মঙ্গলবার ১৬, জানুয়ারী ২০১৮ - ৩, মাঘ, ১৪২৪ - হিজরী

২০১৭ সালে আড়াই লক্ষাধিক রোগী চিকিৎসা পেয়েছে জয়পুরহাট আধুনিক হাসপাতালে

গত এক বছরে (২০১৭ সালে) ২ লাখ ৬৮ হাজার ৬৭ জন বিভিন্ন রোগীকে চিকিৎসা সেবা প্রদান করা হয়েছে জয়পুরহাট আধুনিক জেলা হাসপাতালে।

হাসপাতাল থেকে জানানো হয়, ২০১৭ সালে সেবা প্রাপ্ত রোগীদের মধ্যে রয়েছে বহি:বিভাগে এক লাখ ৯৭ হাজার ৬৩১ জন, জরুরী বিভাগে ৩৬ হাজার ৭৬৬ জন ও ভর্তি রোগী ৩৩ হাজার ৬৭০ জন। এ ছাড়াও জেলা হাসপাতালে বিভিন্ন ধরনের অপারেশন সেবার মধ্যে রয়েছে সিজারিয়ান সেবা গ্রহীতা হচ্ছে ৮৭০ জন, সার্জারী বিভাগে মেজর অপারেশন ৭৯০ জন, মাইনর এক হাজার ৩৬৭ জন, মেজর অর্থ-সার্জারী ৩৪৮ জন ও মাইনর অর্থ-সার্জারী চার হাজার ৬৫৩ জন। অন্যান্য প্রদানকৃত সেবা গুলোর মধ্যে রয়েছে স্বাভাবিক ডেলিভারী দুই হাজার ৭৭ জন। একই সময়ে ই পি আই কার্যক্রমের আওতায় ৩ হাজার ৫৫ শিশুকে এবং ৩ হাজার ৭৭৬ জনকে জলাতংক রোগের টিকা প্রদান করা হয়েছে।
জেলা হাসপাতাল সূত্র আরও জানায়, ২০১৭ সালে জেলা হাসপাতালের বিভিন্ন সেবা কার্যক্রম থেকে ৫৯ লাখ ৯৭ হাজার ৮৪৭ টাকা আয় করেছে কর্তৃপক্ষ। যা সরকারি কোষাগারে জমা দেওয়া হয়েছে।

হাসপাতালের তত্বাবধায়ক ডা. এফ এম মুছা আল মানছুর জানান, জেলা হাসপাতালে দীর্ঘদিন ধরে শিশু, মেডিসিন ও অর্থ-সার্জারী বিভাগের সিনিয়র কনসালটেন্ট পদ, চক্ষু বিভাগের জুনিয়র কনসালটেন্ট পদ, স্কীন এন্ড ভিডি বিভাগে জুনিয়র কনসালটেন্ট পদ, দুই টি আবাসিক ম্যাডিক্যাল অফিসার ও জরুরী বিভাগে চারটি মেডিক্যাল অফিসারের পদ শূন্য রয়েছে। জেলা হাসপাতালে অবকাঠামো সুবিধাও রয়েছে। কয়েকটি বিভাগে বিশেষজ্ঞ চিকিৎসক নিয়োগ দেয়া সম্ভব হলে জেলা বাসীর চিকিৎসা সেবা আরো নিশ্চিত করা সম্ভব হবে।

তিনি আরো জানান, বর্তমানে একশ শয্যার হাসপাতালের জনবল দিয়ে এ হাসপাতালের কার্যক্রম পরিচালনা করা হলেও চিকিৎসা সেবা উন্নত মানের হওয়ায় গড়ে আড়াইশ রোগী ভর্তি থাকেন সব সময়। জয়পুরহাট জেলা হাসপাতালে বর্তমানে দেড়শ শয্যার ওষুধপত্র সরবরাহ করা হয়ে থাকে বলে জানান ডা. এফ এম মুছা আল মানছুর।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

বার পঠিত



আরো সংবাদ




















ফিজিওলজিক্যাল এনাটমি অফ সিন্যাপস

১৫ জানুয়ারী, ২০১৮ ২৩:৪৬
























জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর