ঢাকা      শুক্রবার ১৪, ডিসেম্বর ২০১৮ - ৩০, অগ্রাহায়ণ, ১৪২৫ - হিজরী



ডা. রেদওয়ান বিন আবদুল বাতেন

জনস্বাস্থ্য গবেষক

ইউনিভার্সিটি অব আইওয়া


রোড টু পিএইচডি-১৫: IELTS নাকি TOEFL

স্কোরিং হয় 9.00 তে। চারটি কম্পোনেন্ট পার্ট আলাদা আলাদাভাবে 9 এ স্কোর করে তারপর গড় করা হয়। TOEFL এর স্কোরিং হয় 120 এ। 30 মার্ক এর প্রতিটি সেকশন এর মার্ক যোগ করে স্কোরিং করা হয়। ওয়েবসাইটে প্রতিটির মার্কিং ব্যাখ্যা করে আলাদা আলাদা ফাইল আছে।

স্বাভাবিকভাবে প্রথমে ওয়েবসাইটে গিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলে রেজিস্ট্রেশন করতে হবে। TOEFL এর সব কাজ বাসায় বসেই করতে পারবেন, ক্রেডিট কার্ড থাকলে পেমেন্টও করে ফেলতে পারবেন। IELTS এর জন্য কিছু স্টেপ বেশি আছে। ব্রিটিশ কাউন্সিল বা নির্ধারিত সেন্টারে পাসপোর্ট আর টাকা নিয়ে গিয়ে তারপর রেজিস্ট্রেশন করতে হয়।

প্রস্তুতির জন্য নীলক্ষেতে সব বই পাওয়া যায়। সিডিসহ বই কিনে ফেলবেন। IELTS এর জন্য Cambridge এর ৯টি বইয়ের সেট পাওয়া যায়। TOEFL এর জন্য ETS আর Barrons এর বই পাওয়া যায়, এগুলোই মনে হয় যথেষ্ট। আরও অনেক বই পাওয়া যায়। আপনার প্রয়োজনমত কিনতে পারেন।

দু’টো পরীক্ষার জন্যই Yotube এ প্রচুর Tutorial Video আছে। জাস্ট পরীক্ষার নাম আর কম্পোনেন্ট লিখে সার্চ দিন। এত ভিডিও আসবে যে দেখে কুলিয়ে উঠতে পারবেন না।

পুরো এক্সামের ফরম্যাটে স্পিকিং কিভাবে হয়। তার ভিডিও পাবেন। প্রচুর লিসেনিং এর অডিও ক্লিপ পাবেন। এগুলো শুনে নিজের কানকে শাণিত করে ফেলুন। বিশেষ করে IELTS এর জন্য বৃটিশ উচ্চারণ আয়ত্তে আনতে চাইলে এই অডিও ক্লিপগুলো আপনাকে অনেক হেল্প করবে।

রেডিওতে বিবিসি-ইংলিশ শুনতে পারেন। আপনার পাশে বসে থাকা বন্ধুটি হেডফোনে গান শুনবে, আর আপনি আঁতেলের মতো বিবিসি শুনবেন। ইচ্ছের জোরের আরেকটি পরীক্ষা দিয়ে দিচ্ছেন কিন্তু এখানেই।

রিডিং এর জন্য প্রচুর পেপার, নভেল ইত্যাদি পড়তে হবে। নিয়মিত ইংরেজি নিউজ সাইটে ঢুকে আর্টিকেল পড়াটা প্র্যাক্টিসের জন্য গুরুত্বপূর্ন। ভোকাবুলারি ইম্পর্টেন্ট কিন্তু GRE’র মত এত গুরুত্বপূর্ণ নয়।

আসলে সারা জীবন ধরে ইংরেজিতে যে দক্ষতা গড়ে উঠেছে তার থেকে খুব একটা অন্যরকম কিছু আপনি করতে পারবেন না – এমনটাই অধমের মনে হয়েছে। প্র্যাকটিস করে নিজের প্রস্তুতিকে শাণিত করতে পারেন এতটুকুই। অনেক দিন ধরে প্র্যাকটিস করলে স্কোর আশাতীত বেড়ে যেতেও পারে।

অধম পরীক্ষার আগের ১ সপ্তাহ কেবল Harry Potter এর ম্যুভি সিরিজ দেখে কাটিয়েছিল। কেন এই কর্ম করেছিল জানা নেই। পড়তে ভালো লাগছিল না, আর খুব Harry Potter দেখতে ইচ্ছে করছিল। সবচেয়ে সহজ ব্যাখ্যা হয়তো এটাই।

ডিসক্লেইমার

পূর্ববর্তী পর্ব: রোড টু পিএইচডি-১৪: GRE ভীতি

পরবর্তী পর্ব: রোড টু পিএইচডি-১৬: SOPHAS-এর মাধ্যমে অ্যাপ্লাই

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর