ডা. নাজিরুম মুবিন

ডা. নাজিরুম মুবিন

মেডিকেল অফিসার, মিনিস্ট্রি অব হেলথ অ্যান্ড ফ্যামিলি ওয়েলফেয়ার


০৫ জুলাই, ২০১৭ ১০:০২ এএম

যুক্তি তক্কো আর গপ্পো

যুক্তি তক্কো আর গপ্পো

ইমার্জেন্সি ডিউটি। 

উপজেলা হেলথ কমপ্লেক্সে।

বুকে ব্যথা নিয়ে একটা রোগি আসলো। সাথে অনেক লোক। রোগি দেখে ইসিজি করতে পাঠালাম।

ইসিজির অবস্থা খুব খারাপ। অ্যান্টেরিয়র এমআই। সহজ বাংলায় হার্ট অ্যাটাক। মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যেতে বললাম। কিন্তু রোগির লোক রাজি হয় না। যতই বুঝাই সিসিইউ সুবিধা সম্বলিত হাসপাতালে নিতে হবে। কার্ডিওলজিস্টের তত্ত্বাবধানে রোগিকে রাখতে হবে। কিছুই বুঝে না।

এলাকার এক নেতা গোছের লোক আসলো। সেও রোগিকে এখানে রাখার পক্ষে।

- আপনে তো এমবিবিএস ডাক্তার?
- জ্বি।
- এখন ফরিদপুর নিয়ে গেলে তো আপনার মতো এমবিবিএস ডাক্তাররাই দেখবে।
- জ্বি।
- এটা তো সরকারি হাসপাতাল?
- জ্বি।
- যেখানে নিয়ে যেতে বলছেন সেটাও তো আরেকটা সরকারি হাসপাতাল?
- জ্বি।
- তাহলে রোগিকে এখানেই রাখেন।

এতটুকু বলে নেতা মুচকি হাসে। ভাব এমন যে বিশাল এক বাহাস জিতে গেছে।
এবার তো আমার কিছু বলার পালা।

- আমাদের হাসপাতালের সামনে একটা মসজিদ আছে। আবার মক্কার কাবা শরীফও একটা মসজিদ। এই মসজিদে নামাজ পড়লেও নামাজ কবুল হবে আবার কাবা শরীফে পড়লেও কবুল হবে। কিন্তু হজ্ব, ওমরাহ করতে চাইলে আপনাকে কাবা শরীফেই যেতে হবে। হাসপাতাল মসজিদে হজ্ব, ওমরাহ হবে না। একইভাবে এই রোগির চিকিৎসার জন্য ফরিদপুর যেতে হবে। এখানে হবে না।

- ঠিক আছে। আমাদের রেফারের কাগজ লিখে দেন। আমরা রোগি ফরিদপুর নিয়ে যাবো।

উপজেলা থেকে রোগি রেফার করা মানে ছোটখাটো এক যুদ্ধ করা। এই যাত্রায় যুদ্ধে জয়ী হলাম। লোডিং ডোজ দিয়ে রোগি ফরিদপুর মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে পাঠিয়ে দিয়েছি।

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত