২৯ এপ্রিল, ২০১৭ ১১:৫৮ এএম

বিএসএমএমইউ-তে নবাগত রেসিডেন্টদের যাত্রা শুরু

বিএসএমএমইউ-তে নবাগত রেসিডেন্টদের যাত্রা শুরু

মেডিভয়েস ডেস্কঃ রোগীদের প্রতি সেবার মনোভাব নিয়ে নিজেকে গড়ার আহ্বানে  ১ মার্চ ২০১৬ মঙ্গলবার সকাল ৯টায় বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে এমডি/এমএস রেসিডেন্সী প্রোগ্রাম ফেজ-এ তে ভর্তিকৃত রেসিডেন্ট চিকিৎসকবৃন্দের ইনডাকশন প্রোগ্রাম অনুষ্ঠিত হয়। এ অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান। অনুষ্ঠানে আরো উপস্থিত ছিলেন বিএসএমএমইউ এর সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডা. মাহমুদ হাসান, বাংলাদেশ মেডিকেল এসোসিয়েশনের মহাসচিব বেসিক সায়েন্স ও প্যারা ক্লিনিক্যাল সায়েন্স অনুষদের ডিন ও স্বাধীনতা চিকিৎসক পরিষদের সভাপতি  অধ্যাপক ডা. এম ইকবাল আর্সলান, উপ-উপাচার্য (শিক্ষা) অধ্যাপক ডা. মোঃ রুহুল আমিন মিয়া, উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মোঃ শারফুদ্দিন আহমেদ, কোষাধ্যক্ষ অধ্যাপক ডা. মোঃ আলী আসগর মোড়ল, মেডিসিন অনুষদের    অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল্লাহ, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়–য়া, ডেন্টাল অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মোঃ শামসুল আলম প্রমুখ।

অনুষ্ঠান পরিচালনা করেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এবিএম আব্দুল হান্নান।নবাগত রেসিডেন্টদের মধ্য থেকে বক্তব্য রাখেন ডা. বশীর আহমেদ জয় ও ডা. সানজিদা আক্তার। অনুষ্ঠানে নবাগত রেসিডেন্ট চিকিৎসকবৃন্দকে শপথ বাক্য পাঠ করান বিশ্ববিদ্যালয়ের মাননীয় উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান। ইনডাকশন প্রোগ্রামে অংশ নেন বিএসএমএমইউ এর অধিভুক্ত মেডিক্যাল কলেজ, ডেন্টাল কলেজ ও ইন্সটিটিউটসমূহের ৯৫৯ জন নবাগত রেসিডেন্ট চিকিৎসক। 

সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কামরুল হাসান খান জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ও মহান মুক্তিযুদ্ধে ৩০ লাখ শহীদদের গভীর শ্রদ্ধার সাথে স্মরণ করেন। তিনি বলেন, সবচাইতে মেধাবী চিকিৎসকবৃন্দ ভর্তি পরীক্ষায় উত্তীর্ণ হওয়ার মাধ্যমে চিকিৎসা শিক্ষায় উচ্চতর ডিগ্রী অর্জনের সুযোগ পেয়েছেন। এই মেধাবী চিকিৎসকরা যদি মানব সেবার ব্রত নিয়ে নিজেদেরকে যোগ্য হিসেবে গড়ে তোলেন, তাহলে জাতি সত্যিকারার্থে উপকৃত হবে। রেসিডেন্ট চিকিৎসকদের নানা সমস্যার উপর তিনি আলোকপাত করেন। ভবিষ্যতে ধারাবাহিকভাবে রেসিডেন্ট চিকিৎসকদের ভাতা বৃদ্ধি, আবাসনের ব্যবস্থা করা সহ আরো বিভিন্ন উদ্যোগ গ্রহণের ব্যাপারে আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

উল্লেখ্য, বিগত কয়েক বছর ধরে তরুণ চিকিৎসকদের বিশাল একটি অংশের উচ্চশিক্ষার ক্ষেত্রে রেসিডেন্সিকে বেছে নেওয়ার আগ্রহ দারুণভাবে বৃদ্ধি পেয়েছে। এক্ষেত্রে শিক্ষকদের সরাসরি তত্ত্বাবধান, নিয়মিত ক্লাস পরীক্ষার মাধ্যমে নিয়মতান্ত্রিকভাবে শিক্ষাদান পদ্ধতি, ন্যূনতম একটি মাসিক ভাতা প্রভৃতি নিয়ামক হিসেবে কাজ করছে বলে মনে করেন সুধীজনরা। উচ্চশিক্ষার অন্য সব মাধ্যমগুলোও ক্রমশঃ চিকিৎসকবান্ধব, আধুনিক ও যুগোপযোগী হবে এমনটিই সকলের প্রত্যাশা।
 

 

  এই বিভাগের সর্বাধিক পঠিত