অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ

অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ

প্রখ্যাত মেডিসিন বিশেষজ্ঞ ও একুশে পদকপ্রাপ্ত চিকিৎসক 

 


০৭ জুলাই, ২০১৭ ০৯:৪০ এএম

চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে করণীয়

চিকুনগুনিয়া প্রতিরোধে করণীয়

ব্যথা আর নানা উপসর্গের কারণে সহজেই বোঝা যাচ্ছে চিকুনগুনিয়ার প্রভাব। তিন থেকে চার দিনের মধ্যে জ্বর সেরে উঠলেও হাড়ের জোড়ের ব্যথায় রোগীরা নাজেহাল। তবে ভয়ের কিছু নেই। চিকুনগুনিয়া সন্দেহ হলে রক্ত পরীক্ষার মাধ্যমে তা নিশ্চিত হওয়া যায়।

এ ক্ষেত্রে রোগীর রক্তে ভাইরাসের বিরুদ্ধে তৈরি হওয়া অ্যান্টিবডি দেখা হয়। এতে ২ থেকে ১২ দিন লাগতে পারে। চিকুনগুনিয়ার কোনো প্রতিষেধক নেই। এর চিকিৎসা মূলত রোগের উপসর্গগুলোকে নিরাময় করা। রোগীকে সম্পূর্ণ বিশ্রামে রাখতে হবে এবং প্রচুর পানি বা অন্যান্য তরল খেতে দিতে হবে। জ্বরের জন্য প্যারাসিটামল-জাতীয় ওষুধই যথেষ্ট, এর সঙ্গে সঙ্গে পানি দিয়ে শরীর মুছে দিতে হবে। তীব্র ব্যথার জন্য এসপিরিন না দেওয়াই ভালো। আবার যেন মশায় না কামড়ায় এজন্য রোগীকে মশারির ভিতরে রাখাই ভালো।

কারণ আক্রান্ত রোগীকে মশায় কামড় দিয়ে কোনো সুস্থ লোককে সেই মশা কামড় দিলে ওই ব্যক্তিও এ রোগে আক্রান্ত হবেন। অনেকের এই রোগে আক্রান্তের পর রোগপ্রতিরোধ ক্ষমতা ক্ষতিগ্রস্ত হয়। ফলে নতুন অন্য অসুখ সংক্রমণ করতে পারে। তাই সাবধান থাকতে হবে এবং প্রচুর তরল ও পুষ্টিকর খাদ্য গ্রহণ, পরিচ্ছন্নতা বোধ এবং যথেষ্ট বিশ্রাম এই ঝুঁকি থেকে বাঁচাতে পারে।

Add
  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত
বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে 
কিডনি পাথরের ঝুঁকি বাড়ায় নিয়মিত অ্যান্টাসিড সেবন 

বেশিদিন ওমিপ্রাজল খেলে হাড় ক্ষয়ের ঝুঁকি বাড়ে