০৫ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১১:০৫ এএম

নগর স্বাস্থ্যের ব্যর্থতার দায় নিতে চায় না স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

নগর স্বাস্থ্যের ব্যর্থতার দায় নিতে চায় না স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়

দেশের পিছিয়ে থাকা নগর স্বাস্থ্যসেবার ব্যর্থতার দায় নিতে রাজি নয় স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়। কারণ নগর স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থার দায়িত্ব মূলত স্থানীয় সরকার বিভাগের। সোমবার স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম এই পরিস্থিতির কথা তুলে ধরে নগর স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থাকে স্বাস্থ্য ও পরিবারকল্যাণ মন্ত্রণালয়ের অধীনে দেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। এ সময় মন্ত্রী বলেন, দেশের সার্বিক স্বাস্থ্যসেবার অনেক উন্নতি ঘটলেও পেছনে পড়ে আছে নগর স্বাস্থ্যসেবা ব্যবস্থা। নগরীর দরিদ্র মানুষের স্বাস্থ্যসেবার প্রধান ক্ষেত্র হিসেবে এই কাঠামোটি পুরোপরি কার্যকর হচ্ছে না বলে মনে করেন তিনি। 

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আরবান হেলথের দায়িত্ব ও নেতৃত্ব আমাদের কাছে দেওয়া হোক। আমরা ঠিকই এটাকে কার্যকর করে নগরীর দরিদ্র জনগোষ্ঠীর স্বাস্থ্যসেবাও নিশ্চিত করতে পারব।’

এইডস-এইচআইভি দিবস উপলক্ষে সংবাদ সম্মেলন আহ্বান করা হলেও স্বাস্থ্যমন্ত্রী গত ১৫-৩০ নভেম্বর পর্যন্ত রাশিয়া ও যুক্তরাষ্ট্রে সরকারি কর্মসূচিতে অংশগ্রহণ সম্পর্কে সাংবাদিকদের অবহিত করেন। এ সময় মন্ত্রী তাঁর সফরসঙ্গী স্বাস্থ্যসচিব (স্বাস্থ্য শিক্ষা ও পরিবারকল্যাণ) ফয়েজ আহম্মেদকেও ওই কর্মসূচির বিভিন্ন দিক নিয়ে কথা বলতে বলেন।

অনুষ্ঠানে স্বাস্থ্যসচিব তাঁর বক্তব্যের একপর্যায়ে বিশ্বব্যাংকের শীর্ষ কর্মকর্তাদের সঙ্গে বৈঠকের প্রসঙ্গ তুলে ধরে বলেন, বাংলাদেশে আরবান হেলথ কার্যক্রম কার্যকর হচ্ছে না বলে পর্যবেক্ষণের কথা উপস্থাপন করেছেন বিশ্বব্যাংকের কর্মকর্তারা। এ ছাড়া আরো কিছু বিষয়ে তাঁদের প্রশ্ন ছিল। তাঁরা সব প্রশ্নেরই ব্যাখ্যা দিয়ে তাঁদের আশ্বস্ত করেছেন। সেখানে তাঁরা বাংলাদেশের আরবান হেলথ সিস্টেমটি স্বাস্থ্য বিভাগের হাতে নেই বলে জানিয়েছেন।

সচিবের বক্তব্যের মধ্যেই সাংবাদিকদের প্রশ্নের মুখে স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, ‘আরবান হেলথ নিয়ে বিশ্বব্যাংকের পর্যবেক্ষণের সঙ্গে আমি নিজেও একমত। তাঁরা ঠিকই বলেছেন; আরবান হেলথ সিস্টেম ঠিকভাবে কাজ করছে না। স্থানীয় সরকার বিভাগ অনেক কাজ নিয়ে ব্যস্ত থাকে, তারা সঠিকভাবে আরবান হেলথের দায়িত্ব পালন করতে পারছে না। এমনকি এ কাজে যেসব এনজিও যুক্ত আছে তারাও ঠিকভাবে কাজ করে না। এটা মূলত স্বাস্থ্যের কাজ, তাই আমি বলব, আরবান হেলথের লিড আমাদেরকে—স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়কে দেওয়া হোক। আমরা ঠিকই এটিকে অ্যাকটিভ করতে পারব।’

সংবাদ সম্মেলন মন্ত্রী বলেন, রাশিয়ায় বিভিন্ন কর্মসূচিতে তিনি অংশ নিয়ে বাংলাদেশের স্বাস্থ্য খাতের ব্যাপক অগ্রগতির কথা তুলে ধরেন। এর এক পর্যায়ে সেখানে অংশ নেওয়া মিয়ানমারের স্বাস্থ্যমন্ত্রী তাঁর সঙ্গে দেখা করে জানিয়েছেন—রোহিঙ্গারা তাদের দেশে ফিরে গেলে তাদের স্বাস্থ্যসেবা পুরোপুরি নিশ্চিত করার লক্ষ্যে কাজ চলছে।

এর আগে এইডস-এইচআইভি দিবস উপলক্ষে লিখিত বক্তব্য তুলে ধরেন স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের অতিরিক্ত মহাপরিচালক অধ্যাপক ডা. এহতেশামুল হক চৌধুরী দুলাল। 

 

Add
একজন এফসিপিএস পরীক্ষা উত্তীর্ণ চিকিৎসকের অনুভুতি

পরীক্ষা প্রস্তুতির শেষের কয়েকদিন মেয়ের সাথে দেখা করতে পারিনি

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি
জাতীয় ওষুধনীতি-২০১৬’ এর খসড়ার নীতিগত অনুমোদন

নিবন্ধনহীন ওষুধ লিখলে চিকিৎসকের শাস্তি