ঢাকা      রবিবার ২২, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৭, আশ্বিন, ১৪২৬ - হিজরী



ডা. জামান অ্যালেক্স

বিসিএস মেডিকেল অফিসার


সচেতন হন, জীবন বাঁচান...

নাপিতের ক্ষুর/ব্লেড থেকে ছড়াতে পারে হেপাটাইটিসের ভয়াবহ জীবাণু

আপনাদের কাছে জীবনের সবচেয়ে বড় বিরক্তিকর কাজ কি, সেটা আমি জানি না, কিন্তু আমার জীবনে সবচেয়ে বিরক্তিকর কাজ হলো চুল কাটাতে সেলুনে যাওয়া....

চুল কাটাতে যাওয়া কেন আমার কাছে বিরক্তিকর, সেটা এক্সপ্লেইন করি...

প্রথমত, কোনো এক অদ্ভুত কারণে আমি চুল কাটাতে গেলে কোনো চেয়ারই খালি পাই না, মিনিমাম আধা ঘন্টা বসে থাকতে হয়। এই আধা ঘন্টায় কখনও কখনও কিছু কুরুচিপূর্ণ দৃশ্য দেখার দুর্ভাগ্য হয়। যেমনঃ মৈনাক পর্বত টাইপ কিছু লোককে জামা কাপড় খুলে নাপিতেরা দলাই মলাই করছেন, খোদার খাসী ঐ মৈনাক ব্যাটা সে সময় আরামের আতিশয্যে আহা উহু করছেন....

দ্বিতীয়ত, প্রতিবার চুল কাটানোর পর চশমা লাগিয়ে আয়নায় তাকানো মাত্রই নিজে একটা ধাক্কা খাই। নিজেরে ঘাড়ছোলা মুরগির মত লাগে....

অনেক সেলুন পরিবর্তন করেছি, ঘাড়ছোলা মুরগি থেকে আমার উত্তরণ ঘটে নাই। কষ্ট করে বসে থেকে ঘাড়ছোলা মুরগি হওয়া কোনো কাজের কথা না....

যাই হোক, একবার চুল কাটাতে সবসময় যে সেলুনে যাই, সেই সেলুনে গেলাম। গিয়ে দেখি লম্বা লাইন, মেজাজ খারাপ করে বের হয়ে আসলাম। একটা গুরুত্বপূর্ণ কাজ ছিলো ওইদিন, কাজেই সাতপাঁচ ভেবে এক মাঝারি মানের সেলুনে ঢুকে গেলাম....

চেয়ার ফাঁকা ছিলো, বসার পর এক ইয়াং চ্যাংড়া নাপিত এগিয়ে এলো, এই বয়সেই পান খেয়ে ঠোঁট লাল করে ফেলেছে। পান চিবুতে চিবুতেই জিজ্ঞেস করলোঃ

--ছাররে কি কাট দিমু কন দেহি...
--যেকোন কাট দিলেই চলবে, দেখতে ভদ্র দেখা গেলেই হয়...
--(চিন্তা করে) উমম্, হানি সিং কাট দিয়া দিমু?
--এইটা আবার কি কাট?
--ঐ যে হানি সিং, গান গায় যে ভদ্রলুক...

গান গায়, যার নাম হানি সিং, এমন কোনো 'ভদ্রলুক'রে আমি তখন পর্যন্ত চিনি না, মনমোহন সিং নামে একজনরে চিনি, উনি তো আর গান গান না....

হানি সিং যেহেতু তার ভাষ্যমতে 'ভদ্রলুক' কাজেই তার কাট দেয়া যেতে পারে। আমি চশমা খুলে চোখ বন্ধ করে বসে রইলাম। "হানি সিং কাট" শুরু হলো....

চুল কাটা শেষ হবার পর যখন চশমা লাগালাম তখন নিজের চুলের স্টাইল দেখে নিজেই আঁতকে উঠলাম....

মাথার দুইপাশে চুল ছোট করে চেঁছে ফেলা হয়েছে, মাঝে কোন চুল কাটা হয় নাই, প্রতিপাশে চেঁছে ছোট করে ফেলা চুলের মাঝে আবার দুইটা করে সরলরেখা তৈরি করা হয়েছে যেখানে চুলের কোনো নামগন্ধ নেই। এই হইল গায়ক 'হানি সিং' কাট। এর তুলনায় 'ঘাড়ছোলা মুরগি কাট' বেটার....

চ্যাংড়া নাপিত আমার দিকে তাকিয়ে চোখ নাচিয়ে জিজ্ঞেস করলো--

--জব্বর হইছে না ছার?
--(ধৈর্য ধরে) এটা কি করলেন, এইটা কোনো ভদ্র কাট হইল? ঠিক করেন তাড়াতাড়ি, মাঝের চুল কাটেন...
--(উদাস হয়ে অন্যদিকে তাকিয়ে) ছরি স্যার, হানি সিং এর পরে অন্য কোন কাট নাইক্কা। এরপর কিছু করবার চাইলে চুল ছব কাইট্টা লাইতে হইব...

প্রিয় পাঠক, চিকিৎসকদের চুলের অনেক ধরনের কাট দেখেছি। যে কাট আমারে দেয়া হয়েছে, সে হানি সিং কাট সমেত কোনো চিকিৎসক আমার নজরে আজ পর্যন্ত পড়ে নাই। আমি "চুল ছব কাইট্টা লাইতে" মনস্থির করলাম...

আগে বাসায় ফিরতাম ঘাড়ছোলা মুরগি হয়ে, ঐদিন বাসায় ফিরলাম মোটামুটি মাথা ন্যাড়া কোজাক হয়ে....

দরজা খোলার পর যে বাচ্চা আমাকে দেখে দৌড়ে আমার কোলে আসত, আমার কোজাক অবস্থা দেখে এবার সে দৌড়ে তার মায়ের কাছে চলে গেলো। তার মায়ের কাছে তাকে বলতে শুনলাম, "আম্মু,আম্মু, আব্বু আজকে ভুত হইছে...."

ঘাড়ছোলা মুর্গী থাইকা ভুত!!! খারাপ না...

যাই হোক, বাসায় ঢুকে গোসল করতে গেলাম। সাবান লাগানোর পর মাথার একজায়গায় জ্বলে উঠলো। হাত দিয়ে দেখি আঙুলে রক্ত। যা বুঝলাম, চুল কাটার সময় ক্ষুর ব্যবহারে চামড়ার একটা অংশ কেটে গিয়েছিলো, তখন তেমন টের পাই নি....

আচ্ছা, নাপিত ব্যাটা ক্ষুরের ব্লেড কি চেইন্জ করেছিলো? সবসময় যে জায়গায় চুল কাটাই, সেখানে এসব বলতে হয় না, নতুন জায়গায় কাটতে গিয়েছি, তাই ব্লেড পরিবর্তন করেছে কিনা সেটা মাথায় আসেনি....

বিষয়টা গুরুত্বপূর্ণ। কারণ, বারবার ব্যবহৃত এসব ব্লেড থেকে ভাইরাল ও ব্যাকটেরিয়াল বিভিন্ন রোগ ছড়ানোর চান্স থাকে। এসব চিন্তা করে শিরদাঁড়া বরাবর একটা শীতল স্রোত নেমে গেলো....

তাড়াতাড়ি গোসল শেষ করে আবার ঐ সেলুনে গেলাম। আমাকে দেখে ঐ নাপিত ব্যাটা থুক্ করে পানের চিপটি ফেলে বলে উঠলোঃ

--ছার, আবার আইলেন যে, 'গুঁফ' কামাইবেন? রজনীকান্তের একটা জটিল কাটিং আছে....
--এ ইঁয়ে, আপাতত রজনীকান্ত থাকুক, আপনি ক্ষুরে যে ব্লেড ব্যবহার করেছেন সেটা কি নতুন ছিলো?
--হে হে, জ্বে স্যার, এক্কেরে নতুন, আইজ ই ক্ষুরে 'ব্লেট'টা লাগাইছি....
--না, মানে, প্রত্যেকের জন্য নতুন ব্লেড ব্যবহার করেন তো?...

প্রিয় পাঠক, ভয়ের ব্যাপার বলি। উনি প্রত্যেক মানুষের জন্য নতুন ব্লেড ব্যবহার করেন নাই.....

কাউন্টারে যে লোকটি বসে থাকে তাকে এ ব্যাপারে জিজ্ঞেস করলাম, সে এসব প্রশ্নের উত্তর দিতে উদাসীন....

পরপর আরো দুইটি সেলুনে একথা জিজ্ঞেস করলাম, একজন স্বীকার করল যে তারা প্রত্যেকের জন্য নতুন ব্লেড ব্যবহার করেন। অন্যজন এমনভাবে আমার দিকে তাকালেন যেন আমি কোনো এলিয়েন.....

ঢাকাতেই যদি এ অবস্থা হয়, তবে দেশের অন্য অংশে কি অবস্থা সেটা সহজেই অনুমেয়....

দেশের একটা বিশাল জনগোষ্ঠী হেপাটাইটিসে আক্রান্ত, পাশের দেশে HIV অচিরেই মরণছোবল দিবে। চুল কাটার সময় যে ব্লেড ব্যবহার করা হয়, তার মাধ্যমে কিন্তু হেপাটাইটিস ভাইরাস ছড়াতে পারে, ব্যাকটেরিয়াল কিছু রোগও ছড়ায়, HIV ছড়ানোর সম্ভাবনা একেবারে উড়িয়ে দেয়া যায় না। এই অবস্থা চলতে থাকলে ম্যাছাকার ঘটতে বেশী সময় লাগবে না...

আমরা ও আমাদের দেশ এ ব্যাপারে কতটুকু সচেতন?

প্রত্যেকের কাছে অনুরোধঃ চুল কাটার সময় যে ব্লেড ব্যবহার করা হয় সেটি একেবারে নতুন কিনা তা নিশ্চিত করুন....

আপনার অবহেলায় আপনার জীবন বিপন্ন হতে পারে, আপনার সাজানো সুন্দর সংসার ধ্বংস হতে পারে। সচেতন হন, জীবন বাঁচান....

 

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


পাঠক কর্নার বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

সন্তানের থ্যালাসেমিয়ার জন্য পিতা-মাতার অজ্ঞতাই দায়ী!

সন্তানের থ্যালাসেমিয়ার জন্য পিতা-মাতার অজ্ঞতাই দায়ী!

সিএমসি, ভেলোরে আমি যে রুমে বসে রোগী দেখছি সেখানে ইন্ডিয়ার অন্যান্য রাজ্যের…

আধুনিক মায়েরা সিজার ছাড়া বাচ্চা প্রসবের চিন্তাই করেন না

আধুনিক মায়েরা সিজার ছাড়া বাচ্চা প্রসবের চিন্তাই করেন না

সমাজে কিছু মানসিকভাবে অসুস্থ ডাক্তার বিদ্বেষী মানুষ আছে। অসুখ হলে ইনিয়ে বিনিয়ে…

আনিসের প্রত্যাবর্তন 

আনিসের প্রত্যাবর্তন 

রাস্তায় একজনের মুখে সরাসরি সিগারেটের ধোঁয়া ছেড়ে দিলো আনিস। আচমকা এ আচরণে…

কনজেনিটাল হার্ট ডিজিজ: গল্পে গল্পে শিখি

কনজেনিটাল হার্ট ডিজিজ: গল্পে গল্পে শিখি

স্রষ্টার সৃষ্টি বড় অদ্ভুত, মেডিকেল সায়েন্স পড়লে এটা ভাল বুঝা যায়। মাছের…

বদ লোকের গল্প!

বদ লোকের গল্প!

উপজেলায় নতুন তখন। সবাইকে ঠিকঠাক চিনিও না। হঠাৎ একদিন আমার রুমে পেট…



জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস