ঢাকা      বুধবার ২১, অগাস্ট ২০১৯ - ৫, ভাদ্র, ১৪২৬ - হিজরী



অধ্যাপক ডা. রাশিদা বেগম

ইনফার্টিলিটি বিশেষজ্ঞ


এক বাংলাদেশির উদ্ভাবনীর ফল পাচ্ছেন হাজার-লক্ষ প্রসূতি

বাড়ীর গরু দরজার ঘাস খায় না।

এই প্রবাদটি বিশ্বের অন্য কোন দেশের বেলায় প্রযোজ্য না হলেও বাংলাদেশের জন্য শতভাগ প্রযোজ্য।

জনৈক ভদ্রলোক তার শ্বশুরবাড়ী গিয়ে খাবার টেবিলে সম্বন্ধীর স্ত্রীকে বললেন "ভাবী আচারটাতো খুব মজার"। জবাবে ভাবী বললেন, " কেন তোমার বাড়ীতে নেই"? ভদ্রলোক: কোথা থেকে থাকবে, আপনি কি দিয়েছেন আমাকে? ভাবী: না দেব কেন? আমিতো তোমার বাড়ী থেকেই নিয়েছি।

জনৈক সাংবাদিক কেনিয়াতে গিয়ে পি পি এইচ ম্যানেজমেন্ট এ মুগ্ধ হয়ে বলল, বাহ্ দারুনতো! এ্যানি মুলিঞ্জ অবাক হয়ে বলল, কেন তোমাদের ওখানে করে না? সাংবাদিক: কি করে করবে, তুমি কি শিখিয়েছ ওদের? মুলিঞ্জ: বল কি? আমি কেন ওদের শিখাব? আমিইতো শিখেছি তোমাদের ডাক্তারদের কাছে। সাংবাদিক হা।

কনডম কাহিনী: আমি তখন সায়েবা ম্যাডামের সহকারী অধ্যাপক। একদিন সায়েবা ম্যাডাম বললেন, " আচ্ছা কনডমের ভিতরে পানি ঢুকালে কনডম কতখানি এক্সপ্যান্ড করবে? ফ্লাসব্যাকে মনে পরল গ্রামে বাচ্চারা ফ্যামিলি প্লানিং এর ফ্রী কনডম দিয়ে বেলুন বেলুন খেলত। ফুঁ দিয়ে যে ফুলাত তা মনে হোত ভালই রেজিস্ট্যান্ট। ম্যাডামকে বললাম সেই উদাহরন। সাথে সাথেই প্রাকটিক্যালি দেখা যে কতখানি পানিতে কনডম কতটা রেজিস্ট্যান্ট থাকে। ফেটে না যায়। তথৈবচ।

 

কেন এই প্রচেষ্টা?

প্রসবোত্তর রক্তক্ষরনরোধে জরায়ুর সাইনাসগুলোকে প্রেসার দিয়ে রাখার জন্য ব্যবহার করা হোত Bakri ballon, Sengstaken- Blackmore oesophsgeal catheter, urological Rush ballon নামে কতগুলো বেলুনসদৃশ ডিভাইস, যেগুলো ব্যয়বহুল। তাই তারই অল্টারনেটিভ হিসেবে এই প্রচেষ্টা। যা অতিশয় স্বল্পখরচে ব্যবহারযোগ্য।

শুরু হোল ট্রায়াল। ম্যাডামের আইডিয়া নিয়ে রিসার্চের সব কাজ করলাম শুধু একটি ইউনিট এ। ২৭টি কেস সাকসেসফুলি করার পরে পেপার লিখলাম। নানান সওয়াল জবাবের পরে মেডসকেপ জেনারেল মেডিসিনকে কনভিন্সড করতে সমর্থ হলাম। ২০০৩ সালে পাবলিশড হোল। Use of condom in the control of massive postpartum hemorrhage. Medscape General Medicine 2003; 5(3):38. গুগলে টাইটেল লিখে সার্চ দিলেই চলে আসে। মেডসকেপে এটি একটি ফ্রী আর্টিকেল। রিসার্চ গেটে আমার বহুল পঠিত আর্টিকেলের মধ্যে এটি অন্যতম। পড়ে দেখবেন।

২০০৩ সাল থেকে বাংলাদেশে হাজার লক্ষ প্রসূতি এই উদ্ভাবনীর ফলাফল পেয়ে আসছেন।

কোন কিছুর রিকগনিশনে আমাদের যথেষ্ঠ কার্পন্য আছে বলেই বেশিজন জানে না। সব স্টুডেন্টরা জানে, কিন্তু প্রবর্তক এর নাম জানে না। কেননা যিনি পড়ান তিনি ভুলেও বলেননা এ কাহিনী। অথচ এটি বহির্বিশ্বেও সমাদৃত। তারই উদাহরন কেনিয়া। এটি Sayeba's method বলেও পরিচিত।

কনডম ক্যাথেটার মেইল ইনকন্টিনেন্সে এ ব্যবহার হয়। এক্সটারনাল ক্যাথেটার। দু'টো জিনিশ এক নয়।

 

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর