ঢাকা      বৃহস্পতিবার ২৬, এপ্রিল ২০১৮ - ১৩, বৈশাখ, ১৪২৫ - হিজরী

পিতাকে নিয়ে ছেলে সাদি আব্দুল্লাহ’র আবেগঘন লেখা

তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা

উদ্ভূত পরিস্থিতিতে অধ্যাপক ডা. এবিএম আবদুল্লাহ-কে নিয়ে আবেগঘন লেখা পোস্ট দিয়েছেন তাঁর ছেলে ডাক্তার সাদি আব্দুল্লাহ। পাঠকদের জন্য লেখাটি পোস্ট দেয়া হলো। 

‘‘আব্বু, এই রিসেন্ট ঘটনা নিয়ে যা হলো তাতে পুরো ডাক্তার সোসাইটি খুব কষ্ট পাচ্ছে। ছেলে হিসেবে আমার কষ্টটা আরেকটু বেশি। হসপিটালে ভাংচুরের যেই কালচারটা এই দেশে চালু হয়েছে, তুমি যখন এটা নিয়ে পেপারে লেখা দিতে গেলা- আমি রাগ দেখালাম। কি দরকার এইসব নিয়ে লেখার? মানুষ মনে রাখবে না, কোন প্রতিকার ও হবে না। তুমি বললে, মানুষের মনে রাখার জন্য তো লিখি না। দেশের মানুষের যদি একটু উপকার হয়। আর আজ সেই অভিযোগ তোমার বিরুদ্ধে। যারা এটা করছে, তারা জানে না কার সাথে করছে, তাদের ফাইট করার কোন গ্রাউন্ড নাই। তাও তারা হুযুগে লড়াইয়ে নামলো।

যেই মেয়ে AML এ মারা গেলো তার প্রতি আমার গভীর সমবেদনা। আল্লাহ্‌ তার মাগফিরাত করুক। কিন্তু যারা আবেগের নামে কিছু বিবেচনা না করে ভুল চিকিৎসার ধোঁয়া তুললো, ভাংচুর করলো, মামলা করলো- তাদের প্রতি গভীর গভীর অশ্রদ্ধা।

আল্লাহ্‌র অশেষ রহমতে তোমাকে যা দিয়েছে তাতে তুমি চাইলে অনেকে কিছু করতে পারতা। কিন্তু সেই ৯০০ টাকার বাটা স্যান্ডেল আর ইন ছাড়া হাফ শার্ট পড়ে BSMMU/চেম্বার যাওয়ার এই ছিলো তোমার ড্রেস। জীবনে একটা মাত্র ব্লেজার বানালা সাবাহর বিয়ের সময়। এই ৩০০ টাকার ভিজিট থেকে মিনিমাম ৫০০ টাকা করতে কতো তোমার সাথে রাগ দেখালাম। আর তখনই কৌশলে প্রসঙ্গ এভোয়েড করতা। বই লেখার জন্য চেম্বার থেকে এসে এক গাধা টেক্সট বই নিয়ে বসে কত কষ্ট করেছো আমি জানি। শুধু নেক্সট জেনারেশন ডাক্তাররা যাতে উপকৃত হয়। তাতে দেশ ও জাতির উপকার হবে। এই ছিলো তোমার ধ্যান। খুব খুব শর্টে এই তুমি সবার প্রফেসর আবদুল্লাহ স্যার, আমার চির লোভহীন, চির সাধারণ বাবা।

এই দেশ তোমাকে কিছু দেয়নি- এটা কখনো বলবো না। মানুষের অপরিসীম ভালবাসা তোমার জন্য। তোমার স্টুডেন্টরা তোমাকে পিতার মত ভালবাসে। আল্লাহ্‌র রহমতে তুমি একুশে পদক পেয়েছো। দেশের খুব নিম্ন পর্যায় থেকে শুরু করে সর্বোচ্চ পর্যায়ের মানুষজন আল্লাহ্‌র হুকুমে তোমার ট্রিটমেন্টে সুস্থ হচ্ছে। দেশের প্রতিটা প্রান্তে আল্লাহ্‌ তোমার সুনাম ছড়িয়ে দিয়েছে। এই দেশ তোমাকে অনেক দিয়েছে।

কিন্তু দেশের কতিপয় মানুষ যারা না বুঝে তোমাকে বিনা কারণে হেয় করলো। তাদের সমুচিত জবাব দিতে হবে। দেশের নানা প্রান্তে যেখানে ডাক্তাররা লাঞ্ছিত হচ্ছে তোমার উছিলায় এর একটা প্রতিকার বের করতে হবে। এই কালচারটা বন্ধ করতে হবে। কতিপয় অপদার্থ সাংবাদিকের লেখনীর জন্য দেশের মানুষ আর ডাক্তারের মাঝে বিরোধ তৈরি হয়। সাংবাদিকদের প্রতি বিরূপ ধারনা তৈরি হবে এটা আর কত? দেশে লোভী ডাক্তার নাই, অদক্ষ ডাক্তার নাই, বিহেভিয়ার প্রবলেম নাই- এটা কখনোই বলবো না। কিন্তু এক এক করে তো প্রতিকার বের করতে হবে। যারা ভাংচুর করলো এরাই বড় হয়ে বড় ঘুষখোর হবে, দেশ ধ্বংসকারী হবে। কারণ ওদের তো কোন নীতি নাই। দেশের সম্পদ নষ্ট করতে ওদের কষ্ট হয় না।

তোমার উছিলায় প্রশাসন যদি এইবার ভাংচুর পার্টির বিরুদ্ধে নড়েচড়ে বসে, মিথ্যা হয়রানির বিরুদ্ধে এবার নামতেই হবে। ওদেরকে শাস্তি দিয়ে ফিউচারে এইদেশে কোন কিছু প্রমাণের আগেই এই অতি উৎসুক ভাংচুর পার্টির কার্যক্রম থামাতে হবে। দেশে এই আগাছাদের উপদ্রব কমাতে হবে। আল্লাহ্‌ তোমার সাথে থাকবেন।""

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


পাঠক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

মানসিক বিকাশহীন অসুস্থ প্রজন্ম তৈরির জন্য কারা দায়ী?

মানসিক বিকাশহীন অসুস্থ প্রজন্ম তৈরির জন্য কারা দায়ী?

দশ বছরের মেয়ে রাত ১টায় হাসপাতালের ইমার্জেন্সিতে আসল। আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম,…

বাঙালি ডাক্তারের বিদেশ যাত্রার গল্প

বাঙালি ডাক্তারের বিদেশ যাত্রার গল্প

এইটাই বাকি ছিল। স্বয়ং প্রধানমন্ত্রী লন্ডনে হল ভর্তি লোকের সামনে বললেন ভারতীয়…

সেদিন বৃষ্টি ছিল

সেদিন বৃষ্টি ছিল

হাসপাতালে আমি পারত পক্ষে রোগী ভর্তি দেই না। হাসপাতাল কোন মধুজগত না…

ভালো থাকুক ওপারের নতুন ডাক্তাররা

ভালো থাকুক ওপারের নতুন ডাক্তাররা

গতকাল সিলেট শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয় এর অধীন মেডিকেল কলেজগুলোর এমবিবিএস…

নারীরা বাচ্চা উৎপাদনের যন্ত্র নয়, তাঁরা মা

নারীরা বাচ্চা উৎপাদনের যন্ত্র নয়, তাঁরা মা

আঠারোতে বিয়ে করুক কিংবা আটাশে। একজন মেয়েকে বিয়ের এক থেকে দুই বছরের…

সরকারি হাসপাতালে সঠিক সেবার জন্য করণীয় ও বর্জনীয়

সরকারি হাসপাতালে সঠিক সেবার জন্য করণীয় ও বর্জনীয়

নিম্নের বিষয় গুলো জেনে রাখুন, বেঁচে যাবেন সরকারি মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে।  ১. হাসপাতালে যে…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

দুর্যোগ অধ্যাপক সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ স্বাস্থ্যমন্ত্রী ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস স্বাস্থ্য অধিদপ্তর