ডা. রেদওয়ান বিন আবদুল বাতেন

ডা. রেদওয়ান বিন আবদুল বাতেন

জনস্বাস্থ্য গবেষক

ইউনিভার্সিটি অব আইওয়া


২২ অক্টোবর, ২০১৭ ০৮:২০ পিএম

রোড টু পিএইচডি-২২: অভিজ্ঞতা: রিসার্চ করেছেন কখনো?

রোড টু পিএইচডি-২২: অভিজ্ঞতা: রিসার্চ করেছেন কখনো?

রিসার্চ ডিগ্রি হিসেবে পিএইচডি সবসময় অভিজ্ঞতা চায়। রিসার্চ এক্সপেরিয়েন্স তাই পিএইচডি অ্যাপ্লিকেশানের অন্যতম পূর্বশর্ত হিসেবে প্রায় সবকটি প্রোগ্রামের তালিকায় থাকে।

এখন প্রশ্ন হলো এই অভিজ্ঞতা কেমন হতে হবে? ডাক্তার হিসেবে ক্লিনিক্যাল এক্সপেরিয়েন্স কি অভিজ্ঞতা হিসেবে গণ্য হবে? না সরাসরি পাবলিক হেলথে এক্সপেরিয়েন্স লাগবে? এই এক্সপেরিয়েন্সের দৈর্ঘই বা কতদিনের হবে?

এসব প্রশ্নের আসলে কোন সোজাসাপ্টা উত্তর নেই। একটাই উত্তর আছে। খুব অপ্রিয় সে উত্তরটি হলো ইট ডিপেন্ডস। প্রতিটি কেসে এই ভ্যারিয়েবলটি ফ্লাকচুয়েট করে।

ডাক্তার হিসেবে হাসপাতালে কাজ করার অভিজ্ঞতা অত্যন্ত মূল্যবান। প্রশ্ন হলো এই অভিজ্ঞতাটিকে আপনি কীভাবে আপনার অ্যাপ্লিকেশানে প্রেজেন্ট করবেন।

যেহেতু আপনি পাবলিক হেলথে অ্যাপ্লাই করছেন তাই আপনার হাসপাতালে কাজ করার ক্লিনিক্যাল অভিজ্ঞতাকে পাবলিক হেলথের ল্যাংগুয়েজে মুড়িয়ে পরিবেশন করা - এটা একটা দারুণ অপশন। এজন্য আপনাকে পাবলিক হেলথের কিছু টার্মিনোলজি জানতে হবে যেগুলো আপনি মাস্টার্স এর কোর্সওয়ার্ক এবং থিসিস করার সময় শিখে যাবেন।

আরেকটি উপায় হলো পাবলিক হেলথ রিলেটেড কোন প্রতিষ্ঠানে সরাসরি কাজ করা। প্রচুর এনজিও পাবলিক হেলথের বিভিন্ন প্রজেক্ট ইমপ্লিমেন্ট করছে। তাদের স্টাফ লিস্টে ডাক্তারেরাও আছেন। এসব প্রতিষ্ঠানে কাজ করতে পারেন। অনলাইন জব সাইটগুলতে প্রচুর বিজ্ঞাপন আসে। ব্যক্তিগত পরিচয়ের সূত্র ধরেও কোথাও ঢুকে যেতে পারেন।

আইসিডিডিআরবি, ব্র্যাকে কাজ করতে পারেন। কোন প্রতিষ্ঠানে ইন্টার্নশিপ করতে পারেন। ছোট ছোট প্রজেক্টের অতীব ছোট কোন কাজে পার্টিসিপেট করতে পারেন।রিসার্চের এ বি সি ডি শেখার জন্য এগুলো কাজে আসবে।

কোথাও কোন কাজে বিনা পারিশ্রমিকে অংশ নিতে পারলেও আগ্রহ নিয়ে ছুটে যাবেন। চেষ্টা করবেন এসব কাজের জন্য সার্টিফিকেট জোগাড় করতে। এক দিনের একটি প্রোগ্রামে পারটিসিপেট করেছেন, সেটিরও সার্টিফিকেট জোগাড় করতে চেষ্টা করুন। ছোট ছোট জিনিসগুলোই একসাথে হলে বড় আকার ধারণ করবে।

আপনার সিভিতে এই এক্সপেরিয়েন্সগুলো লিখতে পারেন। এভাবে বলতে পারেন – আমি এই এই প্রতিষ্ঠানের সাথে কাজ করেছি। কী করেছেন, কতদিন করেছেন এগুলো না বলে এভাবে এক কথায় কাজ সারতে পারেন।

মেডিকেল কলেজে লেকচারারগিরির অভিজ্ঞতাকে কীভাবে বর্ণনা করবেন? আপনি কয়েকশ ছাত্র-ছাত্রী পড়াইয়াছেন, কঠিন আইটেম লইয়া উহাদের বারোটা বাজাইয়াছেন – এভাবে বললে কাজ হবে না হয়তো।

বরং এভাবে বলুন – আমি অমুক প্রফেসরের সহকারী হিসেবে টিচিং অ্যাসিসটেন্টের কাজ করেছি। প্রফেসরের লেকচার প্রস্তুতিতে সাহায্য করেছি। প্রফেসরের পাবলিকেশনের জন্য জার্নাল ঘাঁটাঘাঁটি করেছি। মোটকথা কামলা হিসেবে আমি যথাযথ যোগ্যতা অর্জন করিয়াছি। এই কামলার জীবন আমি আপনার ডিপার্টমেন্টেও দীর্ঘায়িত করিতে ইচ্ছুক ইত্যাদি ইত্যাদি।

প্রেজেন্টেশান ইজ ভাইটাল। পাবলিক হেলথে অনেক অভিজ্ঞতা অর্জন করাটা আপনার কাজ নয়। অর্জিত অভিজ্ঞতাকে অ্যাডমিশান কমিটির সামনে তাঁদের পছন্দের মোড়কে উপস্থাপন করাটাই আপনার কাজ। সে অভিজ্ঞতা অর্জনে কাজ করে যান।

ডিসক্লেইমার

পূর্ববর্তী পর্ব: রোড টু পিএইচডি-২১: মাস্টার্সের থিসিস হলো মূল চাবি

পরবর্তী পর্ব: রোড টু পিএইচডি-২৩: জার্নাল পাবলিকেশান

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত