ঢাকা      শুক্রবার ১৯, জুলাই ২০১৯ - ৪, শ্রাবণ, ১৪২৬ - হিজরী



নাজমুল হোসাইন

ইন্টার্ন চিকিৎসক, গণস্বাস্থ্য মেডিকেল কলেজ। 


স্ট্রোক ঝুঁকি পুরুষের কমলেও বাড়ছে নারীর

সাম্প্রতিক বছরগুলিতে স্ট্রোকের ঘটনার সংখ্যা কমেছে, কিন্তু এটা কেবল পুরুষদের মধ্যে।

গবেষকরা ১৯৯৩ থেকে ২০১০ পর্যন্ত চারটি পর্বের মধ্যে ওহিও ও কেনটাকিতে পাঁচটি কাউন্টিতে স্ট্রোকের ঘটনাগুলি অধ্যয়ন করেন ।এই অধ্যয়নে তারা মোট ৭ হাজার ৭শ’ ১০জন স্ট্রোক রোগী পান, যার ৫৭ দশমিক ২ শতাংশ ছিল নারী। বয়স এবং জাতি সমন্বয় করার পরে তারা দেখতে পান যে, ২০১০ সালে পুরুষদের মধ্যে প্রতি হাজারে স্ট্রোকের রোগী ১৯৯৩-৯৪ সালের ২৬৩ জন থেকে হ্রাস পেয়ে ১৯২ জন হয়েছে । কিন্তু ২০১০ সালে নারীদের ক্ষেত্রে এই হার ছিল প্রতি হাজারে ১৯৮ জন,যা ১৯৯৩-৯৪ তে ২১৭ জন ছিল, যা ছিল একটি পরিসংখ্যানগত অবান্তর পরিবর্তন।

বেশীরভাগ পার্থক্য ইশকেমিক স্ট্রোকের মধ্যে ছিল, সবচেয়ে সাধারণ কারণ, যা মস্তিষ্ককে রক্ত সরবরাহের নালী ব্লক হয়ে যাবার কারণে হয়ে থাকে।

কেউ জানে না যে কেন নারীদের কোন উন্নতি হয়নি। কিন্তু ব্রাউনের ইমার্জেন্সি মেডিসিনের সহকারী অধ্যাপক ডা ট্রেসি ই ম্যাডেন বলেন, পুরুষদের তুলনায় কিছু ঝুঁকিপূর্ণ কারণ নারীদের উপর শক্তিশালী প্রভাব রেখেছে। স্ট্রোকের ঝুঁকির কারণগুলি হলো উচ্চ রক্তচাপ, হৃদরোগ, ডায়াবেটিস এবং ধূমপান ।

"হয়তো আমরা মহিলাদের মধ্যে ঝুঁকির বিষয়গুলি সমানভাবে নিয়ন্ত্রণ করছি না। বা হয়তো এই ঝুঁকির কারণ নারী বনাম পুরুষদের মধ্যে জৈব পার্থক্য।" কোনও ক্ষেত্রে, ডঃ ম্যাডসেন বলেন, "নারীদের জন্য এটা জানা জরুরী যে তারা স্ট্রোকের ঝুঁকিতে রয়েছে। স্ট্রোককে পুরুষের রোগ হিসেবে বিবেচনা করা হলেও আমরা এখন জানি যে এটি মহিলাদের মধ্যে বেশি প্রচলিত এবং এতে তাদের জন্য উচ্চ প্রতিবন্ধকতা এবং মৃত্যু ঝুঁকি রয়েছে।

সূত্র: নিয়র্ক টাইমস, ৯ই আগস্ট, ২০১৭

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর