ঢাকা মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর ২০১৯, ৭ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ১২ ঘন্টা আগে
১৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৯:২৪

মডিফাইড ট্রাকিওস্টোমি টিউব-মডেল আবিষ্কার করলো সিওমেক শিক্ষার্থী

মডিফাইড ট্রাকিওস্টোমি টিউব-মডেল আবিষ্কার করলো সিওমেক শিক্ষার্থী

সিলেট প্রতিনিধি: শ্বাসনালীর চিকিৎসার অন্যতম একটি মাধ্যম ট্রাকিওস্টোমি টিউব। অস্ত্রোপচার করে শ্বাসনালীতে (ট্রাকিয়া) স্থাপন করা হয় এ টিউব। ল্যারিঞ্জিয়াল ও হাইপোফ্যারিঞ্জিয়াল কারসিনোমা (ক্যান্সার), এপিগ্লটিস প্রদাহ, দুর্ঘটনাজনিত কারণে শ্বাসনালী কেটে যাওয়া, মেজর হেড-নেক সার্জারি সার্জারি সহ বিভিন্ন কিছু ঘটনায় 'ট্রাকিওস্টোমি' নামক অস্ত্রোপচার করা হয়ে থাকে। এতে শ্বাসনালীতে অস্ত্রোপচার করে ট্রাকিওস্টোমি টিউব স্থাপন করা হয়ে থাকে। তখন নাক-মুখের বদলে গলায় থাকা ওই ট্রাকিওস্টোমি টিউবের মুক্ত প্রান্তের মধ্য দিয়ে শ্বাসপ্রশ্বাস কার্য সম্পাদিত হয়।

ট্রাকিওস্টোমি

 

এ ক্ষেত্রে রোগীকে কিছু প্রতিবন্ধকতার মধ্য দিয়ে যেতে হয়। 

যেমনঃ মশারি ছাড়া ঘুমানো যাবেনা। কারণ মশারি ছাড়া ঘুমালে মশা প্রবেশ করতে পারে টিউবের খোলা প্রান্ত দিয়ে।

মেঝেতে ঘুমানো যাবেনা, এতে করে তেলাপোকা বা ছোটখাটো অন্য কোনো পোকামাড়ের অনুপ্রবেশ ঘটতে পারে ওই খোলা প্রান্ত দিয়ে।

পুকুরে ডুব দিয়ে গোসল করতে পারবেনা। কারণ এতে করে পানির অনুপ্রবেশ ঘটতে পারে। এক্ষেত্রে ফুসফুসে পানি ঢুকে মৃত্যর সম্ভাবনা থাকে।

মাথায় পানি ঢেলে সোজা দাঁড়িয়ে গোসল করতে পারবেনা। এতে করে পানি প্রবেশ করতে পারে ওই খোলা মুখ দিয়ে। এক্ষেত্রে ফুসফুসে পানি ঢুকে মৃত্যর সম্ভাবনা থাকে।

নৌকায় চড়া সম্পূর্ণরূপে নিষিদ্ধ থাকে এসব রোগীদের ক্ষেত্রে। নৌকা উলটে গেলে এক্ষেত্রে ফুসফুসে পানি ঢুকে মৃত্যর সম্ভাবনা থাকে।

এসব বিষয়ের প্রতি লক্ষ্য রেখে কিভাবে ট্রাকিওস্টোমি টিউবকে সম্পূর্ণরূপে রোগীবান্ধব করা যায় তা নিয়ে চিন্তা করতে করতে একটি 'মডিফাইড ট্রাকিওস্টোমি টিউবের' মডেল বানিয়ে ফেললেন সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজের পঞ্চম বর্ষের শিক্ষার্থী মোঃ মুনিফ শাহরিয়ার।

মডিফাইড ট্রাকিওস্টোমি (সম্মুখ দৃশ্য)

 

মেডিভয়েসের পক্ষ হতে তার সাথে যোগাযোগ করা হলে তিনি বলেন, আমাদের শ্রদ্ধেয় শিক্ষক, নাক কান গলা বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডাঃ নূরুল হুদা নাঈম স্যার ক্লাসে যখন ট্রাকিওস্টোমি টিউব ব্যাবহার করা রোগীদের চলা ফেরা ও সীমাবদ্ধতা নিয়ে আলোচনা করলেন তখন হোস্টেলে ফিরে চিন্তা করতে করতে একটা মডেল দাঁড় করাই কাগজ দিয়ে। পরে সেটি নাক কান গলা বিভাগের বিভাগীয় প্রধান অধ্যাপক ডাঃ নন্দ কিশোর সিনহা স্যারের কাছে নিয়ে যাই। স্যার মডেলটি দেখে অনেক খুশি হলেন এবং ওয়ার্ডে উপস্থিত নাক কান গলা বিভাগের সকল স্যারদের ডেকে দেখালেন। পরবর্তীতে সহকারী অধ্যাপক ডাঃ নূরুল হুদা নাঈম স্যার কিছু গঠন পুনর্বিন্যাসের পরামর্শ দেন এবং তাঁর পরবর্তী লেকচারে উপস্থাপনের জন্য মডেলটি নিয়ে একটি 'প্রেজেন্টেশন' তৈরি করতে বলেন। অবশেষে আজ (১৪ ডিসেম্বর) স্যারের লেকচার শেষ হবার আগে স্যার আমায় সুযোগ করে দেন সকল সহপাঠীর সামনে মডেলটি সম্পর্কে বিস্তারিত উপস্থাপনের জন্য।

লেকচার গ্যালারিতে নিজের তৈরি মডিফাইড ট্রাকিওস্টোমি টিউব প্রদর্শন করছেন মুনিফ শাহরিয়ার

 

মডিফাইড ট্রাকিওস্টোমি (পশ্চাৎ দৃশ্য)

 

মডেলটির গঠন ও ব্যাবহারবিধি এরকম-

পানিরোধী একপ্রকার আঠা দ্বারা ফ্ল্যাক্সিবল রাবার টেপ গলার সাথে লেগে থাকবে।

রোগী যখন রাতে ঘুমাবে তখন ডায়াফ্রাম কন্ট্রোলার সরিয়ে এবং সাইড চ্যানেলের মুখ বন্ধ করে ঘুমাবে। এতে করে ফিল্টার প্রান্ত দিয়ে রোগী শ্বাসপ্রশ্বাস ক্রিয়া সম্পাদন করবে। এতে করে ফিল্টারের কারণে কোনো পোকা মাকড় বা মশা অনুপ্রবেশ করতে পারবেনা।

মাথায় পানি ঢেলে গোসলের সময় ডায়াফ্রাম কন্ট্রোলারের সাহায্যে ডায়াফ্রাম বন্ধ করে রাখতে হবে। এতে করে নিচের দিকে হেলানো সাইড টিউবের মাধমে রোগী শ্বাসপ্রশ্বাস ক্রিয়া সম্পাদন করতে পারবে।

ডুব দিয়ে গোসল করতে চাইলে 'সাইড চ্যানেলে' 'ইমার্জেন্সি বেলুন টিউবের সাইড চ্যানেল প্রান্ত' প্রবেশ করিয়ে 'বেলুন বা ভাসমান বস্তু সংযুক্ত প্রান্ত' পানিতে ভাসিয়ে রেখে ডুব দিয়ে গোসল করতে পারবে। এতে করে ভাসমান প্রান্ত দিয়ে রোগী শ্বাসপ্রশ্বাস ক্রিয়া সম্পাদন করবে। এ সময় ডায়াফ্রাম বন্ধ রাখতে হবে। জরুরী প্রয়োজনে একান্তই নৌকা বা লঞ্চ ভ্রমণের প্রয়োজন হলে সেক্ষেত্রে ইমার্জেন্সি বেলুন টিউব কাছে রেখে ভ্রমণ করতে পারবে। তাহলে দুর্ঘটনার পূর্বাভাস দেখা গেলে এই ইমার্জেন্সি বেলুন টিউব সংযুক্ত করে রোগী ফুসফুসে পানির অনুপ্রবেশ হতে রক্ষা পাবে। এক্ষেত্রে যথারীতি নৌকা ভ্রমণের ব্যাপারে রোগীকে সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।

ইমার্জেন্সি বেলুন টিউব

 

নরমাল টিউবের মতো এতে সাকশন ক্লিয়ারেন্স, অক্সিজেন প্রদান, ড্রপারযোগে ঔষধ প্রদানের জন্যও রয়েছে 'সাকশন ও ড্রপার পোর্ট'। যেটি ফিল্টারের মাঝামাঝি অবস্থান করবে। সেক্ষেত্রে ডায়াফ্রাম খোলা রেখে 'সাকশন ও ড্রপার পোর্ট' ব্যাবহার করতে হবে।

মুনিফ শাহরিয়ার বলেন, যন্ত্রটির সীমাবদ্ধতা নিয়ে এখনও চিন্তা ভাবনা চলছে। সীমাবদ্ধতা পেলে সেটি সংশোধন করে শতভাগ সুবিধানুযায়ী ব্যবহারোপযোগী করার ব্যাপারে সর্বাত্মক প্রচেষ্টা করবো। এক্ষেত্রে আমার শ্রদ্ধেয় শিক্ষক অধ্যাপক ডাঃ নন্দ কিশোর সিনহা স্যার ও সহকারী অধ্যাপক ডাঃ নূরুল হুদা নাঈম স্যারের সকল পরামর্শ এতে অন্তর্ভুক্ত করার চেষ্টা করবো। পরিশেষে ধন্যবাদ ও কৃতজ্ঞতা জানাতে চাই উপর্যুক্ত আমার প্রাণপ্রিয় দুই শিক্ষক এবং আমার সকল সহপাঠীদের। যারা পাশে থেকে উৎসাহ ও সাহস যুগিয়েছে।

বিশেষ ধন্যবাদ বন্ধু ইমাম হোসাইন মামুনকে, ইলাস্ট্রেশনের বিভিন্ন কাজে আমায় সহায়তা করার জন্য। আশা করি বাকি থাকা কাজেও তার সহায়তা অব্যাহত থাকবে। সকলের নিকট দোয়াপ্রার্থী।

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত