১৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১০:১৯ এএম

রোহিঙ্গা শিশুদের ডিপথেরিয়ার টিকাদান শুরু

রোহিঙ্গা শিশুদের ডিপথেরিয়ার টিকাদান শুরু

এবার কক্সবাজারে মিয়ানমার সীমান্ত সংলগ্ন ১২টি রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রে টিকা অভিযান শুরু হলো। ছয় সপ্তাহ থেকে ৬ বছর বয়স পর্যন্ত রোহিঙ্গা শিশুদের মাঝে ডিপথেরিয়া ও অন্যান্য রোগ প্রতিরোধে সরকারিভাবে এ টিকা কার্যক্রম চালানো হচ্ছে। টিকা র্কাক্রমে বাংলাদেশ সরকারকে সহযোগিতা করছে ইউনিসেফ, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা ও জিএভিআই (দি ভ্যাক্সিন এলায়ান্স)। 
বর্ধিত এই টিকা কার্যক্রমের আওতায় কক্সবাজার জেলার উখিয়া ও টেকনাফ উপজেলার মোট ২ লাখ ৫৫ হাজার শিশুকে টিকাদান করা হবে। অন্যদিকে সরকার ও স্বাস্থ্য খাতের অন্যান্য অংশিদাররা ডিপথেরিয়ার চিকিৎসাসহ এ রোগ প্রতিরোধে প্রয়োজনীয় সহায়তা অব্যাহত রাখবে। মঙ্গলবার ঢাকায় প্রাপ্ত ইউনিসেফের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ কথা জানানো হয়।

এতে ইউনিসেফের বাংলাদেশের প্রতিনিধি এডুয়ার্ড বেগবেদার বলেছেন, ‘ডিপথেরিয়া রোহিঙ্গাদের মতো সবচেয়ে ঝুঁকির মুখে থাকা জনগোষ্ঠীর মাঝেই বেশি দেখা দেয়; বিশেষ করে যাদের নিয়মিত টিকা দেয়া থাকে না। রোহিঙ্গা ক্যাম্প ও অস্থায়ী আশ্রয়কেন্দ্রগুলোতে শিশুরা যে চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে,এই রোগের বিস্তার তারই ইঙ্গিত। এই পরিস্থিতিতে প্রাণঘাতী এ রোগের হাত থেকে তাদের রক্ষা করতে অবিলম্বে উদ্যোগ নিতে হবে এবং টিকাদান কর্মসূচি এক্ষেত্রে একটি কার্যকর প্রতিরোধক ব্যবস্থা।’

বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়, টিকা কর্মসূচিতে শিশুদেরকে পেন্টাভ্যালেন্ট টিকা দেয়া হবে যা তাদের ডিপথেরিয়া, পারটুসিস, টিটেনাস, হেমোফিলিস ইনফ্লুয়েঞ্জা ও হেপাটাইটিস-বি থেকে রক্ষা করবে। এছাড়া তাদের নিউমোকোকাল কনজুগেট ভ্যাকসিনসহ (পিসিভি) এবং মুখে খাওয়ানো পোলিও টিকাও দেয়া হবে। এই কার্যক্রমে সহায়তা করার জন্য দি সিরাম ইন্সটিটিউট অফ ইন্ডিয়া ৩ লাখ পেন্টাভ্যালেন্ট টিকা বিনামূল্যে সরবরাহ করেছে।

আগামী সপ্তাহে ৭ থেকে ১৫ বছর বয়সী সব রোহিঙ্গা শিশুকে ও ১০ হাজার স্বাস্থ্য ও উন্নয়ন কর্মীদের তিন দফায় টিডি (টিটেনাস ডিপথেরিয়া) দেয়া হবে। এই লক্ষ্যে ৯ লাখ ডোজ টিডি টিকা গত সোমবার দেশে আনা হয়েছে।

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি