ জানুয়ারি ভর্তি হয় ৩৭৬ জন। আর গত ৬ দিনে আইসিডিডিআর’বি-তে ডায়রিয়া রোগি ভর্তি হয়েছে ২ হাজার ২৩১জন।

এদিকে গত বৃহস্পতিবার সকালে শ্যামলী শিশু হাসপাতালে গিয়ে দেখা যায়, শত শত শিশুকে নিয়ে অপেক্ষা করছেন অভিভাবকরা। তারা চিন্তিত, মলিন মুখ। কারণ একটাই তাদের ছোট্ট শিশু সন্তানটি অসুস্থ। এসব শিশুর বেশিরভাগই পাঁচ বছরের কম বয়সি। বহিঃবিভাগের সামনে লম্বা লাইন। কোন শিশুর শ্বাসকষ্ট, কারো ডায়রিয়া, কারো বা সর্দি, কারো জ্বর-কাশি। অভিভাবকদের বেশিরভাগই নিম্ন অথবা নিম্নমধ্যবিত্ত। এসেছেন রাজধানীর ঢাকার বিভিন্ন এলাকা থেকে।

রাজধানীর কচুক্ষেত থেকে এসেছেন রাশিদা বেগম। তার দুই বছর বয়সি মেয়ে আয়েশাকে এখানে ভর্তি করিয়েছেন। পাতলা পায়খানা, বমি আর জ্বর নিয়ে গত শুক্রবার থেকে ভর্তি আছে আয়েশা। আয়েশার নানী ও মা বলেন, ‘বাইচ্চ্যা কিছুই খাইতে চায় না। যাই খায়, তাই বমি করি ফেলে। সাদা পানির ল্যাহান পায়খানা করতে করতে, বাইচ্চ্যা চক্ষু উল্টায়া দিচিলো, বাইচ্চ্যার ঘাড় ভাংগি ভাংগি পড়িচে দেখি, দৌড়াই নিয়া আইচি। এখন একটুকানী ভালো। তয় গায়ে এহনো জ্বর আছে।’ 

শ্যামলীর শিশু হাসপাতালের ওয়ার্ড কিংবা বহিঃবিভাগে এখন প্রতিদিন দেখা যাচ্ছে এমন চিত্র। এ হাসপাতালে গড়ে শিশুরোগী আসছে ১ হাজার করে। এদের মধ্যে বেশিরভাগই বহিঃবিভাগে ডাক্তার দেখিয়ে ব্যবস্থাপত্র (প্রেসক্রিপশন) নিয়ে চলে যাচ্ছে। এর মধ্যে সিভিয়ার রোগি যারা তারাই কেবল ওয়ার্ডে ভর্তি হয়ে চিকিৎসা নিচ্ছে বলে শিশু বিশেষ রা বলছেন।

 

ঢাকা শিশু হাসপাতালের তথ্যঃ

গত ৬ জানুয়ারি থেকে ১০ জানুয়ারি পর্যন্ত ৪ হাজার ৮৮৪ শিশু ঢাকা শিশু হাসপাতালে বহিঃবিভাগে চিকিৎসা নিতে আসে। এর মধ্যে ৬ জানুয়ারি ১০৩৫ শিশু বহিঃবিভাগে চিকিত্সা নিতে আসে, এর মধ্যে বিভিন্ন সমস্যা নিয়ে ভর্তি হয় ৪৯৬ শিশু, নিউমোনিয়া আক্রান্ত ৪ শিশু  ও ডায়রিয়ায় আক্রান্ত ১১ শিশু ভর্তি হয় হাসপাতালে। ৭ জানুয়ারি চিকিৎসা নিতে আসে এক হাজার ৬৭ শিশু। এর মধ্যে ভর্তি হয় ৫০৯ জন, নিউমোনিয়ায় আক্রান্ত শিশু ভর্তি হয় ১৪ জন এবং ডায়রিয়ায় আক্রান্ত শিশু ভর্তি হয় ১২জন। ৮ জানুয়ারি চিকিৎসা নিতে আসে ৮৭৬ শিশু। এর মধ্যে ভর্তি হয় ৫০৭ জন এবং নিউমোনিয়ায় ১০ ও ডায়রিয়ায় ৮ শিশু ভর্তি হয়। ৯ জানুয়ারি ৯৭৭ শিশু চিকিত্সা নিতে আসে, এরমধ্যে ভর্তি হয় ৫০৩ শিশু। নিউমোনিয়ায় ১৩ ও ডায়রিয়ায় ৩জন ভর্তি হয়। ১০ জানুয়ারি চিকিৎসা নিতে আসে ৯৩১ শিশু, এর মধ্যে ভর্তি হয় ৫০৯,  নিউমোনিয়ায় ৬ ও ডায়রিয়ায় ১৫ শিশু ভর্তি হয়।    

ঢাকা শিশু হাসপাতালের অধ্যাপক ডা. ফরিদ হোসেন বলেন, ‘শীতকালে শিশুদের ঠান্ডাজনিত রোগ বেশি হয়। সর্দি-কাশি, ইনফ্লুয়েঞ্জা হতে পারে। আবার এগুলো বেড়ে গিয়ে ব্রংকিওলাইটিস থেকে নিউমোনিয়াও হয়। এটা ব্যাকটেরিয়া দ্বারা হয়। আবার ভাইরাস ইনফেকশন হয়েও হতে পারে। ডা. ফরিদ বলেন, শীতের সময় ডায়রিয়া, পাতলা পায়খানা, বমি নিয়ে শিশুরা বেশি আসে আমাদের কাছে। তবে নিউমোনিয়া ও ডায়রিয়া রোগের প্রকোপ বেশি শিশুদের মধ্যে।

মায়েদের সচেতনতার ব্যাপারে তিনি বলেন, শিশুদের যাতে ঠান্ডা না লাগে সে বিষয়টি দেখতে হবে। শীতে শিশুদের বাইরে বের না করাই ভালো। ঠান্ডা এড়াতে রুম হিটার ব্যবহার করা যেতে পারে। এ সময় ডায়রিয়া, পাতলা পায়খানা, বমি বেশি হয়। এসব রোগ পানির মাধ্যমে হয়। সে কারণে পানি ফুটিয়ে পান করতে হবে। শহরের মায়েরা এসব জানে, গ্রামের মায়েদের এসব সর্তকতা অবলম্বন করতে হবে।

ঢাকা মাতুয়াইল, শিশু ও মাতৃস্বাস্থ্য ইনষ্টিটিউটের রেজিষ্ট্রার ডা. শাহেদ ইমরান বলেন, শীতে শিশুদের নিউমোনিয়ার প্রকোপ বেড়ে যায়, এটা শিশুদের জন্যে সাংঘাতিক একটা রোগ। সময়মত চিকিত্সা না হলে শিশুর মৃত্যুও হতে পারে। এর সঙ্গে আছে ডায়রিয়া, শ্বাসকষ্টজনিত রোগ, শিশুদের এসব কমন রোগ। তিনি বলেন, শীতের শুরুতে আমরা শিশুদের এসব অসুস্থতা এড়াতে কিছু বিষয়ে সচেতন থাকতে বলি। তিনি বলেন, এখন যেহেতু শীতের সর্বনিম্ম তাপমাত্রা  যাচ্ছে, এসময় ছোট শিশুদের বেশি সাবধানে রাখতে হবে। গরম কাপড় পরাতে হবে। দূষিতবায়ূ শিশুদের শ্বাসকষ্টের আরেকটি কারণ। এটা শিশুদের অনেক ক্ষতি হবে। জীবানুর আক্রমণে শ্বাসকষ্ট হতে পারে। আবার বংশগতও শ্বাসকস্ট হতে পারে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


জাতীয় বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

ডেঙ্গুতে জীবন গেল দেশের ১ম লিভার ট্রান্সপ্লান্ট করা সিরাজুলের  

ডেঙ্গুতে জীবন গেল দেশের ১ম লিভার ট্রান্সপ্লান্ট করা সিরাজুলের  

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বিএসএমএমইউ) সফল অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে দেশের…

শীঘ্রই ৫ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর: মহাপরিচালক

শীঘ্রই ৫ হাজার চিকিৎসক নিয়োগ দেবে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর: মহাপরিচালক

মেডিভয়েস রিপোর্ট: স্বাস্থ্য অধিদপ্তরে জনবলের ঘাটতি অনেক আগে থেকেই।  এই সংকট মেটাতে…

চিকিৎসক সংকট: তথ্য জানতে জেলায় জেলায় ৩৯তম বিসিএসে উত্তীর্ণরা

চিকিৎসক সংকট: তথ্য জানতে জেলায় জেলায় ৩৯তম বিসিএসে উত্তীর্ণরা

ভ্রমণকাহিনী শুনলেই দৃশ্যপটে ভেসে ওঠে আনন্দময় কিছু মূহূর্ত। ভ্রমণকে বেছে নেয় সবাই…

এবার খুলনায় চিকিৎসক লাঞ্ছিত, আটক ২

এবার খুলনায় চিকিৎসক লাঞ্ছিত, আটক ২

মেডিভয়েস রিপোর্ট: বরগুনার বামনা উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসক লাঞ্ছিতের রেশ কাটতে না কাটতেই…

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব হলেন ডা. তাহসিনা আফরিন

পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব হলেন ডা. তাহসিনা আফরিন

মেডিভয়েস রিপোর্ট: পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের সিনিয়র সহকারী সচিব পদে (৬ষ্ঠ গ্রেড) পদোন্নতি পেয়েছেন…

কমপাউন্ডার ওসমান বিশেষজ্ঞ ডাক্তার হলেন যেভাবে 

কমপাউন্ডার ওসমান বিশেষজ্ঞ ডাক্তার হলেন যেভাবে 

মেডিভয়েস রিপোর্ট: মো. ওয়াসিম ওসমান ওরফে সৈয়দ ওসমান গণি—চিকিৎসকের কমপাউন্ডার (সাহায্যকারী) হিসেবে…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর