ডা. তরফদার জুয়েল

ডা. তরফদার জুয়েল

অনারারি মেডিকেল অফিসার, ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল। 


০২ অগাস্ট, ২০১৭ ১১:৪২ পিএম

কনডম বনাম কনডম ক্যাথেটার

কনডম বনাম কনডম ক্যাথেটার

আমি এমবিবিএস পাশ করে ২০১৩ সালে যখন রাজশাহী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ইন্টার্নশিপ করি, তখনকার ঘটনা-

★ঘটনা ১-

সার্জারি ওয়ার্ডে একজন বয়স্ক পুরুষ রোগি এসেছেন। সমস্যা হল তার প্রসাবের কন্ট্রোল নাই, সবসময় টিপটিপ বৃষ্টির মত এট্টু এট্টু করে প্রসাব হয়, কাপড় ভিজে যায়। প্রসাবের রাস্তায় নল লাগানোয় ( ক্যাথেটার করা) ঝামেলা হচ্ছে। অপারেশন হবার আগ পর্যন্ত কী করা যায়? ইন্টার্ন চিকিৎসকরা ভাবছে। ওয়ার্ডের সিএ (সহকারী রেজিস্ট্রার) এসে হাসতে হাসতে সহজ একটা সমাধান দিলেন- "কনডম ক্যাথেটার লাগাও"। রোগীর ছেলেকে স্লিপ লিখে দেয়া হল-"কনডম ক্যাথেটার"।

রোগির ছেলে দোকান থেকে খালি হাতে ফেরত এসে ডাক্তারদের উপর চোখ গরম- কি! আমার বাবা এত অসুস্থ, আর ডাক্তাররা বাবার সাথে মস্করা শুরু করছে!

ঘটনা কী?

ঘটনা হল- ছেলে দোকানে গিয়ে স্লিপ দেখানোর পর দোকানি মুচকি হাসি দিয়ে কইছে- কার জন্য লাগব? আপনার জন্য? কনডম নিয়ে কী করবেন, নিজের ঝামেলা, বউরে পিল খাওয়ান, ঝামেলা নাই। ছেলে বলছে- আমার বাবা অসুস্থ, ডাক্তার তার জন্য লিখে দিছে। দোকানি হাসি দিয়া কইছে- আপনার বাবা এই বয়সে কনডম কি করব?

বোঝা গেল ছেলে কেন রাগছে। এবার ছেলেকে সিএ এসে সবকিছু বুঝিয়ে দিলেন- কনডম আর কনডম ক্যাথেটার যে এক জিনিশ না, এইটা বুঝানো হল। কনডম ক্যাথেটার কেন দরকার, তাও বুঝানো হল। কনডম ক্যাথেটার সব ফার্মেসীতে পাওয়া যায় না। তাই এবার তাকে সার্জিকালের দোকানের ঠিকানা লিখে দেয়া হল। অবশেষে সমস্যার সমাধান হল।

★ঘটনা ২-

গাইনীর অপারেশন থিয়েটার।

রোগিণী সন্তান প্রসব করার পর জরায়ু থেকে রক্ত ক্ষরণ বন্ধ হচ্ছে না। রক্ত ঝরতে ঝরতে রোগি সাদা কাগজের মত সাদা হয়ে গেছে। অপারেশন টেবিলে তোলার পর সবকিছু দেখেশুনে বোঝা গেল- রোগিণীর গর্ভাবস্থায় জরায়ুর ফুল ছিল জরায়ুর মুখে কিন্তু গর্ভাবস্থায় একটা আল্ট্রাসনোগ্রাফিও করা হয় নি, ডাক্তার দেখায় নি, রোগ সনাক্ত হয় নি। বাড়িতে প্রসব করিয়ে যখন রক্তক্ষরণ বন্ধ হচ্ছে না, তখন তারা হাসপাতালে এসেছে।

যেহেতু সন্তান প্রসব হয়ে গেছে, সেহেতু এখন পেট না কেটে, জরায়ু না কেটে কিভাবে সমস্যার সমাধান করা যায়? সমাধান- কনডম ক্যাথেটার।

স্বামীকে স্লিপ লিখে দেয়া হল। কিন্তু স্বামী বেচারা ফিরে এসেছে একটা ইঞ্জেকশন আর ৪ টা ট্যাবলেট নিয়ে। ডাক্তারতো স্বামীকে প্রথমে ঝারি দিলেন যে, আপনার বউ গুরুতর অসুস্থ আর আপনাকে যা আনতে বললাম, তা না নিয়ে এসে কী এনেছেন এসব? স্বামীর উলটা ঝারি - কনডম লিখে দিছেন ক্যান? কনডম কি মেয়েরা ব্যবহার করে? দোকানদার তো ঠিক ওষুধই দিছে।

বোঝা গেল দোকানদার পন্ডিত, স্বামীটাও পন্ডিত।

এরপর আবার সবকিছু বুঝিয়ে, বড় ফার্মেসীর ঠিকানা লিখে স্বামীকে পাঠানো হল। সমস্যার সমাধান হল, রোগিণী সুস্থ হইল।

★★ মাত্র ৮ দিন আগের ঘটনা-

আমি যে প্রাইভেট হাসপাতালে কাজ করি, সেখানে এক প্রসুতি মায়ের কম্পলিট প্লাসেন্টা প্রিভিয়ার জন্য সন্তান প্রসবের পর খুব রক্ত ক্ষরণ হচ্ছিল। সেখানে কনডম ক্যাথেটার ব্যবহার করে রোগিণী সুস্থ হয়েছে।

এরকম অসংখ্য কন্ডম ক্যাথেটার ব্যবহার করে রোগি সুস্থ হবার ঘটনা এই বাংলাদেশে আছে। প্রসবের পরে জরায়ু থেকে অতিরিক্ত রক্তক্ষরণে এই কন্ডম ক্যাথেটার ব্যবহারের আবিষ্কারকও একজন বাংলাদেশি গাইনি প্রফেসর (Use of condom to prevent PPH was introduced by Prof. Saiba Akter . If it were in 1st world country then they would have name it and establish it as Saiba's Method but we couldn't establish it. There are so many methods invented by our scientist but we did not achieve the recognition.)। কিন্তু এদেশের সাংবাদিক এবং কিছু ফার্মেসিম্যান এখনো জানে না- কন্ডম ক্যাথেটার কী জিনিশ?

তাই এদেশি সাংবাদিক সুদূর কেনিয়া থেকে কনডম ক্যাথেটার ব্যবহারের সংবাদ সংগ্রহ করেছে কিন্তু বাংলাদেশেই যে বহুদিন, বহুবছর আগে থেকে এই চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে, তা তাদের জানা নাই। আবার শিরোনাম দিছে-

"কনডম বাচাতে পারে লাখো মায়ের জীবন "!!

শিরোনাম পড়ে প্রথমে টাশকি খাওয়া অবস্থা। আচ্ছা কনডম আর কনডম ক্যাথেটার কি এক জিনিশ?
(কনডম ক্যাথেটারের ফটো দিলাম)

এই কনডম ক্যাথেটারে হাজারো মায়ের জীবন বাচে এই বাংলাদেশে, তাই সাংবাদিকরা এই খবর কখনো নেয় না। কিন্তু যদি কখনো কেউ মারা যেত, তবে শিরোনাম হত-

"পুরুষের কনডম প্রসূতি মহিলার জরায়ুতে, ভুল চিকিৎসায় রোগির মৃত্যু"

সিন্ডিকেট মিটিংয়ে প্রস্তাব গৃহীত

ভাতা পাবেন ডিপ্লোমা-এমফিল কোর্সের চিকিৎসকরা

প্রস্তুতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

অক্টোবর-নভেম্বরে ২য় ধাপে করোনা সংক্রমণের শঙ্কা

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা
পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না
জাতীয় হৃদরোগ ইন্সটিটিউটের সিসিউতে ভয়ানক কয়েক ঘন্টা

ডাক্তার-নার্সদের অক্লান্ত পরিশ্রমের কথা মিডিয়ায় আসে না