ঢাকা বৃহস্পতিবার, ১৭ অক্টোবর ২০১৯, ২ কার্তিক ১৪২৬,    আপডেট ১ ঘন্টা আগে
ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী

ডা. শিরীন সাবিহা তন্বী

মেডিকেল অফিসার, রেডিওলোজি এন্ড ইমেজিং ডিপার্টমেন্ট,

শের-ই-বাংলা মেডিকেল কলেজ হাসপাতাল, বরিশাল।


২৩ জুন, ২০১৭ ১৫:০২

সুপ্রিয় দেশবাসী এই ঈদে আপনি আপনার এবং আপনার প্রিয়জনের স্বাস্থ্যের বাজেট কত রেখেছেন ?

সুপ্রিয় দেশবাসী এই ঈদে আপনি আপনার এবং আপনার প্রিয়জনের স্বাস্থ্যের বাজেট কত রেখেছেন ?

রমজান মাস প্রায় শেষ। বছর ঘুরে আবার এসেছে ঈদ। পুরো মাস ধরে যারা সংযম সাধনা করেছেন আর দিন রাত ভর ব্যস্ত থেকেছেন ইফতার, সেহরী, ঈদ সপিং এ তাদের ভাবনায় তাদের নিজেদের শরীর স্বাস্থ্য কতটুকু ছিল আমার জানা নেই। তবে বাকী এগারটি মাসের মত এই মাসেও এই দেশের হতভাগ্য ডাক্তার প্রজাতির অনেকেই পুরো মাস ধরে ইফতার করেছেন অপারেশন থিয়েটারে রোগীর অপারেশন করতে করতে হাত ব্যস্ত বলে অন্যের হাতে একটু পানি খেয়ে। সেহরীর সময় পার হয়েছে কোন অসময়ে আসা মারাত্মক দুর্ঘটনার রোগীর হাড় মাংস জোড়া লাগাতে। এক ঝাঁক মেডিকেল ছাত্র এ মাসেই ডাক্তার হিসেবে তাদের জীবন শুরু করেছেন। অন্য ধর্মের ডাক্তার মেয়েটি রাত ভর নাইট ডিউটিতে রোগীর চিকিৎসা দিয়ে সকালে কোথাও নাস্তা না পেয়ে হয়ত খিদে পেটেই ঘুমিয়ে গেছে। এই মানুষ গুলোর এই সংযম এই দায়িত্ববোধ আর এই পরিশ্রমের ইতিহাস এই দেশের সংসদে আলোচিত হয় না। রোগীদের মুখে মুখে দোয়া ও বর্ষিত হয় না। বরং সারা পৃথিবীর সব না পাওয়াকে পুষিয়ে নিতেই যেন সকলের হাসপাতালে আসা।

ঈদের ছুটি। যেন সাজ সাজ রব চারিদিকে। কাল থেকে দ্রব্যমূল্য বাড়তে পারে, তিন হাজার টাকার পাঞ্জাবীটা দশ হাজার টাকায় কিনতে হতে পারে আপনাকে। আর বাড়ী ফিরবেন? গাড়ী ভাড়াও কয়েক গুন হতে পারে! সত্যি বলছি। না না। সরকার বলেননি বেশী ভাড়া নিতে। বরং ভাড়া এবং দ্রব্যমূল্য নিয়ন্ত্রনের জন্য গঠিত মোবাইল কোর্ট বসবে না কাল থেকে। কাল থেকে যে সরকারী ছুটি! আর এই ভোগান্তি যে সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তা কর্মচারীদের ঈদ উদযাপনের কারনেই হবে, তা কিন্তু এদেশের কোন সাংবাদিকের সচিত্র প্রতিবেদনে আসবে না। প্রতিবেদনে আসবে কেবল হাসপাতাল সমূহ। আপনি জানেন না। আমি জানি। এক সপ্তাহ আগেই প্রতিটি হাসপাতালের রোষ্টার হয়ে গেছে। ঈদের ছুটির মাঝেও দেশের সব রোগী যাতে স্বাস্থ্য সেবা পায় সেজন্য একটা জনগোষ্ঠী নিজেদের সব খুশি সব উৎসবকে হাসিমুখে কুরবানী করে চলছে। একবার ও ভেবে দেখেছেন, বিনিময়ে আপনারা কি দিচ্ছেন অপমান অবজ্ঞা মিথ্যাচার ছাড়া!

রোজার শুরু থেকেই রিকশা ভাড়া থেকে বড় বড় বিপনী বিতানের পোষাক সব কিছুতে ঈদ বকশিশ হিসেবে বাড়তি টাকা গুনতে হচ্ছে আপনাকে। বুকে হাত দিয়ে বলতে পারবেন কোন ডাক্তার আপনাকে বলেছে যে ঈদ সামনে, ভিজিট বেশী দিতে হবে।অপারেশন ফি বেশী দিতে হবে। আমি জানি, বলেনি। বলবেও না। আপনি যখন ঈদ বোনাস হাতে পেয়ে কিংবা উপরি হাতে পেয়ে ঈদের বাজেট করছেন, তার মধ্যে সংযম রাখছেন কই? লক্ষ টাকার শাড়ী, গয়না, কসমেটিকস! ভূড়িভোজের বিশাল আয়োজন।কেউ তো দেশের বাইরে ঈদ সপিং! ঈদের পরে রিফ্রেশিং ট্যুর। আপনার ঈদ বাজেটে লক্ষ লক্ষ টাকার হিসেব। এর মাঝে আপনি বা আপনার প্রিয় পরিবারের কোন সদস্য অসুস্থ হলে দুর্ঘটনার শিকার হলে চিকিৎসা খরচটা বাজেটে রেখেছেন? না করলে এখন এ্যাড করুন।

আপনার আমোদ, ফূর্তি, ভ্রমন সবকিছুর থেকে বড় আপনার শরীর। দেশে স্বাস্থ্যবীমা চালু নেই তো কি হয়েছে? নিজেই নিজের স্বাস্থ্যের বাজেট করুন। সব অবাঞ্চিত খরচকে না বলে স্বাস্থ্য সুরক্ষার জন্য সঞ্চয় করুন। তাহলে আর হঠাৎ পেট ব্যাথায় ডাক্তার দেখিয়ে পিত্তে পাথর হয়েছে জেনে, অপারেশন করিয়ে ডাক্তারের গুষ্ঠী উদ্ধার করবেন না। বরং কৃতজ্ঞ হবেন ডাক্তারের শিক্ষা আর শ্রম আপনাকে রোগ মুক্ত করল বলে!

এই সমাজে সবথেকে বেশী ত্যাগ, আন্তরিকতা আর দায়িত্ববোধ নিয়ে ঝড়, বৃষ্টি, বন্যা, জলোচ্ছাস, পাহাড় ধ্বস কিংবা ঈদ পূজা পার্বনে নিজের উৎসবকে ম্লান করে ডাক্তাররাই আপনার বিপদের সঙ্গী হয়ে থাকেন। তাই ধৈর্য্য ধরে স্বাস্থ্যসেবা নিন। ঈদের ছুটিতে ভাল ব্যবহার আর কৃতজ্ঞতার বিনিময়ে চিকিৎসা নিন।

আর সাংবাদিকগন পাবলিকের খাওয়া চিন্তা না করে দেশের ভবিষ্যৎ আর ভাবমূর্তি ভেবে সঠিক এবং সকৃতজ্ঞ রিপোর্ট করুন। চিকিৎসকদের ত্যাগ, পরিশ্রম এবং মেধার মূল্যায়ন করুন।

 

ডাক্তার শিরীন সাবিহা তন্বী

বরিশাল

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত