ঢাকা      সোমবার ২৩, সেপ্টেম্বর ২০১৯ - ৭, আশ্বিন, ১৪২৬ - হিজরী

নিটারঃ চিকিৎসা বিজ্ঞানের চিত্রায়ক

আমাদের অনেকেরই হয়তো ছোটবেলা থেকে অন্যকিছু হওয়ার ইচ্ছা ছিল। কিন্তু বাবা মায়ের ইচ্ছায়ই হোক কিংবা পারিপার্শ্বিক পরিস্থিতির কারণেই হোক, ডাক্তারি পেশায় পড়তে আসতে হয়েছে। আমাদের মতই ছিল ডাঃ ফ্রাংক হেনরি নিটার এর জীবনের গল্প। তার ইচ্ছা ছিল চিত্র শিল্পী হওয়ার আর তাদের পরিবারের ইচ্ছা ছিল তাকে ডাক্তার বানাবার। একদিক দিয়ে অবশ্য তিনি সফল যে তিনি তার নিজের ও পরিবারের দুটি ইচ্ছাই পূরণ করতে পেরেছিলেন। যেন তেন ভাবে নয় এতটাই সাফল্যের সাথে যে সারাবিশ্বের মেডিকেল শিক্ষার্থীরা একনামে তাকে চেনেন এবং মানবদেহের অগম্য অলিগলিকে অসাধারন চিত্রায়ন করার স্বীকৃতি স্বরুপ শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করে। আমেরিকার ম্যানহাটন এ ১৯০৬ সালের ২৫ এপ্রিল জন্ম গ্রহণ করেন নিটার। চিত্রশিল্পী হওয়ার অদম্য ইচ্ছাশক্তির বলেই " ন্যাশনাল একাডেমী অব ডিজাইন " থেকে স্কলারশিপ পেয়ে গেলেন হাই স্কুলে উঠতে না উঠতেই। কিন্তু একসাথে হাই স্কুল ও ন্যাশনাল একাডেমীতে কিভাবে পড়ালেখা চালিয়ে যাবেন নিটার। কি করা যায়?

শেষ পর্যন্ত নিটার একটি উপায় খুঁজে বের  করলেন। দিনে যেতেন স্কুলে আর রাতে আর্ট একাডেমীতে। এরপর আর্ট শিখতে গিয়েছিলেন "আর্ট স্টুডেন্টস লীগ অব নিউ ইয়র্ক" এ। এর পর কাজ করতে শুরু করেন স্টান্ডার্ড ইভিনিং পোস্ট, নিউ ইয়র্ক টাইমস এর মত বড় বড় পত্রিকায়।

কিন্তু এ কি? বিধি বাম! পরিবারের লোকেরা এখনো হাল ছাড়েন নি। তারা চান নিটার এসব আঁকি বুকি বাদ দিয়ে ডাক্তারি পড়া শুরু করুক। শেষ পর্যন্ত কি আর করা নিটার বাধ্য হলেন সিদ্ধান্ত বদলাতে। ভর্তি হলেন নিউ ইয়র্ক ইউনিভার্সিটির  মেডিকেল স্কুলে। গ্রাজুয়েশন শেষ করে বেলেভু ইউনিভার্সিটিতে ইন্টার্ণশীপ করেন তিনি। এরপর প্র্যাকটিস শুরু করেন। 

কিন্তু কথা আছে "ঢেঁকি স্বর্গে গেলেও ধান ভানে"। তাই তো মেডিকেল ট্রেনিংয়ের ফাঁকে ফাঁকেও নিটার ছবি আঁকতেন- কখনো তার শিক্ষকদের জন্য, কখনো বা একটু বাড়তি উপার্জনের জন্য। কখনো একেবারে শখের বশে। তার আঁকার হাত ভাল দেখে ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানীগুলো তাদের নতুন ঔষধের বিজ্ঞাপন আঁকাতে নিটারের শরণাপন্ন হতে থাকে। এমনকি তিনি একটি বিজ্ঞাপনের জন্য পাঁচটি ছবি  একে পারিশ্রমিক পান ৭৫০০ ডলার?

১৯৩৬ সালে ঈওইঅ ফার্মাসিউটিক্যাল কোম্পানী "ডিজিটালিস" নামক একটি কার্ডিয়াক গ্লাইকোসাইড ঔষধের বিজ্ঞাপনের জন্য হৃদপিন্ডের ছবি একে দিতে তাঁর সাথে  চুক্তিবদ্ধ হয় । এর জনপ্রিয়তা দেখে এরপর নিটার আরও অনেক অঙ্গের চিত্রায়ণ করেন। এই CIBA ই পরবর্তীতে নিটারের চিত্রায়ণগুলো বই আকারে প্রকাশ করে।

আর আমরা যে " NITTER'S ATLAS OF HUMAN ANATOMY" বইটি পড়ি এটি সর্বপ্রথম প্রকাশিত হয়েছিল ১৯৮৯ সালে। বিজ্ঞানী নিটার সারাজীবনে প্রায় চার হাজারের মত ছবি একেছেন। সারা জীবনে তিনি অসংখ্য বড়  বড় পুরষ্কারে ভূষিত হয়েছেন বিভিন্ন দেশ থেকে। ১৯৬৬ সালে সিটি কলেজ থেকে উনাকে "টাউনসেড হ্যারিস মেডেলে ভূষিত করা হয়। আজীবন সম্মাননা পেয়েছেন "Society of Illustration" এবং "Association of Medical Illustration" এর পক্ষ থেকে।

এ মহান ব্যক্তি ১৯৯১ সালের ১৭ সেপ্টেম্বর পরলোকগমন করেন। তার অংকিত ছবি গুলো এখনো পথ দেখিয়ে যাচ্ছে অগনিত আরোগ্য শিল্পীদের।

 

লেখক : মুসাদ্দিক আহনাফ (এম.এম.সি.)

(প্রকাশিত : মেডিভয়েস: সংখ্যা : ৪; বর্ষ ২; জানুয়ারী-ফেব্রুয়ারী ২০১৫)

সংবাদটি শেয়ার করুন:

 


রিভিউ বিভাগের সর্বাধিক পঠিত

প্রকাশ হলো ডা. সাদেকুল ইসলাম তালুকদারের ‘স্মৃতির পাতা থেকে’

প্রকাশ হলো ডা. সাদেকুল ইসলাম তালুকদারের ‘স্মৃতির পাতা থেকে’

মেডিভয়েস রিপোর্ট: কিশোরগঞ্জের শহীদ সৈয়দ নজরুল ইসলাম মেডিকেল কলেজের প্যাথলজি বিভাগের বিভাগীয় প্রধান ডা.…

আরো সংবাদ














জনপ্রিয় বিষয় সমূহ:

স্বাস্থ্যমন্ত্রী স্বাস্থ্য অধিদপ্তর সায়েন্টিস্ট রিভিউ সাক্ষাৎকার মানসিক স্বাস্থ্য মেধাবী নিউরন বিএসএমএমইউ ঢামেক গবেষণা ফার্মাসিউটিক্যালস