ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ৪৫ মিনিট আগে
ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী

ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী

মেডিকেল অফিসার, রেডিওলোজি এন্ড ইমেজিং ডিপার্টমেন্ট,

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বরিশাল।


১০ অগাস্ট, ২০১৭ ১০:১৫

ডাক্তারদের হেনস্থা করতেই চরিত্রহীনতার অভিযোগ

ডাক্তারদের হেনস্থা করতেই চরিত্রহীনতার অভিযোগ

এ আর নতুন কি? যুগ যুগ ধরেই সবলের উপর দুর্বলের নির্যাতন চলে আসছে। আর এই সময়ের বাংলাদেশে চলছে সৎ মানুষের উপর অসৎ মানুষের অত্যাচার! শিক্ষিতদের উপর অশিক্ষিতদের অত্যাচার! ভদ্রদের উপর অভদ্রদের অত্যাচার! শান্তিকামীদের উপর সন্ত্রাসীদের অত্যাচার!

মেডিকেল প্রফেশনে এক নতুন অত্যাচার শুরু হয়েছে। ডাক্তারদের উপর বিশেষ করে পুরুষ ডাক্তারদের হেনস্থা করার জন্য চরিত্রহীনতার উপাধি। আমি বলছি না, দেশের সব পুরুষ ডাক্তার সাধু পুরুষ। কিন্তু ডাক্তারদের হেরাজ করার জন্য এই চরিত্রহীনতার অস্ত্র ব্যবহার চরম নীতিহীন এবং অগ্রহনযোগ্য একটি বিষয়।

সম্প্রতি নিউজ পোর্টালে আসা বরিশালে এক অর্থোপেডিক্স সার্জনের বিরুদ্ধে দায়ের করা ধর্ষন চেষ্টার মামলা আর কিছু ডাক্তার হেটারদের সেই খবর প্রচার করার চেষ্টা আমাকে অবাক করল! স্বামী ছেলেকে বাইরে রেখে একাকী বিশ বয়স্কা তরুনী ডাক্তারের রুমে ঢুকলে তাকে নাকি অমর্যাদা করার চেষ্টা করা হয়। বাদীকে খুব দেখতে ইচ্ছে করছে সে কি এমন ঐশ্বরিয়া রাই যে, ঘরে সুন্দরী বউ থাকতে চেম্বার টাইমে ডাক্তার একা অপেক্ষা করছিল রুগীনির?

দেশে এমন কোন পুরুষ সার্জন আছে যে, নারী রুগীকে একা রুমে এলাউ করবে এমন দুরাশা নিয়ে! খুব খারাপ ভাবে বলতে হয়, এই মামলা যে একান্তই অর্থ আদায়ের উপলক্ষ্য তা সকলের কাছে পরিষ্কার। তবু এই হীনতা আর কতদিন?

চট্রগ্রামে ডাক্তারের বিরুদ্ধে ছাত্রীর অভিযোগ ভিত্তিহীন প্রমানিত হয়েছে। আদদ্বীন হাসপাতালের ইন্টার্ন এর অভিযোগও মিথ্যা বলে জানলাম। সাতক্ষীরাতে ডা. শম্পা রানীকে হেনস্থা করার জন্য চরিত্রহীনতার অপপ্রচার প্রধানমন্ত্রীর ও টনক নাড়িয়ে দিয়েছিল।

তাই চিকিৎসা পেশার মত মহান পেশা থেকে এই সকল হীনমন্যদের কারনে ডাক্তাররা কি তবে অবসর নিয়ে নেবে? আজ! এক্ষুনি! না কি আপনারা এই হীনমন্যতা বদলে মানুষের মত আচরন করবেন। ডাক্তারদের বলব, ভুল শিক্ষা আর নীতিহীন এই বাংলাদেশে আপনারা অবিশ্বাসী হোন। সতর্কতা বাড়ান। সচেতন থাকুন যাতে করে আর কোন পশু যেন আপনার চরিত্রে কালিমা লেপন করতে না পারে।

যে পরিবারকে সময় না দিয়ে দিন রাত আপনি রোগীর চিকিৎসা দেন, কোন এক দুবৃত্ত রোগীর দেয়া মিথ্যা অভিযোগে আপনার সেই পরিবার আর পরিবারের বাবা, মা, স্ত্রী, সন্তান, পরিজনের জীবন যেন নরকে পরিনত না হয় !!!

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত