২৫ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০১:১২ পিএম

দুর্গন্ধের জন্য চট্টগ্রাম নগরে হাঁটা যায় না

দুর্গন্ধের জন্য চট্টগ্রাম নগরে হাঁটা যায় না

গৃহায়ন ও গণপূর্তমন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, চট্টগ্রাম নগরে দুর্গন্ধের জন্য হাঁটা যায় না। নোংরা ময়লাগুলো সব পড়ে থাকে রাস্তায়। গতকাল রোববার চট্টগ্রামের একটি হোটেলে বিশ্বব্যাংক আয়োজিত সেমিনারে তিনি এ মন্তব্য করেন। নগরের পরিবহন মাস্টারপ্ল্যান নিয়ে এ সেমিনারের আয়োজন করা হয়। 

গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, 'চট্টগ্রাম দ্বিতীয় বৃহত্তম শহর; কিন্তু কোনো স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট নেই। স্যুয়ারেজের সব বর্জ্য ড্রেন দিয়ে কর্ণফুলী নদীতে ফেলা হচ্ছে। ভাগ্য ভালো কর্ণফুলী নদীতে জোয়ার-ভাটা ছিল, নয়তো বুড়িগঙ্গার মতো নাকে রুমাল চেপে পার হতে হতো।'

তিনি বলেন, 'ঢাকায় ৬ হাজার ৬৬৩টি ফ্ল্যাট করেছে গণপূর্ত বিভাগ। সবগুলোতে নিজস্ব স্যুয়ারেজ ট্রিটমেন্ট প্ল্যান্ট ও সলিড ম্যানেজমেন্ট সিস্টেম রয়েছে। সিডিএর 

অনন্যা আবাসিক এলাকায়ও নিজস্ব ব্যবস্থায় করা হবে। আগামীতে যতগুলো প্রকল্প হবে সবগুলো নিজস্ব ব্যবস্থায় বর্জ্য ব্যবস্থাপনা করা হবে। সিটি করপোরেশন কখন ময়লার জন্য আসবে, তাদের ওপর আর ভরসা করব না।'

গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, 'ঢাকায় অনেক পার্ক আছে। কিন্তু চট্টগ্রামে সে তুলনায় কোনো পার্ক নেই। খোলা জায়গায় নিঃশ্বাস ফেলার জায়গা নেই। চট্টগ্রামে পার্ক করতে চাইলেই বাধা আসে। প্রথমবার মন্ত্রী হওয়ার পর ডিসি হিলে পার্ক করেছি। এবার যখন জাতিসংঘ পার্ককে আধুনিকায়নের প্রকল্প নিয়েছি সিটি করপোরেশন আপত্তি দিয়েছে। সেটাও করতে দেবে না। তারা নাকি বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান করবে সেখানে। সড়ক থেকে হকার তুলে দেওয়ার দাবি জানিয়ে গণপূর্তমন্ত্রী বলেন, হকারদের জন্য হকার মার্কেট করা হয়েছে। এটা আমাদের নেতারা দখল করে আছে। 

চট্টগ্রাম সিটি করপোরেশনের প্যানেল মেয়র চৌধুরী হাসান মাহমুদ হাসনী সেমিনারে বলেন, 'সিটি করপোরেশনের প্রতিনিধি হিসেবে গণধোলাই দেওয়ার জন্য হয়তো ডাকা হয়েছে এ অনুষ্ঠানে। মন্ত্রীর বক্তব্যে মনে হয়েছে এই নগরে সিটি করপোরেশনের কোনো প্রয়োজন নেই। বর্তমান মেয়র আ জ ম নাছির উদ্দীন দায়িত্ব নিয়েছেন আড়াই বছর হয়েছে। এই সময়ে ৫০ বছরের কাজ হয়েছে। তিনি বলেন, সিটি করপোরেশন রাজনীতির শিকার।'

তিনি বলেন, 'চট্টগ্রাম নগর আগের তুলনায় অনেক পরিচ্ছম্ন। মন্ত্রী কি নিউমার্কেট ও রিয়াজউদ্দিন বাজার যাননি। সেখানে এখন কোনো হকার নেই। জাতিসংঘ পার্ক নিয়ে মন্ত্রীর সঙ্গে একটা সমস্যা হয়েছে। এর আগে তো মনজুর আলম মেয়র ছিলেন। তখন সেই পার্কে সুইমিংপুল করা হলো। সে সময় তো কিছু বললেন না তিনি।' এ সময় মন্ত্রী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন না। 

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য রাখেন সিডিএ চেয়ারম্যান আবদুচ ছালাম, সিডিএর প্রধান নগর পরিকল্পনাবিদ শাহীনুল ইসলাম খান, বিশ্বব্যাংকের প্রকল্পের টিমলিডার শিগিউকি সাকাকি ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠান ই-জেনের প্রতিনিধি ডেভিড ইংহাম। অনুষ্ঠানে চট্টগ্রাম নগরের ট্রাফিক ব্যবস্থা নিয়ে করা জরিপের বিভিম্ন দিক তুলে ধরেন বিশ্বব্যাংক ও পরামর্শক প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিরা।

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত