ডা. সাকলায়েন রাসেল

ডা. সাকলায়েন রাসেল

অ্যাসিসটেন্ট প্রফেসর এন্ড অ্যাসোসিয়েট কনসালটেন্ট, ভাসকুলার সার্জারি, ইব্রাহীম কার্ডিয়াক হসপিটাল এন্ড রিসার্চ ইন্সটিটিউট। 


২১ মে, ২০১৭ ১০:৫৯ এএম

নিরাপদ কর্মস্থলের জন্য চাই সর্বাত্মক আন্দোলন

নিরাপদ কর্মস্থলের জন্য চাই সর্বাত্মক আন্দোলন

হিসাব সহজঃ

০১।  মঙ্গলবার প্রাইভেট প্র্যাকটিস বন্ধ থাকবে... একই সাথে আন্দোলনের নতুন কর্মসূচি ঘোষনা করতে হবে... তবে কোন অবস্থাতেই জরুরী চিকিৎসা বন্ধ করা যাবে না।

০২।  এই আন্দোলনে বিএমএ নমনীয়তা কিংবা অন্য কোন উপায় অবলম্বন করলে বিএমএ ভবন ঘেরাও করার প্রস্তুতি নিতে হবে। যদিও অতীতের যেকোন সময়ের চেয়ে বিএমএ এখন অনেক বেশি শক্তি প্রদর্শন করেছে!

০৩।  সেন্ট্রাল হাসপাতালের ঘটনা কেবল একটি ঘটনা না... অতীতে ভাংচুর পার্টির সমস্ত হামলার হিসাবের খাতা খুলতে হবে।

০৪।  ছাত্র নামধারী কতিপয় কুলাঙ্গার সন্ত্রাসী... যারা জুনিয়র চিকিৎসকদের রক্তাত্ত করেছে তাঁদের বিচারের আওতায় আনতে হবে... বিচার না হলে এদের ছবি সারাদেশের সকল চিকিৎসকের চেম্বারে পাঠাতে হবে... যাতে প্রয়োজনে তাঁদের চিকিৎসা দিতে সুবিধা হয়। একই সাথে কিছু কুছাত্রের কুকর্মের জন্য পুরো ঢাবির ছাত্রদের প্রতিপক্ষ বানানো যাবেনা।

০৫।  যিনি মামলা করেছেন ও হাস্যকর বিবৃতি দিয়ে নিজের অজ্ঞতা প্রমান করেছেন... চিকিৎসক জাতি যেন তাঁকেও চিনতে পারেন সে ব্যবস্থাও করতে হবে... ওনার ছবিসহ নাম সকল চেম্বারে পাঠাতে হবে। চিকিৎসকরা যাতে চিকিৎসা দেবার সময় উপযুক্ত সম্মান দেখাতে পারেন ও সতর্ক থাকতে পারেন!

০৬।  দুঃখ প্রকাশ কোন সমাধান নয়। তাই দুঃখ প্রকাশে গলে যাওয়ার সুযোগ নেই। হাসপাতালের ক্ষতিপূরণ, হামলাকারী কুছাত্র সন্ত্রাসীদের বিচার ও এমন ঘটনা প্রতিরোধে স্থায়ী আইন ও প্রতিকার মূলক ব্যবস্থা নিশ্চিত করতে হবে।

০৭।  সম্ভাব্য হামলার শিকার হলে হাসপাতালের করণীয় কী হবে সেটা ঠিক করতে হবে এবং প্রতিকার ও প্রতিরোধমূলক ব্যবস্থা নিতে হবে।

০৮।  ইব্রাহিম মেডিকেল কলেজের সেই ছাত্রটি যার তথ্য সন্ত্রাসীপনার কারণে এই ঘটনার সূত্রপাত তাকে মেডিকেল কলেজ থেকে বহিস্কার করতে হবে এবং হাসপাতালে হামলার উস্কানীদাতা হিসেবে গ্রেফতার করতে হবে।

০৯।  যে সমস্ত চিকিৎসক আন্দোলনে গাফিলতি দেখাবেন... এবং প্রাইভেট প্র্যাকটিস চালিয়ে যাবেন... তাদের ছবি তুলে পাবলিকলি প্রকাশ করতে হবে।

১০।  টাকা সংগ্রহ করে আইনজীবি প্রস্তুত রাখতে হবে... 'চিকিৎসকদের আন্দোলন কেন অবৈধ নয়' এই মর্মে রিট আসছে... সেক্ষেত্রে সম্ভাব্য করণীয় ঠিক করতে হবে।

১১।  যেদিন আবদুল্লাহ স্যার আদলতে যাবেন... সেদিন সব চিকিৎসককে এপ্রোন পরে স্যারের সাথে আদালতে যাওয়ার জন্য প্রস্তুত থাকতে হবে।

রোগীদের সুচিকিৎসা নিশ্চিত হোক, নিরাপদ হোক চিকিৎসকের কর্মস্থল। 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত