ডা. মোঃ মাকসুদ উল্যাহ্‌

ডা. মোঃ মাকসুদ উল্যাহ্‌

চিকিৎসক, ঢাকা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতাল


২১ অগাস্ট, ২০১৭ ১১:১১ পিএম

"আমার প্রেশারটা দেখেন তো"

আমার প্রেশারটা দেখেন তো

ডাক্তারকে আপনার সমস্যা এবং কষ্টের কথা বলুন।

কখনোই বলবেন না, "আমার প্রেশারটা দেখেন তো"।

জ্ঞানী লোকেরা এটা বুঝতে পারে যে, এভাবে কথা বলা সভ্যতা এবং আদবের লঙ্ঘন।

কারন, আপনি কখনোই নিচের প্রশ্নগুলোর উত্তর দিতে পারবেন নাঃ

১. প্রেশার কাকে বলে? কত প্রকার ও কি কি? এর মধ্যে কোন প্রকারেরটা দেখতে হবে?

২. প্রেশার ছাড়া আর কি কি দেখা যাইতে পারে? রোগীর কি কি কষ্ট হলে প্রেশার দেখতে হয়? আর কি কি সমস্যা হলে প্রেশার না দেখে বরং অন্য বিষয়গুলো দেখতে হয়?

৩. সেগুলো বা সেগুলোর কোনোটা না দেখে কেন শুধু প্রেশারটা দেখতে হবে?

৪. প্রেশার দেখার পর ডাক্তার যদি আপনাকে জিজ্ঞাসা করে, "প্রেশার তো দেখলাম , এখন কি করবো?" তখন আপনি ডাক্তারকে কি নির্দেশনা দেবেন?

৫. প্রেশারের মধ্যে কি সমস্যা আছে বলে আপনি মনে করেন যে কারনে আপনি ডাক্তারকে প্রেশার দেখতে আদেশ করলেন? সেটার সমাধান কি তাহলে?

দেখা যাবে আপনি এগুলোর কোনোটারই উত্তর দিতে পারতেছেন না! মনে রাখবেন, এ ধরনের আচরন ডাক্তারকে আদেশ করার শামিল। রোগী বা রোগীর স্বজন হয়ে ডাক্তারকে এ ধরনের আদেশ করা বেয়াদবী এবং সভ্যতার খেলাপ।

প্রেশার মাপতে হবে না কি করতে হবে ডাক্তার নিজেই বুঝবেন। সেটা যদি আপনিই বুঝেন বা আপনিই বলে দিতে পারেন; তাহলে ডাক্তার বলে দুনিয়াতে আলাদা কিছু থাকতো না। রোগীর কাজ হচ্ছে তার চলমান কষ্টের কথা ডাক্তারকে বলা। তারপর কি দেখতে হবে , নাকি কিছুই দেখতে হবে না; সেটা ডাক্তারই ভালো বুঝবেন! আশা করি বুঝতে পেরেছেন!

অবশ্য বেকুব লোকেরা বলবে, "অমুকের পুতে ডাকতর অইয়া এহেঙ্কার কত্তেআছে! হগলেরে বেয়াদপ কয়!"

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত