ডা. কামরুজ্জামান চৌধুরী

ডা. কামরুজ্জামান চৌধুরী

লেকচারার, উত্তরা আধুনিক মেডিকেল কলেজ


২৬ অক্টোবর, ২০১৭ ০৮:৫৩ এএম

আরে স্যার রাখেন, আমি কত পুরান রুগী

আরে স্যার রাখেন, আমি কত পুরান রুগী

স্যারের চেম্বারে আছি। স্যার এক বয়স্ক রুগী দেখছেন। চেহারা আর কাপড় চোপড়ে আমার কাছে গরিব মনে হল। দেখা শেষে পকেট থেকে ১০০ টাকার কয়েটা নোট (৩-৪ টা হবে) স্যার হাতে গুঁজে দিলেন।

স্যার হেসে বললেন, “আমার ভিজিট কিন্তু ৮০০ টাকা।’’

“আরে স্যার রাখেন, আমি কত পুরান রুগী”

স্যার আমার দিকে তাকিয়ে হেসে বললেন, “ওনার পুরা পরিবার রুগী আমার। টাকা দিতে চায় না, আমিও কিছু বলি না”। 

আমি হেসে বললাম, “জি স্যার, গরিব মানুষ”।

স্যার বিশাল একটা হাসি দিয়ে বললেন, “চাচা গরু কত দিয়ে কিনলেন? আর বড় ভাই কত দিয়ে কিনসে?”

চাচা এইবার হাসি দিয়া কইল, “বড় ভাইয়েরটা ২ লাখ ৫৫ আর আমাদের বাকি তিন ভাইয়েরটা তিনটা ১ লাখ ৮০ কইরা!

আমি জাস্ট হ্যাঁ করে তাকায়ে থাকলাম। 

লোকটা চলে যাওয়ার পরে স্যার বললেন, “মানুষ ফাস্ট ফুডের দোকানে খেয়ে ভাবে কিছু একটা খাইলাম। জামা-জুতা কিনে ভাবে কিছু একটা পাইলাম। কিন্তু ডাক্তার দুই কথা কইয়া, দুই কলম লিখল; আমি কি পাইলাম? আসলে ডাক্তারকে কেউ টাকা দিতে চায় না!” 
... ... ... 

থাক আজকে আর বেশি প্যাচাল পাড়ব না। একটা গল্প দিয়ে শেষ করি।

বিশাল একটা ইংরেজ জাহাজ পন্য নিয়ে পানিতে ভাসার প্রস্তুতি নিচ্ছে। হঠাৎ জাহাজ মালিক খবর পেলেন যে জাহাজের ইঞ্জিন চালু হচ্ছে না। মালিক কর্মচারী সবাই মিলে পুরো ১ দিন চেষ্টা করল কিন্তু কোন ভাবেই চালু করতে পারল না।

মালিকের মাথায় হাত। পন্য না নিয়ে সময় মত জেতে না পারলে বিশাল ক্ষতি হয়ে যাবে। এক কর্মচারী এসে বলল, “স্যার আমি এক বৃধ লোকে চিনি। অনেক দিন ধরে তিনি জাহাজের ইঞ্জিনের কাজ করেন। উনি মনে হয় পারবেন”।

সেই বৃধ লোকের ডাক পড়ল। তিনি ব্যাগ বোঝাই যন্ত্রপাতি নিয়ে ইঞ্জিন রুমে ঢুকলেন। পাঁচ মিনিট ধরে ভাল করে ইঞ্জিন দেখলেন। তারপরে ব্যাগ থেকে হাতুড়ি বের করে ইঞ্জিনের এক জায়গায় সজরে আঘাত করলেন।

ইঞ্জিন চালু হয়ে গেল!

মালিক হতবাক। পুরো এক দিন তারা চেষ্টা করে কিছুই করতে পারল না আর এই বৃধ কিনা পাঁচ মিনিটে শুধু একটা হাতুড়ির বাড়ি দিয়ে চালু করে দিল। ধন্যবাদ দিলেন বৃধকে। বৃধ বললেন, “আমি আমার বিল পরে আপনাকে পাঠিয়ে দিব”। বলে চলে গেলেন।

এক সপ্তাহ পরে জাহাজ মালিকের কাছে বিল আসল, “১০০০০ ডলার”! মালিকের চরম বিস্মিত আর রাগান্বিত হয়ে বিল ফেরত দিয়ে লিখে পাঠালেন, “যৌক্তিক বিল করে আবার পাঠান। পাঁচ মিনিটের কাজ আর একটা হাতুড়ি মারার বিল ১০০০০ ডলার হতে পারে না।”

বৃধ সেই বিলটাই আবার দিয়ে লিখে পাঠালেন, “পাঁচ মিনিট আর হাতুড়ি মারার বিল ২ ডলার আর কোথায় মারতে দিতে হবে সেটা জানার বিল বাকি ৯৯৯৮ ডলার।”
... ... ... 

আমাদের একটা বড় অভিযোগ, ‘ডাক্তার সাহেব পাঁচ মিনিট কথা বলে আর দুই কলম লিখে ১০০০ টাকা নিয়ে গেল। কেমনে কি’?

"জী, স্যার। ওই পাঁচ মিনিট আর দুই কলম লিখার দামটাই ১০০০ টাকা। আর কি লিখতে হবে সেটা জানার দাম কিন্তু নেওয়া হয় না। কারণ ঐটা
... অমুল্য।

 

সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না